ফেরারী থেকেও ‘মানবতার মা’ দিনার সহায়তা ৭ম নবজাতকের জন্ম

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১০ পিএম, ১ জুলাই ২০২০ বুধবার

ফেরারী থেকেও ‘মানবতার মা’ দিনার সহায়তা ৭ম নবজাতকের জন্ম

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনা প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের শুরু থেকেই নানা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। একজন নারী হয়েও নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে রাত অবধি বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে ও সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ওয়ার্ডবাসীর দ্বারে দ্বারে ছুটে বেড়িয়েছেন তিনি। সেই সাথে তিনি গর্ভবর্তী মায়েদের নানাভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। আর এসকল কর্মকান্ডের ফল কাউন্সিলর দিনাকে ‘মানবতার মা’ হিসেবে ভূষিত করা হয়।

কিন্তু তার এই পথচলাকে দমিয়ে দিতে চায় কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনার প্রতিপক্ষরা। তার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে দেয়া হয় মামলা। আর এই মামলার আসামী হয়ে আয়েশা আক্তার দিনাকে ফেরারী জীবন যাপন করতে হচ্ছে। তারপরেও তিনি দমে যাননি। ফেরারী থেকেও তার সহযোগিতায় একের পর এক ফুটফুটে শিশুর জন্ম নিচ্ছে। সেই সাথে সেই প্রসূতি মায়েরা দেখছেন তাদের সন্তানের প্রিয় মুখ এবং আত্মীয় স্বজনদের মুখে ফুটে উঠছে হাসি।

তারই ধারাবাহিকতায় ‘মানবতার মা’ কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনার সহযোগিতায় ১ জুলাই বুধবার দুপুরে এক ফুটফুটে শিশুর জন্ম হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনা জানান, আল্লাহপাকের অশেষ মেহেরবানিতে সপ্তম পর্যায়ে আমার সার্বিক তত্বাবধানে ডন চেম্বার আল মক্কা হাসপাতালে আরো এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়েছে। এদিন দুপুর একটায় তাতখানা বৌ বাজার এলাকা থেকে ভাতিজা ইমন ফোন দিয়ে জানালো এক বোনের প্রসব ব্যাথা শুরু হয়েছে। কিন্তু করোনায় তারা আর্থিক ভাবে সংকটময় অবস্থায় আছে। আমি সাথে সাথে তাদের ডনচেম্বার আল-মক্কা হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলি সেই সাথে আমিও হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। হাসপাতালে যাওয়ার পর ডাক্তার রোগীকে দেখে বলে যেহেতু এটি তার দ্বিতীয় সন্তান জন্ম হবে এবং প্রথম সন্তান সিজারে হয়েছে তাই আমাদেরকে সিজারে যেতে হবে কিন্তু রোগীর শরীরে রক্ত দিতে হবে।

পরবর্তীতের ব্লাডের জন্য ছোট ভাই জালকুড়িয়ান ব্লাড ডোনার্সের সভাপতি অপুকে ফোন দেই এবং রোগীর রক্তের গ্রুপ বি পজিটিভ জানিয়ে দেই। সাথে সাথেই অপু জালকুড়িয়ান ব্লাড ডোনার্সের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মেহেদী হাসানকে ও জালকুড়িয়ান ব্লাড ডোনার্সের সদস্য সোহাগকে পাঠিয়ে দিলো এবং সোহাগ রোগীকে রক্ত দিলো। এর কিছুক্ষণ পর সিজারের মাধ্যমে জন্ম নিলো ফুটফুটে একটি পুত্র সন্তান। এই নিয়ে আমার সপ্তম পর্যায়ে ডেলিভারিতে সহায়তার কার্যক্রম। মজার বিষয় হলো ৭জনই পুত্র সন্তান হয়েছে।

তার বিরুদ্ধাচারণকারীদের প্রতি আহবান রেখে দিনা বলেন বলেন, অনেকেই দেখলাম হিংসাত্মক হয়ে ফেসবুকে আমাকে নিয়ে লিখেছেন আমি নাকি হাসপাতালের মালিকদের সাথে যোগসাজশে কোন বাচ্চার ডেলিভারী হলে সেখানে গিয়ে ফটোসেশন করে নিজের নামে চালিয়ে দেই। দয়া করে এই মহামারীতে এই নোংরামি করবেননা। আল্লাহ কে ভয় করেন। আমি কখন কোন হাসপাতালে ডেলিভারী করিয়েছি তা স্পষ্ট আমার স্ট্যাটাসে লিখে দিয়েছি আপনারা ঐ হাসপাতালে গিয়ে খোঁজ নিয়ে তারপর মন্তব্য করুন। এভাবে মিথ্যা সমালোচনা করে নিজেকে আর নিচে নামাবেন না। পারলে আপনিও একজন অসহায় গর্ভবতী নারীকে সহযোগীতা করুন। এই মহামারিতে সবচেয়ে অসহায় অবস্থায় আছে স্বচ্ছল বা অস্বচ্ছল গর্ভবতী বোনেরা। কারন গর্ভাবস্থায় একজন নারী বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হন এবং তাকে অনেক সেনসেটিভ ভাবে থাকতে হয়। কোন অসুস্থতায় আক্রান্ত হলে চাইলেও যে কোন ঔষধ খেতে পারবেনা। আর এই মহামারী তে আল্লাহ না করুক কোন গর্ভবতী বোন যদি করেনায় আক্রান্ত হয় তাহলে সন্তান বাচানো সম্ভব না। তাই আপনি আমি আমরা সকলেই আসুন আমাদের আশেপাশের গর্ভবতী মায়েদের প্রতি সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেই।

দিনার আরও বলেন, ধন্যবাদ জানাই, সাংবাদিক ও মানবাধীকার কর্মি সোনিয়া দেওয়ান প্রীতি আপাকে সার্বক্ষণিক সাপোর্টের জন্য। সেই সাথে ধন্যবাদ জানাই নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের সাবেক এমপি আবুল কালাম এবং একমাত্র সুযোগ্য পুত্র নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাউসার আশাকে। সে সার্বক্ষণিক ভাবে লোকজন দিয়ে এই ডেলিভারি পর্যন্ত সকল কাজে আমাকে সহোযোগীতা করছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও