অটোরিকশা আটকে দিল পুলিশ

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৯ পিএম, ৫ জুলাই ২০২০ রবিবার

অটোরিকশা আটকে দিল পুলিশ

নারায়ণগঞ্জে নিষিদ্ধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ২০টি ব্যাটারী চালিত রিকশা ও অটোরিকশার আটক করেছে পুলিশ। ৪ জুলাই শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শহরের চাষাঢ়া গোল চত্ত্বর এলাকায় ওই অভিযান পরিচালনা করেন চাষাঢ়া ট্রাফিক বক্সের পুলিশ সদস্যরা। পরে ওইসব রিকশা ও অটোরিকশা নিউ মেট্রো হল মোড়ে বিভাগীয় ট্রাফিক অফিসে আটকে রাখা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ট্রাফিক পুলিশের এএসআই বলেন, ‘শহরে ব্যাটারী চালিত রিকশা ও অটোরিকশা প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এ নিষেধ অমান্য করে শহরে প্রবেশ করায় ২০টি রিকশা ও অটোরিকশা আটক করা হয়েছে। কারণ এসব রিকশা শহরে প্রবেশ করায় যানজট সৃষ্টি হয়। প্রায় প্রতিদিন অভিযান চালিয়ে এসব রিকশা আটক করা হচ্ছে।

ভুক্তভোগী অটোরিকশা চালকেরা বলেন, ‘যাত্রী নিয়ে শহরে প্রবেশ করায় পুলিশ রিকশা আটক করে রাখছে। অনেক অনুরোধ করছি তাও ছাড়ছে না।

চালকেরা বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞা রয়েছে আমরা জানি কিন্তু এখন করোনার জন্য তো ছাড় আছে। এখনতো ভাতের সমস্যা। আমরা কি করবো। আমরা তো গরীব মানুষ কি করবো। কোথায় যাবো কিছুই বুঝতে পারছি না। দুই মাস তিন মাস করে ঘর ভাড়া বকেয়া রয়েছে। রিকশা নিয়ে বের না হলে আমরা কিভাবে এগুলো পরিশোধ করবো।’

চালক কাসেম মিয়া বলেন, ‘সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মাত্র দেড়শ টাকা কাম করছি। এ দিয়ে নিজে কি খামু আর সংসার কিভাবে চালাবো। শহরে শুধু গাড়ি আর গাড়ি কিন্তু যাত্রী নেই। এভাবে হলে কিভাবে চলবো। আমাদের গরীবের দিকেও তো দেখতে হবে। না দেখলে আমরা চলমু কিভাবে। আমাদের না দেখলে বাঁচার কোন পথ নেই। বাসা ভাড়া আটকে গেছে তিন মাসের। দিতে পারছি না। কিভাবে আমরা চলবো।

পুলিশদের উদ্দেশ্যে কাসেম বলেন, ‘আপনারা সরকারি বেতন পান। আপনারা চলতে পারেন। আমরা তো পাই না। আমরা কি করবো। কি করে চলবো। আমরাতো শুধু কর্ম করতে হয়। সারাদিন কাজ করে মাত্র ৪০০ টাকা কাজ হয়। এর উপর সারাদিন রোদের তাপে, ঘামে শরীর ভিজে যায়।’

তিনি বলেন, ‘শহরের রিকশা প্রবেশ নিষেধ করলে সব রিকশা বন্ধ করে দেন। সালাম করে যাবো আর কোন দিন রিকশা নিয়ে শহরে আসবো না। মাটি ধরে শপথ করে যাবো। আমরা কি করণে আসছি, কোন যাত্রী নেই। শুধু গাড়ি আর গাড়ি। একটা যাত্রী পেয়েছি তাই নিয়ে আসছি।’

কাসেম বলেন, ‘গাড়ি ছাড়বে কি ছাড়বে না এ বিষয়ে কেউ কিছু বলছে না। একটাই বলে বড় স্যারে জানে। আমরা কি করবো কোথায় যাবো কিছুই বুঝতে পারছি না।

এদিকে চাষাঢ়া ট্রাফিক বক্সে গিয়ে কোন পুলিশ সদস্যকে দেখা যায়নি।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও