অর্থকষ্টে বাংলাদেশের পতাকার নকশাকার শিব নারায়ণের পাশে টিম খোরশেদ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৪ পিএম, ৫ জুলাই ২০২০ রবিবার

অর্থকষ্টে বাংলাদেশের পতাকার নকশাকার শিব নারায়ণের পাশে টিম খোরশেদ

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকার নকশাকারী শিব নারায়ণ দাশ যখন অর্থকষ্টে দিনাতিপাত করছেন তখন তাকে নিজ সম্মানী হতে প্রতি মাসে একটি টাকার অংশ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ যিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হলেও করোনাকালীন সময়ে কাজ করে দেশজুড়ে খ্যাতি অর্জন করেছেন।

করোনা হিরো খ্যাত খোরশেদ আগামী মাস থেকে সিটি করপোরেশন থেকে মাসে যে সম্মানী ভাতা পাবেন তা থেকে প্রতি মাসেই একটি অংশ চলে যাবে শিব নারায়ণ দাশের একাউন্টে।

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে অসুস্থ শিব নারায়ণ দাশ পরিবার নিয়ে সংকটে পড়েছেন বলে জানিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ‘স্পিক আউট’। এই পরিবারের জন্য অর্থ সংগ্রহে নেমেছে তারা। এর উদ্যোক্তা সুপন রায়ের সঙ্গে ইতোমধ্যে দেখা করেছেন খোরশেদ ও টিম খোরশেদের সদস্যরা।

বর্তমান পরিস্থিতি জানতে শিব নারায়ণ দাশকে ফোন করা হলে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কষ্টের মধ্যে বেঁচে আছি, এটাই আর কি। এর বেশি কিছু আমি বলতে চাই না। আমার বলার কিছু নেই। আমি অসুস্থ। শরীরটা এই ভালো, এই খারাপ। কিছুক্ষণ আগেও ঘুমিয়ে ছিলাম, আবার জেগে উঠেছি। এভাবে চলছে। এটা আমার শ্বাসকষ্ট। ঔষধপত্র খেয়ে চলি।”

শিব নারায়ণ দাশের তৈরি করা বাংলাদেশের মানচিত্র সম্বলিত এই পতাকা ধরেই হয়েছিল স্বাধীনতার সংগ্রাম। শিব নারায়ণ দাশের তৈরি করা বাংলাদেশের মানচিত্র সম্বলিত এই পতাকা ধরেই হয়েছিল স্বাধীনতার সংগ্রাম। ১৯৭১ সালের ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা ওড়ানো হয়েছিল। লাল-সবুজের ভেতরে হলুদ রঙে বাংলাদেশের মানচিত্র সম্বলিত ওই পতাকার নকশা করেছিলেন সে সময়ের ছাত্রলীগ নেতা শিব নারায়ণ দাশ। ১৯৭০ সালের ৬ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ইকবাল হলের (বর্তমান সার্জেন্ট জহুরুল হক হল) ১৯৮ নম্বর কক্ষে বসে পতাকার এই নকশা করেছিলেন তিনি।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে সরকার শিল্পী কামরুল হাসানকে পতাকার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন দিতে বলে। কামরুল হাসান শিব নারায়ণ দাশের আঁকা মানচিত্র সম্বলিত পতাকা থেকে মানচিত্র বাদ দিয়ে যে পতাকাটি ডিজাইন করেন সেটিই এখন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা।

এদিকে মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ লিখেছেন, একটা স্বাধীন রাষ্ট্রের সৃষ্টির জন্য প্রথম যে তিনটি জিনিস সবার আগে দরকার তা হলো নিদিষ্ট একটি ভূখন্ড, একটি নাম ও তার প্রতীক একটি পতাকা। আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের আকাঙ্খা শুরু হয়েছিল ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে। তবে তার আনুষ্ঠানিকতা শুরু ও বিদ্রোহের চূড়ান্ত হয়েছিল যে পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে, সেই পতাকার কারিগর শিব নারায়ন দাস আজও বেচে থাকলেও ভাল নেই তিনি। মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করলেও তিনি ভাতা নেন না। পরিবারের একমাত্র উপার্জন ক্ষম পুত্র সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বেকার। পাঁচ মিনিট কথা বলতে দুইবার নেবুলাইস করতে হয়। শ্বাসকষ্টে ভুগেন সারা বছর। কিছু বন্ধুর সহযোগিতায় টেনেটুনে চলে সংসার আর তার চিকিৎসা। অভিমানী শিবুদা তবুও কাউকে কিছু বলতে চান না, অভিযোগও নেই কারো প্রতি। শুধু কণ্ঠে হতাশা একটাই। স্পষ্ট করে বলেন যে স্বপ্ন নিয়ে স্বাধীনত দেশের জন্য পতাকা বানিয়েছিলেন,যে স্বপ্নে বিভোর হয়ে যুদ্ধ করেছিলেন, তা পূরণ হয়নি।

নিজের নয়, জাতির অতৃপ্তি নিয়ে লুকিয়ে থাকা শিবুদাকে আবারো তুলে আনলেন প্রতিথযষা সাংবাদিক সুপন রায় ও তার মানবিক টিম স্পিক আউট। সুপন দা অনেক অনুনয় করে রাজী করিয়েছেন ক্যামেরার সামনে মুখ খুলতে। ফলে জানা গেল শিবু দার বর্তমান। আতকে ওঠার মত কাহিনী। আজ যখন দেশপ্রেমের কথা বলে হাজার কোটি লুট হয়ে যাচ্ছে, সেখানে শিবুদা খাদ্য কষ্টে ভোগেন। চিকিৎসার অভাবে তার ফুসফুস তাকে আর প্রাণ খুলে কথা বলতে সায় দেয় না। পক্ষকাল পেরিয়ে যায় এক টুকরো আমিষের অপেক্ষায়।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও