হকারদের হুংকার পুলিশের অ্যাকশন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০২:৪৩ পিএম, ৭ জুলাই ২০২০ মঙ্গলবার

হকারদের হুংকার পুলিশের অ্যাকশন

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন লকডাউনে অনেকটাই আটকা থমকে গিয়েছিল প্রাচ্যের ডান্ডিখ্যাত নারায়ণগঞ্জের স্বাভাবিক জীবনযাপন। প্রশাসনের তৎপরতায় করোনাকালে হকারমুক্ত করা হয় বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত। লকডাউন শেষে যখন পুরো শহর আবারো স্বাভাবিক হতে শুরু করে তখনি ফুটপাত দখলে নিতে তৎপর হয়ে উঠে হকাররা। তবে লকডাউন শিথিল হলেও ফুটপাতে হকার ফেরানো নিয়ে এখনো কঠোর প্রশাসন। যে কারণে লকডাউন শিথিলের এত দিনেও ফুটপাত এখনো হকার মুক্ত রয়েছে।

৬ জুলাই সোমবার বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায় এমন দৃশ্য। নারায়ণগঞ্জের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়া থেকে ২নং রেল গেইট পর্যন্ত কোথাও বঙ্গবন্ধু সড়কের উভয় পাশেই ছিল হকারমুক্ত। কয়েক জায়গায় গুটি কয়েক হকার পসরা সাজিয়ে ফুটপাতে বসলেও পুলিশ দেখলেই জিনিসপত্র পুটলি করে মুহূর্তেই দৌড়ে পালাচ্ছে। যে কারণে ফুটপাতে স্বস্তিতেই চলাচল করতে পারছেন সাধারণ পথচারীরা।

এ প্রসঙ্গে জামতলার বাসীন্দা রফিকুল ইসলাম নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, ‘লকডাউন শিথিল করলেও এখনো ফুটপাতে ওইরকমভাবে হকার বসতে দেখি নাই। কয়েক জায়গায় বিচ্ছিন্ন ভাবে বসলেও সেটা খুব সীমিত। তবে পুলিশকে শুরু থেকেই বেশ তৎপর দেখেছি। যে কারণে এখনো পর্যন্ত ফুটপাত দখল মুক্ত রাখা সম্ভব হয়েছে। আশা করি প্রশাসন এভাবেই তৎপর থাকবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ফুটপাত মানুষের চলাচলের জন্য। কিন্তু নারায়ণগঞ্জের ফুটপাতে যে পরিমাণ দোকান শহরের মার্কেটগুলোতেও মনে হয় তত দোকান নেই। যে কারণে আমাদেরকে রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয়। করোনার ভয়ে শহরে আসতেও ভয় করাতো।’

এদিকে ৫ জুলাই নারায়ণগঞ্জ জেলা হকার্স সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে এই বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে হাফিজুল ইসলাম বলেন, হকাররা সব জায়গায় অবহেলিত। এই করোনাকালে হকারদের কোনো ত্রাণ দেয়া হয়নি। সারাবিশ^ যখন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ব্যস্ত তখন বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষকে খাবারের জন্য লড়াই করতে হচ্ছে। দেশের সংবিধান বলে উচ্ছেদ করতে হলে পুনর্বাসন করতে হবে। হকারদের উচ্ছেদ করতে হলে আগে পুনর্বাসন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, রাস্তায় যখন প্রাইভেটকার দাঁড় করিয়ে যখন যানজট সৃষ্টি করা হয় তখন পুলিশ প্রশাসনের কোনো সমস্যা হয় না। দোকানদাররা যখন ফুটপাত দখল করে তাদের মালামাল রাখে তখন পুলিশ প্রশাসনের কোনো সমস্যা হয় না। শুধু হকাররা তাদের পেটের তাদের তাগিদে লোন নিয়ে ঋণ মালামাল কিনে দাঁড়াই তখনই পুলিশ প্রশাসনের সমস্যা হয়।

হাফিজুল ইসলাম বলেন, কাল একজন হকার বলেছিলেন সে আত্মাহুতি দিবে। যদি কোন হকার ক্ষুধার জ¦ালায় আত্মাহুতি দেয় তাহলে এর দায় দায়িত্ব নিতে হবে। হকারদের পুনর্বাসন করতে হবে। অন্যথায় আমরা কঠিন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো। হকারদের জন্য সিটি কর্পোরেশন যে মার্কেট করে দিয়েছে সেখানে কোনো সুযোগ সুবিধা নেই।

বাংলাদেশ হকার্স ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল হাশিম কবির বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী মিথ্যাবাদী। গত দুই বছর আগে ঢাকায় একটি মিটিংয়ে কথা দিয়েছিল হকারদের পুনর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ করবে না। কিন্তু এখন দেখি পুনর্বাসন ছাড়াই হকার উচ্ছেদ করছে। আমারা শুনেছি মেয়র আইভী পুলিশের আইজিপির সাথে কথা বলে হকার উচ্ছেদ করার জন্য। হকার উচ্ছেদের জন্য সাঈদ খোকনকে লাল কার্ড দেখিয়েছে হকাররা। তেমনিভাবে আপনাকেও লাল কার্ড দেখাবে নারায়ণগঞ্জের হকাররা। আপনি বিভিন্ন সময় হকারদের উপর অত্যাচার নির্যাতন নিপীড়ন চালান। এই অত্যাচার নির্যাতন নিপীড়ন বন্ধ করেন। অন্যথায় সামনে আপনি এর জবাব পাবেন। নারায়ণগঞ্জের হকারদের পাশে বাংলাদেশ হকার্স ইউনিয়ন আছে এবং থাকবে।

জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় হকার উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে হকার সহ আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। সেদিন ভাগ্যক্রমে আইভী প্রাণে বেঁচে গেলেও আহত হয়েছিল বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী।

ঘটনার ৭দিন পর ২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারি সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় দায়ের করা লিখিত অভিযোগ দেন নাসিকের আইন কর্মকর্তা জিএমএ সাত্তার। তবে সেই মামলা তখনো গ্রহণ করা হয়নি। তবে আদালতের নির্দেশে ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর সন্ধায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলাটি রেকর্ড হয়। ওই মামলায় ৯ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো ১ হাজার জনকে আসামী করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে হত্যার চেষ্টা, জখম, নাশকতা, ভাঙচুর সহ অরাজকতার অভিযোগ আনা হয়।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও