এক মাসেই নষ্ট লঞ্চ টার্মিনালের জীবাণুনাশক টানেল

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৫৭ পিএম, ৭ জুলাই ২০২০ মঙ্গলবার

এক মাসেই নষ্ট লঞ্চ টার্মিনালের জীবাণুনাশক টানেল

দেশে প্রথম করোনভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছিল নারায়ণগঞ্জে। সব থেকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা করোনার হটস্পট হিসেবেও চিহ্নিত হয় নারায়ণগঞ্জ। করোনার মধ্যেই নারায়ণগঞ্জে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়। নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনালে লঞ্চ চালুর পর যাত্রীদের নিরাপত্তায় স্থাপন করা হয়েছিল জীবাণুনাশক টানেল। তবে এক মাস না পেরোতেই লঞ্চ টার্মিনালে বসানো জীবাণুনাশক টানেলটি অকেজো হয়ে গেছে। ফলে ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে যাত্রীদের।

সরেজমিনে দেখা যায় এমন দৃশ্য। লঞ্চ টার্মিনালের মূল ফটকে বসানো জীবাণুনাশক টানেলটি থাকলেও তা বন্ধ হয়ে পরে আছে। যে কারণে জীবাণুনাশক টানেলের বাইরে দিয়েই যাতায়াত করছে যাত্রীরা। এছাড়া দেখা যায়নি হাত ধোয়ার কিংবা হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থাও। ফলে ঝুঁকি নিয়েই যাত্রীদের চলাচাচল করতে হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে যাত্রী সাইফুল ইসলাম নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘জীবাণুনাশক টানেল আছে। কিন্তু চলে না। তাই পাশ দিয়েই হেঁটে আসলাম। হাত ধোয়ার জন্যও কোনো ব্যবস্থা নাই। স্যানিটাইজারও দেওয়া হচ্ছে না। এতে করে আমাদেরকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলা হচ্ছে। আমাদের দাবি থাকবে যাতে দ্রুত এই টানেল ঠিক করা হয়। পাশাপাশি হাত ধোয়ার ব্যবস্থা ও স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনালের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক বাবু লাল বৈদ্য নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘টানেলটি বন্ধ আছে। শুনেছি ওইটা নাকি নষ্ট হয়ে গেছে। টানেল দেখাশোনার দায়িত্ব ঘাট কর্তৃপক্ষের। আমরা বিষয়টি তাঁদেরকে জানিয়েছি।’

এর আগে গত ১ জুন বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে সেখানে জীবাণুনাশক টানেল স্থাপন করা হয়েছিল। করোনাভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে নারায়ণগগঞ্জ থেকে চলাচলকারী সব ধরনের যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল ২৪ মার্চ বেলা ১২টা থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। ২৪ মার্চ মঙ্গলবার বিআইডব্লিউটিএ এর জনসংযোগ কর্মকর্তা মোবারক হোসেন মজুমদারের স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জাননো হয়েছিল।

নারায়ণগঞ্জ থেকে ৭টি রুটে ৭০টি লঞ্চ চলাচল করে। নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সিগঞ্জ রুটে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা ৬-৭ টা পর্যন্ত ২০ মিনিট পর পর লঞ্চ ছেড়ে যায়। এই রুটে ২৫টি লঞ্চ চলাচল করে। নারায়ণগঞ্জ থেকে চাঁদপুর রুটে ১৫টি, মতলব-মাছুয়াখালী রুটে ১৯টি, হোমনা-রামচন্দ্রপুর ১টি, ওয়াবদা, সুরেশ্বর-নরিয়া (শরিয়তপুর) কয়েকটি লঞ্চ চলাচল করে থাকে। তবে এসকল রুটের মধ্যে সন্ধ্যার পরে ২টি রুটে লঞ্চ চলাচল করে থাকে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও