ক্রমশ স্থাপনা সরাচ্ছে দখলদাররা

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৪ পিএম, ১২ জুলাই ২০২০ রবিবার

ক্রমশ স্থাপনা সরাচ্ছে দখলদাররা

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু ও নাসিকের দুই প্রকৌশলী মসিউর রহমান ও খন্দকার নাজমুল পরিদর্শন করেছেন ঐহিত্যবাহী গঞ্জে আলী খাল। এই খাল দখল মুক্ত রাখতে আধুনিক পরিকল্পনা ও পার্ক নিমার্ণ নিয়ে কাজ চলমান রয়েছে। খাল দিয়ে পরিস্কার পানি চলাচলে কোন সমস্যা না হয়, সে জন্য বিভিন্ন কৌশল করা হয়েছে। ইতোমধ্যে শুক্রবার থেকে স্বেচ্ছায় দখলকৃত মার্কেট ও দোকানপাট সরিয়ে নেয়া হচ্ছে, ফলে এই খাল দ্রুত পুনঃখনন সমাপ্ত করা হবে।

১২ জুলাই বেলা ১১টায় নাসিক ১২নং ওয়ার্ডের চাঁদমারী এলাকার গঞ্জেআলী খাল পরিদর্শনকালে এ তথ্য জানান কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু।

তিনি জানান, টানা বর্ষণের কারণে নাসিকের ১২নং ওয়ার্ডের উত্তর চাষাড়া, চাঁদমারী, খানপুর, তল্লা সহ বিভিন্ন এলাকায় টানা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এতে হাজারো পরিবার চরম ভোগান্তিতে শিকার হয়। চাঁদমারী ও তল্লা এলাকায় গঞ্জে আলী খালের উপরে দখলদারদের স্থাপনা ও ঝুট-প্লাষ্টিকের কারণে পানি চলাচলে ব্যাহত হওয়ার কারণে এই ভোগান্তি হত। এর পরিপ্রেক্ষিতে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী কাছে খাল উদ্ধার ও পুনঃখননের সহযোগিতা কামনা করি। তিনি সাথে সাথে দুই ভেকু দেন এবং দ্রুত খালটি উদ্ধারে কাজ শুরু করা নিদের্শ দেন। এদিকে দখলদারদের দখল মুক্ত করতে এমপি সেলিম ওসমান ও এমপি শামীম ওসমানের সহযোগিতা কামনা করি। তিনজনের সহযোগিতা কারণে আজ গঞ্জেআলী খাল উদ্ধার ও পুনঃখননের অর্ধেক কাজ শেষ প্রান্তে। এর পাশপাশি ১২নং ওয়ার্ডের এলাকাবাসী ও পঞ্চায়েতের বিভিণœ সহযোগিতায় আমার কাজের গতি বৃদ্ধি পেয়েছে।

উল্লেখ্য, এতে খালটি উদ্ধার ও পুনঃখননের জন্য স্থানীয় এমপি ও নাসিক মেয়রর প্রতি সহযোগিতা চান কাউন্সিলর শকু। তাদের আশ্বাসে ২৮ জুন থেকে গঞ্জে আলী খাল পুনঃখনন করার ঘোষনা দেয়া হয়। ২৫ জুন থেকে রেললাইন পার্শ্ব ঘিরে খানপুর তল্লা, উত্তর চাষাড়া অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়া হলেও চাঁনমারীতে মার্কেট, হোটেল ও ঝুটের দোকানগুলো সরিয়ে নেয়া হয়নি। এতে জনগণের মধ্যে কিছু সন্ধিহান হলেও শুক্রবার থেকে স্বেচ্ছায় দখলদাররা তাদের মালামাল সরিয়ে নেয়া শুরু করে এখনো চলমান রয়েছে।

চাষাঢ়া পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি আবুল হোসেন কামরান জানান, এখন খুব দ্রুতই এটির কাজ সম্পন্ন হবে আশা করি। কারো দখলের দোকানপাটের জন্য আমরা ১২নং ওয়ার্ডবাসী কেনো জলাবদ্ধতায় থাকবো। তাই এটি উচ্ছেদ হয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসনে এ খালটি পুনঃখনন অনেক জরুরি ছিল তাই হচ্ছে। এটি পুরোই দখল করে রেখেছিল কতিপয় লোকেরা। আমরা ছোট বেলায় দেখতাম এই খালে রীতিমত স্রোত খেলা করতো। সেই খাল আজ ভরাট করে দখল করে রাখায় জলাবদ্ধতায় নগরবাসীর দুর্ভোগ হয়। যেহেতু সকলেই এবং স্থানীয় কাউন্সিলর চাচ্ছেন এটি খনন করা হোক তাই আমরাও এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা কামনা করি আশা করছি দ্রুত খালটি খননের পর আগের মত এখানে পানির স্রোত খেলা করবে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও