ওপেন হাউজডেতে পুলিশে গ্রেপ্তার, মিমাংসার জন্য কাউন্সিলরকে চাপ

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৩ পিএম, ১৬ জুলাই ২০২০ বৃহস্পতিবার

ওপেন হাউজডেতে পুলিশে গ্রেপ্তার, মিমাংসার জন্য কাউন্সিলরকে চাপ

নারায়ণগঞ্জ শহরের নয়াপাড়ায় অষ্টম শ্রেণির এক কিশোরীকে হয়রানী করার অভিযোগে প্রতিবেশী রিয়াল আহমেদ ফয়সালকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

১৬ জুলাই বৃহষ্পতিবার বিকালে আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত ‘ওপেন হাউজ ডে’ তে সরাসরি পুলিশের কাছে এ অভিযোগ করেন কিশোরীর বড় বোন। পরবর্তীতে পুলিশের পরামর্শে সদর থানায়ও রিয়াল আহমেদ ফয়সালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তিনি।

জানা যায়, রিয়াল আহমেদ ফয়সাল শহরের নয়াপাড়া মোড়ের স্থায়ী বাসিন্দা হুমায়ুন আহমেদের ছেলে। দ্বিতীয় বিবাহের পর বর্তমানে তার দুই ছেলে-মেয়ে রয়েছে। এবং ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার পরিবার রিয়ালের পাশের বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে থাকে।

এলাকাবাসী ও পুলিশের মত বিনিময় এ সভা চলাকালেই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হস্তক্ষেপে ফয়সালকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তবে সভা শেষ হতেই অভিযুক্তর চাচা সিরাজ মিয়া অভিযুক্তকে ছাড়িয়ে আনার জন্য কাউন্সিলরের অফিসে এসে হম্বিতম্বি করেন। এবং কিশোরীকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি এলাকার কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তিদেরও সাথে নিয়ে আসেন। এ সময় তারা কাউন্সিলরকে কিশোরীর পরিবারকে জোর করে বিষয়টি মিমাংশা করে দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

অভিযোগকারী জানান, ‘আমার বোনকে প্রায়ই বিরক্ত করতো এই রিয়াল। তার উৎপাতের কারণে আমার বোনের স্কুলে যাওয়াও বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তবে গত ১৩ জুলাই আমাদের বাড়িতে এসে সে আমাদের সবার সাথে খুবই বাজে ব্যবহার করে। এবং আমাদের পরিবারের এক অন্তঃস্বত্ত্বা নারীকেও শারীরিক আঘাত করে সে। সেদিন আমার ছোট বোনকে তুলে নিয়ে যেতে এসেছিল বলেও জানায় সে। এখন আমরা আতংকে আছি, যে কোনো সময় সে আমাদের ক্ষতি করতে পারে।’

তবে কাউন্সিলর ও অভিযুক্তর পরিবারকে বিষয়টি পূর্বে জানানো হলেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেননি বলে জানান কিশোরীর বড় বোন। তিনি বলেন, ‘তাই এখন তারা যদি আমাদের বিচার শালিশ করে বা আপষ মিটমাট করার কথা বললে আমরা তা মেনে নিব না।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘দুই পক্ষই যদি আগে আমার কাছে এসে বলতো তবে বিষয়টি মিমাংশা করে দিতে পারতাম। আমি কখনোই হয়রানীকারীকে ছাড় দিতাম না। এখন এখানে পুলিশ জড়িত রয়েছে। এখন পুলিশ যা সিদ্ধান্ত নিবে তাই হবে। আমি অপরাধী ছেড়ে দেয়ার পক্ষে কখনোই সুপারিশ করবো না।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘তারা আগে বিষয়টি পুলিশকে জানা নি। তবে আজ পুলিশ বিষয়টি জানার সাথে সাথে পদক্ষেপ নিয়েছে। এখন আমি তাদের পরামর্শ দিব দ্রুত থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ করার। কেউ যদি এখন তাদের হয়রানী করার চেষ্টা করে তবে আমরা পুনরায় ব্যবস্থা নিব।’


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও