যত্রতত্র লোড আনলোডে ভয়াবহ যানজটে নিতাইগঞ্জ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১২ পিএম, ৩০ জুলাই ২০২০ বৃহস্পতিবার

যত্রতত্র লোড আনলোডে ভয়াবহ যানজটে নিতাইগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জ শহরের অন্যতম ব্যস্ততম এলাকা হচ্ছে নিতাইগঞ্জ এলাকা। তবে এই এলাকাতে বর্তমানে যাতায়াতের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সকাল থেকে শুরু করে বিকেল পর্যন্ত ভয়াবহ যানজট লেগে থাকে। ফলে অনেক সময় রিকসাওয়ালারাও যেতে চান না। আর এই যানজটের অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে যত্রতত্র ট্রাক আনলোড করা। প্রধান সড়ক পুরোটাই দখল করে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় ধরে চলে ট্রাক লোড আনলোড। নারায়ণগঞ্জের জনপ্রতিনিধিরা থেকে শুরু করে বিভিন্নজন নানাভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে গেলেও তাদেরকে যেন কোনভাবেই থামানো যাচ্ছে না।

নিতাইগঞ্জ এলাকার ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা যায়, নিতাইগঞ্জ এলাকায় চালের আড়ৎ আছে ১০০টির মতো, ময়দার মিল চালু আছে ৫০টি। ময়দার আড়ৎ ৬৮, গম ও ডালের আড়ত ২০০-২৫০, লবণের আড়ত আছে ৩০টি। তেল-চিনির আড়ত আছে প্রায় ৪০০।

ভুসির আড়ৎ এক হাজারের মতো। প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী কাজ করেন। এর সঙ্গে যুক্ত আছে নদী ও সড়কপথে পরিবহন ব্যবসা, সেখানে বিপুলসংখ্যক লোকের কর্মসংস্থান। প্রতিদিন এই বাজারে প্রায় ২০০ কোটি টাকার লেনদেন হতো। যদিও বর্তমানে লেনদেন অনেক কমে গেছে।

তবে নারায়ণগঞ্জ নগরবাসী চান যেন দিনের বেলা ট্রাক লোড আনলোড না করে রাতের বেলা ট্রাক লোড আনলোড করা হয়। ফলে নিতাইগঞ্জ এলাকা সহ নারায়ণগঞ্জ শহরের যানজট অনেক কমে যাবে। দিনের বেলা মালবাহী ট্রাকের লোড আনলোড বন্ধ করার জন্য নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং তার অনুরোধে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংস সদস্য সেলিম ওসমানও চেষ্টা করেছেন। কিন্ত কয়েকদিনের আবার সেই আগের অবস্থানে ফিরে যায়। ফলে সকাল থেকে শুরু করে দিনব্যাপী ভয়াবহ আকারে যানজট লেগে থাকে নিতাইগঞ্জে।

সরেজমিনে নিতাইগঞ্জ মোড়ে গিয়ে দেখা গেছে, মন্ডলপাড়া ব্রীজ থেকে নিতাইগঞ্জ মোড় পর্যন্ত আধা কিলোমিটারের কম রাস্তা। এরই দুই পাশে রয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল, ব্যাংক, মসজিদ, সিটি করপোরেশনের নগর ভবন, ওষুদের দোকান, স্কুল, খেলারমাঠ সহ গুরুত্বপূর্ণ সকল প্রতিষ্ঠান। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠানের সামনেই বিভিন্ন পণ্যবাহী ট্রাক পার্কিং করে রাখা হয়েছে। আর কিছু ট্রাক থেকে পণ্য লোড আনলোড করা হচ্ছে। ফলে পুরো প্রধান সড়ক সরু হয়ে গেছে। তাদের দখলদারিত্বের কারণে একটি রিকসা পর্যন্ত যেতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে। একেবারের একটি করে এর পাশে মালবাহী ঠেলাগাড়ি নিয়ে যাওয়ায় আসায় প্রতিনিয়ত সৃষ্টি হচ্ছে যানজট।

এছাড়াও পণ্য লোড করে নিয়ে আসতে ও যেতেই সব থেকে বেশি যানজট সৃষ্টি হয়। তবে এ যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশের কোন কর্মকর্তা দেখা যায়নি। সাদা পোশাকে কয়েকজন লাঠি নিয়ে যানজট নিরসনে কাজ করলেও তারা শ্রমিক নেতাদের নিয়োজিত চাঁদা উঠানোর লোকজন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, নিতাইগঞ্জ মোড়ে ও সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের উল্টো পাশে ট্রাক পার্কিং সম্পূর্ণ অবৈধ। সিটি করপোরেশন ও প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নিষেধ করা হয়েছে। কিন্তু সে নিষেধাজ্ঞা তোয়াক্কা না করে নিতাইগঞ্জ মোড় থেকে মন্ডলপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত ট্রাক থেকে শুরু করে বিভিন্ন গাড়ি পার্কিং করে রাখা হয়। কিন্তু এ বিষয়ে বিভিন্ন সময় বলা হলেও কোন পদক্ষেপ নেয় না প্রশাসন। এছাড়াও সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে একাধিকবার বাধা দিতে গিয়ে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

নিতাইগঞ্জের দিকে যাও মোতালেব হোসেন জানান, নিত্য প্রয়োজনী কিছু পণ্য কেনা কাটার জন্য নিতাইগঞ্জ যেতে চাচ্ছিলাম। কিন্তু নিতাইগঞ্জ যাওয়ার কোনো রিকসাওয়ালা যেতে রাজী হয়নি। অবশেষে একটি রিকসাওয়াকে রাজী করি উঠলাম সেই রিকসা একটু সামনে এগিয়েই থেমে গেলো। প্রায় ঘণ্টাখানেক সময় ধরে রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছি। যানজট কমার কোনো লক্ষ্যণ নেই। আসলে যত্রযত্র এলোমেলোভাবে ট্রাক লোড আনলোড করার কারণে এই ভয়াবহ যানজট সৃষ্টি হয়ে থাকে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও