নারায়ণগঞ্জ মানে টাকার খনি : আইভী

৫ ভাদ্র ১৪২৫, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮ , ৩:১৫ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জ মানে টাকার খনি : আইভী


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১১:২০ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০১৮ শুক্রবার | আপডেট: ০১:১৩ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০১৮ শনিবার


নারায়ণগঞ্জ মানে টাকার খনি : আইভী

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র আইভী বলেন, নেগেটিভ নারায়ণগঞ্জ শব্দটা আমরা বলতে চাইনা। আমরা পজেটিভ নারায়ণগঞ্জ দেখতে চাই। ২০১১ থেকে কিন্তু পজেটিভ নারায়ণগঞ্জ হয়ে গেছে। সারা পৃথিবীতে কিন্তু নারায়ণগঞ্জকে পজেটিভ হিসেবে চিন্তা করে। যতই ৭ খুন হোকনা কেন, ত্বকী হত্যা হোকনা কেন, ত্বকী কিন্তু প্রতিবাদের প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা ব্যক্তিগত রেশারেশি করতে গিয়ে নেতৃত্বের সুস্থ্য প্রতিযোগিতায় না যেয়ে আমরা বিকল্প পথ হিসেবে ব্যবহার করে নেই। আমরা প্রশাসনকে ব্যবহার করি। ফলে কিন্তু আমরা অনেক কিছু অন্যায় কাজ করে ফেলি। নারায়ণগঞ্জের একটি দুর্বল দিক হল আমরা অনেক সময় সত্যি কথা বলতে সাহস পাইনা। কিন্তু এখন আমরা বলছি। যেই শহরের মানুষ স্তব্ধ ছিল সেই শহরের মানুষ এখন কথা বলছে। নারায়ণগঞ্জের সবচেয়ে খারাপ ও নেগেটিভ দিক যেটা হল প্রশাসন। যেই সত্যি কথাটা বলতেই হয়, এই প্রশাসনে যারাই আসুকনা কেন যত ভাল লোকই আসুকনা কেন তারা যখন ভাল কাজ করতে যেয়ে বিপদের মধ্যে পড়ে যায় তখন আর তারা ভাল কাজটি করতে চায়না। তখন তারা নারায়ণগঞ্জের সাথে এডজাস্ট করে কিভাবে পয়সা কামিয়ে তাড়াতাড়ি এখন থেকে চলে যাওয়া যায়।

আইভী বলেন, সারা বাংলাদেশের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ হল সবচেয়ে ধনী জেলা। এই জেলার মধ্যে অবৈধ পয়সা অনেক বেশি যার ফলে খুন খারাবিও বেশি। আবার এখানে টাকা পয়সার আদান প্রদানও বেশি। এই আদান প্রদান ও লোভ তো মানুষকে একটা সময় পাল্টে দেয় যার ফলে মানুষ বেশি নির্যাতিত হয়, খুন খারাবি বেশি হয়। থানাতে গেলে প্রভাবশালীদের ভয়ে কেউ নামই নিতে চায়না। আর সেই প্রভাবশালীদের নাম নিলে উল্টো হেরেজমেন্ট হতে হয়। মেয়রকে যেখানে আঘাত করলো সেখাতে আজকে ৩ মাস হয়ে গেল আমরা একটা মামলা করে মামলার কূলকিনারা করতে পারলামনা। যেখানে একজন মেয়রের মামলা নেয়না সেখানে সাধারণ মানুষের মামলা কিভাবে হয় সেটা আমার বোধগম্য নয়। এখানে যারা প্রশাসনের কাজ করতে আসে তারা একপেশে হয়ে যায়। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে বলেছি তারা কেন একপেশে হয়ে যায়। কারো ভয়ে নিশ্চয় নয়। লোভে! লোভ এখানে সবচেয়ে বেশি কাজ করে। নারায়ণগঞ্জ মানে টাকা, টাকার খনি। একবার যে ৫-৬ বছর কাজ করে যাবে তার আর কোথাও যেয়ে কাজ করতে হবেনা। এই লোভে তারা অন্যের নাম ব্যবহার করে, গডফাদারদের নাম ব্যবহার করে। ভাল অফিসার কি প্রশাসনে নেই। অবশ্যই আছে কিন্তু তাদেরকে এখান থেকে বিদায় নিতে হয়। তারা বেশি দিন থাকতে পারেনা। প্রশাসন বলতে জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপারকে শুধু বুঝাচ্ছিনা। সর্বস্তরের কর্মকর্তাদের বুঝাচ্ছি। এমনকি সিভিল সার্জনের ডাক্টার যারা আছে তারা ঘুষ দিয়ে নারায়ণগঞ্জে আসেন। এই অবস্থা থেকে কাজ করি। আমি একজন নারী হয়ে এই অবস্থা থেকে ১৪ বছর যাবত কাজ করছি। আমার বিরুদ্ধে অনেক অপবাদ ও লেখালেখি হয়েছে। কিন্তু আমি এক পা ও নড়িনি। এখানে আমার বিরুদ্ধে ফেসটুন ঝুলেছে ফাঁসি দিতে হবে। মঞ্চ করা হয়েছে দুদকের। আমার বিরুদ্ধে একজন নারী হয়ে পিছু হাটিনি, ভয় পাইনি। কখনো এই শহর থেকে চলে যাওয়ার কথা চিন্তা করিনি। অনেকে চলে গিয়েছে। নাজমা রহমান বাধ্য হয়েছেন চলে যেতে, বাধ্য হয়েছেন আকরাম সাহেব যেতে, বাধ্য হয়েছেন আরো অনেকে যেতে। নারায়ণগঞ্জ শহরের অনেক নেতানেত্রীরা এখানে থাকেনা ঢাকায় থাকে। নারায়ণগঞ্জের অনেক ব্যবসায়ীরা ঢাকায় বিনিয়োগ করছে। কারণ তাকে ব্যবসায়ের ৩০ ভাগ বেনামে আরেকজনকে দিয়ে দিতে হয়।

আইভী বলেন, একজন মেয়র কাজ করে তার ঢাল নাই তলোয়ার নাই সে নিধিরাম বাদশা। তার আন্ডারে ডেসা নাই, ওয়াসা নাই, গ্যাস নাই, পুলিশ নাই। কেউ নাই। যানজটের জন্য দায়ী করে মেয়রকে। যানজটের জন্য তো মেয়র দায়ী নয়। গ্যাস তিতাসের জন্য তো মেয়র দায়ী নয়। কিন্তু এগুলোতো মেয়রের আন্ডারে থাকা উচিত। তাহলে একজন মেয়র কি কাজ করবে। আমি নেগেটিভ নারায়ণগঞ্জেকে পজিটিভ করতে চাই। আমরা নারায়ণগঞ্জকে পজিটিভ দিকে নিয়েই যাব।

একই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান বলেছেন, ‘সাংবাদিকেরা আজকে সাহস নিয়ে কথা বলতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী প্রথম মহিলা মেয়র এবং একজন প্রতিবাদী কণ্ঠ। মেয়র আইভীকে বলব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাহস করে সকল অশুভ শক্তিতে মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে আজকে একটি পর্যায়ে নিয়ে দিয়েছেন। বাংলাদেশ আজকে অনুন্নত দেশ থেকে উন্নয়শীল দেশ হয়েছে। বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত। বিশ্বে যে একশ জন মহিলা আছে তার মধ্যে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর নাম অর্জন করেছেন। আইভীকে বলব সত্যের পথে তুমি চল। সত্যের জয় হবে এবং প্রতিবাদ তোমাকে স্বীকৃতি দিবে যেভাবে বার বার দিচ্ছে।

২০ এপ্রিল শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া বালুর মাঠ এলাকায় এম্পেয়ার কনভেনশন হলে নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন (এনইউজে) আয়োজিত সম্মাননা পদক অনুষ্ঠানে তাঁরা এসব কথা বলেন তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রবীণ সাংবাদিক নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সদস্য ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক ট্রেজারার বিমান ভট্রাচার্যকে অধ্যক্ষ শামসুল হুদা স্মৃতি পদক, একুশে টেলিভিশনের নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ও নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি বিমল রায়কে সাংবাদিক বংশী সাহা স্মৃতি পদক, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার বিশেষ প্রতিনিধি কবি হালিম আজাদকে মুজিবর রহমান বাদল স্মৃতি পদক, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও চ্যানেল আই এর নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি রুমন রেজাকে আজিজুল হক স্মৃতি পদক প্রদান করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুস সালাম ও সেক্রেটারী আফজাল হোসেন পন্টির সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী, বাংলাদেশ ফেডারেশন সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজের) সভাপতি মন্জুরুল আহসান বুলবুল, মহাসচিব ওমর ফারুক সহ সাংবাদিক সহ স্থানীয় প্রশাসনিক কর্মকর্তরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সংগঠন সংবাদ -এর সর্বশেষ