৬ আষাঢ় ১৪২৫, বুধবার ২০ জুন ২০১৮ , ৫:৩১ অপরাহ্ণ

মাদক ইস্যু : চুনোপুটিরা ধরা পড়ছে, লাপাত্তা রাঘববোয়ালরা


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৫ পিএম, ২৭ মে ২০১৮ রবিবার | আপডেট: ০২:৫৫ পিএম, ২৭ মে ২০১৮ রবিবার


মাদক ইস্যু : চুনোপুটিরা ধরা পড়ছে, লাপাত্তা রাঘববোয়ালরা

মাদক বিরোধী অভিযানে নারায়ণগঞ্জে গত ১২ দিনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে যাদের একজনের বাড়ি টঙ্গীতে, একজনের বাড়ি মেহেরপুর ও অপরজনের বাড়ি নারায়ণগঞ্জে। তবে এখনো জেলার শীর্ষ দশে থাকা মাদক ব্যবসায়ীদের ধরা সম্ভব হয়নি। টপ টেনে থাকা রূপগঞ্জের বজলুর রহমান ও বন্দর উপজেলার কবির হোসেনের নাম জানা গেলেও অপর ৮জনের নাম প্রকাশ করেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তবে তাঁরা বলছেন, একটি তালিকা ধরেই তারা অভিযান চালাচ্ছে। অভিযানের তৎপরতার কারণে ইতোমধ্যে অনেক মাদক ব্যবসায়ী গা ঢাকা দিয়েছে।

অপরদিকে র‌্যাব মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা তৈরি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। আর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর জেলার অন্তত ২০০ জনের একটি তালিকা তৈরি করে সে অনুযায়ী অভিযান চালাচ্ছে। তবে এখনো বড় ধরনের কোন মাদক ব্যবসায়ীকে ধরতে পারেনি।

পুলিশের একটি সূত্র জানান, গত ১ রোজা থেকে অভিযান জোরদার করা হলেও অনেক মাদক বিক্রেতা ইতোমধ্যে আত্মগোপনে আছেন। তাছাড়া খুচরো মাদক বিক্রেতারাও একটু সাবধান অবলম্বন করছে। সেই সঙ্গে রোজার মাস চলায় অনেকেই নানা কৌশলে আছেন। এতে করে হয়তো আপাতত শীর্ষদের ধরা না গেলেও অচিরেই তাদের গ্রেফতার সম্ভব হবে।

এদিকে সবশেষ গত বৃহস্পতিবার সিদ্ধিরগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সেলিম ওরফে ফেন্সি সেলিম (৩২) নামের মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি শূটার গান, ৬ রাউন্ড গুলি, একটি ছুরি, ৫ বোতল ফেন্সিডিল ও ৬শ’ পিছ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে। ফেন্সি সেলিম ডেমরা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে ডেমরা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ১৭টি মামলা রয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে ২টি মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা ছিল।

২২ মে মঙ্গলবার ভোরে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শিমুলতলী এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ক্রসফায়ারে পড়ে বাচ্চু খান (৩৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। র‌্যাবের দাবি নিহত বাচ্চু গাজীপুর ও টঙ্গী এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৯টির বেশি মাদক মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একটি প্রাইভেটকার ও এতে থাকা প্রায় ৯ হাজার ইয়াবা বড়ি, দুই রাউন্ড গুলিভর্তি একটি বিদেশী পিস্তল ও গুলি খালি খোসা।

সিদ্ধিরগঞ্জে ১৫ মে ভোরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রাজ মহল রিকন নামের মাদক পাচারকারী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে র‌্যাবের তিন সদস্য। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পাইনাদি এলাকায় ওই বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে দুই রাউন্ড গুলিসহ একটি বিদেশী পিস্তল, দশ হাজার পিছ ইয়াবা ট্যাবলেট এবং নগদ দুই লক্ষাধিক টাকা। এছাড়া একটি ট্রাকও আটক করা হয়েছে। নিহত রিকন মেহেরপুর জেলা সদরের কাঁসারী পাড়া এলাকার নিহাজউদ্দিন তুফানের ছেলে।

র‌্যাব-১১ এর সিনিয়র সহকারি পরিচালক আলেপ উদ্দিন জানান, র‌্যাব নারায়ণগঞ্জ জেলার মাদক ব্যবসায়ীদের একটি তালিকা তৈরী করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে পাঠিয়েছেন। তাছাড়া তাদের অভিযান নিয়মিত চলছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ সার্কেলের সহকারী পরিচালক বিপ্লব কুমার বলেন, জেলার বিভিন্ন উপজেলায় শীর্ষ মাদক বিক্রেতাদের তালিকায় রয়েছে সর্বমোট দেড় থেকে দুই শ। এছাড়া শীর্ষ ১০ জনের একটি তালিকাও আছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি কামরুল ইসলাম বলেন, নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা এলাকায় আমাদের শীর্ষ মাদক বিক্রেতা রয়েছে ৫-৬ জন। যার মধ্যে বাধন ও শেখ ফরিদ দুই সহোদরের মধ্যে বাধনকে আমরা ইতিমধ্যে গ্রেফতার করেছি। বাকীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়াও খুচরো বিক্রেতা রয়েছে দেড় থেকে দুই শ’ জন।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি এস এম মঞ্জুর কাদের পিপিএম জানান, ফতুল্লায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে কমপক্ষে ৩০ জন। এছাড়া খুচরো মাদক বিক্রেতা রয়েছে ৪ থেকে ৫শ’ জনের মতো। মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বন্দর থানার ওসি শাহীন মন্ডল জানান, বন্দর উপজেলায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে ২০ থেকে ২৫ জন। এছাড়া খুচরো মাদক বিক্রেতা রয়েছে ২ থেকে ৩শ জনের মতো।

সোনারগাঁও থানার ওসি মোরশেদ আলম জানান, সোনারগাঁও থানায় মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকায় ৪শ মাদক বিক্রেতার নাম রয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সংগঠন সংবাদ -এর সর্বশেষ