সুলতানুজ্জামানের মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন প্রাঙ্গন, শ্রদ্ধায় স্মরণ

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:২৭ পিএম, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ রবিবার

সুলতানুজ্জামানের মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন প্রাঙ্গন, শ্রদ্ধায় স্মরণ

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সহ সভাপতি ও সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামানের প্রয়াণে আদালত পাড়া জুড়ে বইছে নীরব শোকর ছায়া। ২ ফেব্রুয়ারি দুপুর আড়াইটায় মাত্র ৫৪ বছর বয়সে চলে যান না ফেরার দেশে। খবর পৌছামাত্র চোখের পানিতে ভিজে উঠে তার অসংখ্য সহকর্মী ও বারের সিনিয়র জুনিয়র আইনজীবীদের।

৩ ফেব্রুয়ারি (রবিবার) অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামান স্মরণে বন্ধ থাকে আদালতের কার্যক্রম। বিচার প্রার্থী ও আইনী সেবা প্রার্থীরা এসে ফিরে যান তাঁর মৃত্যুর খবর শুনে। পুরো আদালতপাড়ায় তখন পর্যন্ত উঠেনি কোন শোকাহত লেখা সংবলিত ব্যানার। কিন্তু তবুও পুরো আদালত প্রাঙ্গণ যেন তার নিত্যদিনের ব্যস্ততা হারিয়ে স্তব্ধ হয়ে রয়েছে। সদা হাস্যময়ী ও মিষ্ঠভাষী এ জনপ্রিয় আইনজীবীর এমন প্রয়াণ মেনে নিতে পারছিলেন না কেউই।

দুপুর ১২ টায় জেলা ও দায়রা জজকোর্ট কক্ষে শুরু হয় অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামান স্মরণে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল। তাকে স্মরণ করতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন বারের সাবেক সভাপতি আব্দুল বারী ভূইয়া, সিনিয়র সহ সভাপতি মাসুদুর রউফ সহ অনেকেই।

অব্যাক্ত অনুভূতিতে তাঁর জুনিয়র ও সহকর্মীরা নীরবে চোখের পানি ফেলছিলেন। একজন বলেই ফেললেন, ‘দীর্ঘদিনে অনেক আইনজীবীর স্মরণ সভা করতে দেখেছি। কিন্তু এভাবে কাঁদতে দেখিনি আইনজীবীদের।’

সভায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামান অত্যান্ত মিষ্টভাষী ও দক্ষ আইনজীবী ছিলেন। তিনি আইনপেশাকে মানুষকে সেবার পেশা হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। কখনও কোন আইনজীবীর সাথে উচ্চস্বরে কথা বলেননি। মামলার প্রতিপক্ষ আইনজীবীকেও তিনি উস্কানীমুলক বক্তব্য প্রদান করেননি। তবে তিনি নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি উদাসীন ছিলেন। যার ফলে অকালেই চলে যেতে হলো মহৎ এই আইনজীবীকে।

শোকসভায় জেলার জিপি মেরিনা বেগম বলেন, সুলতানুজ্জামান এতটাই শান্তিপ্রিয় ছিলেন যে তাকে উস্কানী দিয়েও উত্তেজিত করা যেত না। তার মত শান্ত চরিত্রের মানুষ খুব কম রয়েছে। নিজের কাজের প্রতি অগাধ মনোযোগ আর ব্যবহার আইনজীবীদের মাঝে আদর্শ হয়ে থাকবে। তবে শেষ দিকে তিনি হজে যাওয়ার কথা বার বার বলতেন। যেতে পারলেন না, আল্লাহ যাতে তার আশাকে কবুল করে নেন।

অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামানের ছোট ভাই অ্যাডভোকেট ইউসুফ জামান আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমরা আইনজীবীরা কাজের মাঝে এতটাই ব্যাস্ত থাকি আমাদের নিজেদের শরীরের খবর নিতে খেয়াল থাকে না। একই সাথে কখনও রোগাক্রান্ত হয়ে পড়লে একজন ডাক্তার কিংবা একটি ডায়গানস্টিকের রিপোর্টে ভরসা করে বসে থাকবেন না। আমার ভাই ডাক্তারদের অবহেলা আর নিজের শরীরের প্রতি খেয়াল কম রাখায় এত দ্রুত পরপারে পাড়ি জমালো।

অ্যাডভোকেট সুলতানুজ্জামানের অকাল প্রয়াণে শোক প্রকাশ করেছেন পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন, বারের সিনিয়র সহ সভাপতি আলী আহমদ ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়া, বারের সাবেক সভাপতি আব্দুল বারী ভূঁইয়া, সাখাওয়াত হোসেন খান, আবদুর রশিদ ভূঁইয়া, সাবেক পিপি নবী হোসেন, সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি আক্তার হোসেন, মাসুদুর রউফ, অতিরিক্ত পিপি আবদুর রহিম সহ প্রমুখ।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও