এলপি গ্যাস কোম্পানিকে ফায়দা দিতেই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি : রাব্বি

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:২১ পিএম, ২২ মার্চ ২০১৯ শুক্রবার

এলপি গ্যাস কোম্পানিকে ফায়দা দিতেই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি : রাব্বি

তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলার আহ্বায়ক রফিউর রাব্বি বলেছেন, আইন অনুযায়ী সরকার বছরে এক বার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করতে পারে। কিন্তু গত অক্টোবরে একদফা দাম বৃদ্ধির ৫ মাস পরেই আবারও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির জন্য শুনানীর আয়োজন করেছে। গ্যাস বিতরণের ৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সুন্দরবন ব্যতিত সকল প্রতিষ্ঠান লাভবান রয়েছে। কিন্তু এরা সকলেই দাম বাড়াতে আগ্রহী। কোন কারণে দাম বাড়াতে আগ্রহী সেটির কোন উত্তর তাদের কাছে নেই।

শুক্রবার (২২ মার্চ) নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটিস্থ আলী আহমদ চুনকা পাঠাগারের সামনে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বর্তমান সরকারের মেয়াদে ৭ম বারের মত গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়ায় তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি এই প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে।

তিনি আরও বলেন, আমরা এতে করে যেটি উপলব্ধি করতে পারি সেটি হচ্ছে, সরকারের সাথে সংযুক্ত গ্যাস আমদানীকারক কোম্পানিগুলোকে ফায়দা দেয়ার জন্যেই এই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত। আর এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার সাহস সরকার এজন্য পায় কারন এই দেশে দিনের ভোট রাতে লুট করলেও কেউ কোন প্রতিবাদ করে না। যেই দেশে অন্যায়ভাবে টিকে থাকতে হলে জনসমর্থনের চাইতে র‌্যাব পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর হাতে বেশী আস্থা পাওয়া যায় সেই দেশের জনগনকে যতই অত্যাচার করা হোক তাতে কোন প্রতিবাদ আসবে না। আর একারনেই জনগনের কষ্ট বোঝার জন্য ক্ষমতাসীনদের কোন প্রয়োজন পড়ে না।

গণমাধ্যমের উদ্ধৃতি দিয়ে রফিউর রাব্বি বলেন, উচ্চআদালত থেকে তিতাস বিআরসিকে প্রশ্ন করা হয়েছে ভারত যেখানে ৬ ডলারে গ্যাস আমদানি করে সেখানে একই গ্যাস কেন ১০ ডলারে বাংলাদেশে আমদানি করা হয়। এই উত্তর বিআরসি থেকে শুরু করে অ্যাটর্নি জেনারেল কেউই দিতে পারেনি। কারণ তারা বলতে পারে না যে বাকি টাকা লুটের জন্য বরাদ্দ করে রাখা হয়। আমরা এই অযৌক্তিক গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবো এবং অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না করা হলে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলে দাম বৃদ্ধি ঠেকাতে বাধ্য করা হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নাগরিক কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট এবি সিদ্দিক বলেন, গ্যাস বৃদ্ধির গণশুনানী হচ্ছে গণশয়তানি। জনগনের চোখে ধুলো দিয়ে বোকা বানানোর একটি প্রচেষ্টা মাত্র। সারাদেশে অবৈধ গ্যাস সংযোগে ভরে গেছে সেদিকে কোন খবর নেই সরকারের। একের পর এক অবৈধ সংযোগ দিয়ে মাসোয়ারা নিচ্ছে গ্যাস কর্মকর্তারা। অপরদিকে রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকারী কোষাগার। এসব বন্ধের ক্ষেত্রে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই সরকারের। অথচ ৬টির ভেতর ৫টি প্রতিষ্ঠান লাভের মুখে থেকেও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত পুরোপুরি অযৌক্তিক এবং আমরা এই সিদ্ধান্তকে প্রত্যাখ্যান করি।

সমাবেশে সংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েলের সঞ্চালনা ও জাতীয় কমিটির জেলা আহ্বায়ক রফিউর রাব্বির সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় নেতা মন্টু ঘোষ, শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি আবু নাইম খান বিপ্ল¬ব, ন্যাপ জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আওলাদ হোসেন ও শ্রমিক সংহতির আহ্বায়ক অঞ্জন দাস। সমাবেশে শেষে একটি প্রতিবাদ মিছিল শহরের গুরুত্বপূর্ন শহর প্রদক্ষিণ করে।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও