খুনীদের বিচার চাইলে সন্ত্রাসী পৃষ্ঠপোষকেরা আমাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ায়

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৫২ পিএম, ৮ জুলাই ২০১৯ সোমবার

খুনীদের বিচার চাইলে সন্ত্রাসী পৃষ্ঠপোষকেরা আমাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ায়

সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহবায়ক রফিউর রাব্বী বলেছেন, এই শহরে খুনের আসামীদের খুন করতে, মাদক ব্যবসা করতে লজ্জা হয় না। কিন্তু আমরা প্রকাশ্যে তাদের খুনী, মাদক ব্যবসায়ী, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী বললে তাদের খুব লজ্জা লাগে। এরা আবার সংসদে দাঁড়িয়ে বলে চাঁদাবাজদের হাত কত লম্বা জানতে চাই। আমরা যখন খুনীদের বিচার চাই তখন এসকল সন্ত্রাসীদের পৃষ্ঠপোষক ও সুবিধাভোগীরা আমাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ায়। খুনী পরিবারের টাকা পয়সায় যে সকল মিডিয়া চলে সেখানেও চলে ওসমানদের বন্দনা। এদের কাজই মিডিয়ার আড়ালে জুয়ার ব্যবসা, মাদক চোরাচালান আর ওসমান বিরোধীদের চরিত্র হনন করা।

সোমবার (৮ জুলাই) শহরের শহীদ মিনারে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের ত্বকী হত্যার বিচারের দাবীতে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান বক্তার বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, প্রতিমাসের ৮ তারিখ তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচারের দাবিতে আমরা কর্মসূচী পালন করে আসছি। হত্যার বিচারের দাবীতে নারায়ণগঞ্জ ঢাকা ছাড়িয়ে দেশের বাইরেও কর্মসূচী পালিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, চঞ্চল মিঠু আশিক ভুলু কারো হত্যারই বিচার নারায়ণগঞ্জবাসী দেখতে পারেনি। বিচার চাইতে চাইতে ২ বছর আগে মিঠুর বাবা মৃত্যু বরণ করেছে। আদালতের কঠোরতায় ৭ খুনের বিচার হলেও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে ত্বকী হত্যার বিচার বন্ধ রয়েছে।

রাব্বী বলেন, ‘আজ দেশে সুপ্রিমকোর্ট স্বপ্রনোদিত হয়ে আসামীদের ২৪ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ দিলে প্রধানমন্ত্রী উষ্মা প্রকাশ করে বলেন সব যদি আদালত করে তাহলে আমরা আছি কেন? তার মানে বোঝা যায় তিনি আদালতের নির্দেশনায় ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। ফলে তিনি সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে আন্তরিক ছিলেন তা বলা যায় না। যেহেতু আপনার নির্দেশেই সকল বিচার হয় সুতরাং আপনিই না হয় নির্দেশ দিয়ে এই বিচারটি করুন। আমরা শুধু নূর হোসেনের বিচার চাই না, আমরা এর সাথে সাথে যারা নূর হোসেন তৈরী করে তাদেরও বিচার দাবী করছি।’

সমাবেশে সাংস্কৃতিক জোটের সহ সভাপতি মনি সুপান্তের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জোটের উপদেষ্টা ভবানী শংকর রায়, গনসংহতি আন্দোলনের নির্বাহী সমন্বয়ক অঞ্জন দাশ, সমমনার সভাপতি দুলাল সাহা, ন্যাপ জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আওলাদ হোসেন, বাসদ সমন্বয়ক নিখিল দাস, খেলাঘরের সভাপতি রথীন চক্রবর্তী, সিপিবি জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম সহ প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তব্য শেষে জাতীয় সংগীত এর মাধ্যমে সমাবেশ সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য ২০১৩ সালের ৬মার্চ বিকেলে ত্বকী শহরের শায়েস্তা খান সড়কের বাসা থেকে বেরিয়ে রাতেও বাসায় ফিরে আসেনি। পরে ৮ মার্চ সকালে শহরের চারারগোপে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে ত্বকীর লাশ পাওয়া যায়। কিন্তু এখনো মামলার কোন বিচার তো দূরের কথা চার্জশীটও হয়নি।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও

আরো খবর