ফের দখলে যাচ্ছে মীর জুমলা সড়ক

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৮ পিএম, ১২ জুলাই ২০১৯ শুক্রবার

ফাইল ফটো
ফাইল ফটো

অনেকদিন ধরেই অবৈধ দখলদার দখলে ছিল শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক ও সিরাজউদ্দৌলা সড়কের মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী শহরের মীর জুমলা সড়ক। কোনভাবেই অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে এই সড়কটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছিল না। তবে এই অসাধ্য কাজকে সম্ভব করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ। তার নির্দেশনায় নারায়ণগঞ্জ সদর থানা পুলিশের অভিযানে অবৈধ দখলমুক্ত হয় মীর জুমলা সড়ক।

অভিযানের পর প্রায় ২ সপ্তাহ খানেক সময় ভালভাবে চললেও ফের অবৈধ দখলদারদের দখলে চলে যাচ্ছে মীর জুমলা সড়কটি। দোকানীরা বিভিন্ন পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসতে শুরু করেছেন। আর তাদের কারণে এই সড়ক দিয়ে বড় কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারছেন না। সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে এই চিত্র দেখা গেছে।

জানা যায়, শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক ও সিরাজউদ্দৌলা সড়কের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করেছে এ মীর জুমলা সড়ক। শহরের দিগুবাবুর বাজারের ভেতর দিয়ে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ডের অবস্থিত মীর জুমলা সড়ক। আর এই সড়কটি দখল করে পিয়াজ, মরিচ, মাছ, মুরগী, ডিম, গরুর গোশত, তরিতরকারি, কাঁচামাল, মুদিসহ বিভিন্ন ধরনের পন্য বিক্রেতারা। যেন দেখার যেন কেউ ছিল না।

অভিযোগ ছিল, একটি পক্ষ দোকানিদের জন্য চকি বসিয়ে মোটা অংকের চাঁদাবাজী করতেন। আর এই বিষয়টি আসে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের। নজরে আসার সাথে সাথেই অ্যাকশনে যান তিনি। হারুন অর রশিদের নির্দেশনায় গত ২৭ জুন রাত ১২টায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি কামরুল ইসলামের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এর আগেও কয়েকবার এ সড়কে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হলেও দখলমুক্ত রাখা যায়নি। তবে এবারের উচ্ছেদ অভিযানের পর অবৈধ দখলদাররা বেশ সকর্তবস্থানে ছিল হারুন অর রশিদে কড়াকড়ির কারণে। ওই উচ্ছেদ অভিযানের দুইদিন পর মীর জুমলা সড়কে প্রেস ব্রিফিংয়ে হারুন অর রশিদ বলেছিলেন, রাস্তায় আর কোন দোকান বসতে পারবে না। তার এই ঘোষণার পর প্রায় দুই সপ্তাহখানেক সময় ভালই ছিল।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ফের অবৈধ দখলদারদের দখলে চলে যাচ্ছে এই রাস্তাটি। এ সড়ক দখল করে বসেছে মাছ ও মুরগী ব্যবসায়ীরা। তাদের দেখাদেখি কয়েকজন সবজি বিক্রেতাও রাস্তাব বসে বেচাকেনা করছেন। পাশাপাশি কাঁদাও জমতে শুরু করেছে। সেই সাথে রাস্তায় সাড়িবদ্ধ করে রাখা হয়েছে ভ্যানগাড়ি। ফলে বাজারে আসা ক্রেতাদের জন্য কিছু ভোগান্তির শিকার হতে যাচ্ছে। আর এভাবে আর কয়েকদিন চলতে শহরবাসীকে ফের ভোগান্তির শিকার হতে হবে।

বাজার করতে আসা সিয়াম নামের একজন বলেন, জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের ভাল কাজের মধ্যে একটি অন্যতম ভাল কাজ ছিল এই রাস্তাটি অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে মুক্ত করা। কিন্তু রাস্তাটি ফের দখলে নিতে শুরু করেছে অবৈধ দখলদাররা। আর তাদের কারণে আমাদেরকে যাতায়াত করতে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও