টাকা না দেওয়াতেই মাদক মামলা দেওয়া হয়

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৩ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৯ বুধবার

টাকা না দেওয়াতেই মাদক মামলা দেওয়া হয়

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের কঠোর সমালোচনা করে দেওয়া বক্তব্যকে এখন অস্বীকার করছেন আলোচিত সমালোচিত ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফউদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান। তাঁর দেওয়া বক্তব্যের প্রেক্ষিতে মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের কঠোর অবস্থান ও বহিস্কার দাবীর পরদিনই সরে আসলেন আগে দেওয়া বক্তব্য থেকে। তিনি এখন সে ধরনের কোন বক্তব্য দেননি সাফ জানাচ্ছেন।

তাঁর দাবী তিনি আনোয়ার হোসেন সম্পর্কে কোন বক্তব্য দেয়নি। অথচ দুইদিন আগে নিউজ নারায়ণগঞ্জের এ প্রতিবেদকের কাছে দেওয়া বক্তব্যে আনোয়ার হোসেনের কঠোর সমালোচনা করেছিলেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জের এ প্রতিবেদক নিশ্চিত করেন তিনি দুলাল প্রধানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেই বক্তব্য প্রকাশ করেছেন যা সংরক্ষিত আছে।

ওই সময়ে বক্তব্যে দুলাল প্রধান বলেন, ‘আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীদের কোন প্রকার মতামত না নিয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন নিজের মনগড়া মত সদস্য ফরম বিতরণ করছেন। জাতির জনক শেখ মজিবুর রহমানের আদর্শের সংগঠন আওয়ামীলীগ। এটা কারো পৈত্রিক সম্পত্তি না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে ‘অসুস্থতার অভিনয়’ করে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছে বিনাভোটে। ভোট যুদ্ধে বিজয়ী হলে তিনি বুঝতে পারতেন আওয়ামী লীগ একটি বৃহত্তম সংগঠন পৈত্রিক না। দেশে সদস্য সংগ্রহ চলছে। আনোয়ার হোসেন দলের গঠনতন্ত্র না মেনে ফরম দিচ্ছে নিজের মত করে। মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়ে তিনি যেগুলো করছে তা আর মানা হবে না। নিয়মের মধ্য থেকে সকল কিছু করতে হবে।’

১৯ নভেম্বর বিকেলে শহরের ২ নং রেলগেট সংলগ্ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে জরুরী সভায় মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দরা দুলাল প্রধানকে মাদক ব্যবসায়ী আখ্যায়িত করে বহিস্কার দাবী করেন।

পরদিন ২০ নভেম্বর বন্দরে সংবাদ সম্মেলনে দুলাল প্রধান বলেন, ‘‘গত পরশুদিন পত্রিকায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন সম্পর্কে আমার যে বক্তব্য প্রকাশিত হয়েছে তা আমি দেইনি। তবে একজন জনৈক সাংবাদিক আমাকে ফোনে জিজ্ঞাসা করেছিল, আপনি কি সদস্য ফরম পাননি ? এর জবাবে আমি বলেছি, হে আমি পাইনি। উনি জিজ্ঞাসা করেছেন, আসলে পান নাই কেন ? এর জবাবে আমি বলেছি, এখানে মহানগরের নেতা আছে লোকমান ভাই, উনার সাথে আমার ওয়ার্ডের নেতাকর্মীকে নিয়ে জামান ভাই প্রশ্ন করা হয়েছিল, আমাদের কয়েকজনকে সদস্য ফরম কেন দিবেন না। উনি বলছিল যে, আনোয়ার সাহেব না করছে দিতে। জাস্ট এতটুকুই আমি বলছিলাম।’’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের মহানগরের আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার ভাই অবশ্যই সম্মানিত ব্যক্তি ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ। একেএম শামীম ওসমানের রাজনীতিক গুরু। আমি আনোয়ার ভাই সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করবো কোন প্রশ্নই আসেনা। বিগত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগে আমরা যখন আনোয়ার ভাইয়ের জন্য কেন্দ্রে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলাম তখন ৯টি ওয়ার্ডে যে কমিটি হয়েছিল সে কমিটির সভাপতি ছিল জামান ভাই এবং আমি ছিলাম সাধারণ সম্পাদক। ওই প্রস্তাবে আমি নিজেও সিগনেচার (স্বাক্ষর) করছি। কারণ তিনি একজন আদর্শবান রাজনীতিবিদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি করে।’

দুলাল আরো বলেন, ‘আসলে এখানে আনোয়ার ভাই যে কথাগুলো বলেছে এ কথা গুলো সম্পূর্ণ বানোয়াট। আমি এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘আমাকে মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। আপনার জানেন বিগত ঈদের আগে আমাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন আমাকে ধরে নিয়েছিল। সেখানে যদি সিসি ক্যামেরা থাকতো তাহলে আমি ভালভাবে প্রমাণ করতে পারতাম। কারণ কিছুদিন পূর্বে একটি সিসি ক্যামেরার ফুটেজে আপনারা দেখেছেন মিথ্যা মামলার হিড়িক পড়েছে নারায়ণগঞ্জে। ওই তুলনায় একটা সাধারণ মামলা ছিল। আপনারা অবগত আছেন জনৈক প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা বিশাল অংকের একটি টাকা দাবি করেছিল বিদায় আমাকে এ মামলা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি আমি বলতে চাই, আমাকে যে কোন জায়গায় মাদক ব্যবসায়ের সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পান আমাকে যে শাস্তি দিবেন আমি মাথা পেতে নিব।’

এদিকে সদস্য ফরম বিতরণ কমিটির নেতৃবৃন্দ জানান, আমারা জাতীয় পার্টি থেকে অনুপ্রবেশকারী নব্য স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা দুলাল প্রধানের দৃষ্টতাপূর্ণ ও অসাংগঠনিক বক্তব্যে হতবাক ও বিষ্মিত। কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্তে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা কমিটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মতামত সাপেক্ষে ২৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ গঠনকল্পে ফরম বিতরণে জন্য একটি ৮ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করেন।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর নির্দেশ ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নকল্পে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী, অনুপ্রবেশকারী, ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, জঙ্গী ও স্বাধীনতা বিরোধী ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত ও স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসী ব্যক্তিদের নিয়ে সদস্য ফরম বিতরণ করার সংকল্প ব্যক্ত করেন আনোয়ার হোসেন ও খোকন সাহা।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ২৩ নং ওয়ার্ড সদস্য ফরম বিরতণ কমিটি জাতীয় পার্টি থেকে অনুপ্রবেশকারী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা চিহ্নিত ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী দুলাল প্রধানকে বাদ দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর নির্দেশনা পালন করা মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য বলে আমরা বিশ্বাস করি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এরুপ নির্দেশনার কারণেই কথিত ও চিহ্নিত অনুপ্রবেশকারী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মাদক ব্যবসায়ী দুলাল প্রধান বাদ পড়ায় মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হেসেনের প্রতি যেভাবে বিভিন্ন ধরনের তীর্যক ও সংগঠন বিরোধী বক্তব্য প্রদান করছেন তা পক্ষান্তরে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার ওপরই বর্তায় বলে আমরা মনে করি।

আনোয়ার হোসেন সেই ছাত্রাবস্থা থেকেই তার ত্যাগ, পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও সততা দিয়ে নিজেকে একজন বঙ্গবন্ধুর পরীক্ষিত সৈনিক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তার বিগত দিনের রাজনৈতিক কর্মকান্ডের মূল্যায়ন স্বরুপ আনোয়ার হোসেনকে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন দেন। বর্তমানে আনোয়ার হোসেন পবিত্র ওমরা হজ পালনে পবিত্র নগরী মক্কা ও মদীনা শরীফে রয়েছেন। তিনি পবিত্র ওমরা হজ পালন শেষে দেশে ফিরে আসার পর ওই কথিত চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী চাঁদাবাজ বিতর্কিত অনুপ্রবেশকারী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা দুলাল প্রধানের বিরুদ্ধে সংগঠন বিরোধী এহেন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ ও বক্তব্য প্রদানের জন্য স্বেচ্ছাসেবকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি, সর্বোপরি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ শীর্ষ মহলে তার বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকান্ড ও বিতর্কিত ভূমিকার জন্য সংগঠন থেকে শাস্তিমূলক/ বহিষ্কারের সুপারিশ করা হবে।

বহিষ্কারের দাবিতে বিবৃতি প্রদানকারীদের মধ্যে স্বাক্ষর করেন ২৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য ফরম বিতরণ কমিটির সদস্য ও আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ুন কবির মৃধা, মো. সামছুজ্জামান, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. মোকাদ্দেছ আলী আঙ্গুর, মো. মশিউর রহমান সুজু, মো. আতিকুর রহমান মাসুম সহ প্রমুখ।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও