১ কার্তিক ১৪২৫, বুধবার ১৭ অক্টোবর ২০১৮ , ৫:৫৫ পূর্বাহ্ণ

UMo

৪ মাসেও নবীগঞ্জের ওয়াসার পানি সংকট কাটেনি, আদায় হচ্ছে বিল


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩৩ পিএম, ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার


ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

দীর্ঘ ৪ মাস অতিক্রম হলেও নারায়ণগঞ্জের বন্দরের নবীগঞ্জবাসীর পানি সংকট কিছুতেই কাটছেনা। নবীগঞ্জ ওয়াসার পাম্প নষ্ট হয়ে বিকল হওয়ার কারণে পুনরায় নতুন পাম্প স্থাপনের কাজ শুরু করে ওয়াসা অফিস। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই পাম্প স্থাপনের কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় পানির হাহাকারে ধুকে ধুকে জীবন যাবন করছে এলাকাবাসী।

এদিকে ওয়াসার পাম্প স্থাপনে ধীরগতি সহ খামখেয়ালিপনার নানা অভিযোগ উঠেছে। তবে ওয়াসার পানি দুর্ভোগ স্বত্ত্বেও ওয়াসার পানির বিল দিতে হচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন নবীগঞ্জবাসী।

প্রসঙ্গত গত বছরের সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে নবীগঞ্জ এলাকার ওয়াসার পাম্প নষ্ট হয়ে বিকল হয়ে পড়ে। এতে করে নবীগঞ্জ এলাকার হাজারো মানুষ পানি সংকটে দুর্ভোগ পোহাতে থাকে। তবে এর কিছুদিন পরে ওয়াসার গাড়ি দিয়ে নবীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার মোড়ে অস্থায়ীভাবে পানি সরবরাহ করা হয়।

অন্যদিকে ওয়াসার পানির পাম্প মেশিন নতুন করে স্থাপনের কাজ শুরু হয়। কিন্তু এভাবে একমাস দুই মাস করতে করতে দীর্ঘ ৪ মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত ওয়সার পাম্প সংস্করণের কাজ শেষ করতে পারেনি বলে জানাগেছে।

ওয়াসার পানির চাহিদা মেটাতে নবীগঞ্জ এলকায় ওয়াসার পানির পাম্প থেকে পানি সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কিন্তু গত ৪মাস আগে ওয়াসার পানির পাম্প নষ্ট হয়ে গেলে এলাকাবাসীর দুর্ভোগের অন্ত থাকেনা। এর পর উপর মহলে চাপে ওয়াসা অফিস গাড়ি দিয়ে অস্থায়ীভাবে পানি সরবরাহ করলেও তা অপ্রতুল বলে সেই পানির সমস্যা থেকেই যায়।

জানা গেছে, প্রত্যেক মহল্লার মোড়ে মোড়ে একটি ১৫০০ লিটারের ট্যাংক ভরে দিয়ে যায়। আর সেই পানি সংগ্রহ করতে এলাকাবাসীকে তীর্থের কাকের মত সকল থেকে দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে হয়। এসময় এলাকাবাসী হাড়ি, পাতিল, বল বালতি নিয়ে পানি সংগ্রহ করে থাকে। তবে যেটুকু পানি গোটা মহল্লার জন্য বরাদ্দ করা হয় সেটুকু পানি একটি পরিবারের জন্য যথেষ্ট। তাই এই স্বল্প পানি দিয়ে এলাকাবাসীর চাহিদা কোনভাবেই পূরণ হতো না। এ নিয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগের অন্ত নেই।

নবীগঞ্জ এলাকার ইসলামবাগ, উত্তরপাড়া, মোল্লাবাড়ি এলাকায় মোড়ে প্রতিদিন দুপুরে ১৫০০ লিটারের একটি ট্যাংক পানি দিয়ে পূর্ণ করে দেয়া হয় ওয়াসার পানির গাড়ি দিয়ে। এভাবেই গত ৪ মাস যাবত নবীগঞ্জবাসী পানি অস্থায়ীভাবে পানির সেবা পেয়ে আসছে। অথচ প্রতিটি পরিবারে পানির চাহিদা প্রায় এই ট্যাংকের সমান। তাহলে একটি পরিবারে পানি দিয়ে পুরো এলাকা কি করে চলবে এই প্রশ্ন সবার মাথায় ঘুরপাক খেলেও সমাধান কিন্তু নেই। যেকারণে সবাই বিকল্প পথ হিসেবে বিভিন্ন উৎস থেকে পানি সংগ্রহ করে আসছে। পানি সংকটের কারণে এলাকাবাসী পানির বিভিন্ন উৎস থেকে অনেক দিন আগে থেকেই পানি সংগ্রহ করে আসছে। কেউ কেউ দূর-দূরান্ত থেকে নলকূপ (চাপকল) ও গভীর নলকূপ থেকে পানি সংগ্রহ করছে। কেউ আবার নদী থেকে পানি সংগ্রহ করছে। এভাবেই দিনের পর দিন পানি সংগ্রহ করে আসছে এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী জানায়, ‘বিগত ৪ মাস ধরে পানি সংকটে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। নবীগঞ্জ ওয়াসার পানির পাম্প নতুন করে স্থাপনের কাজ গত ২-৩ মাস ধরে করে চলেছে। ২ মাসের মধ্যে নতুন পাম্প বসানোর কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত কাজ শেষ হয়নি।

ওয়াসার পাম্পের যেটুকু কাজ করেছে তা আবার পুনরায় নষ্ট হয়ে গেছে। এভাবে নানা টলবাহানা করে তারা কালক্ষেপন করছে। নবীগঞ্জবাসীর দুর্ভোগের কথা চিন্তা না করেই তারা শুধু কাজে খামখেয়ালিপানা করে চলেছে। এতে তাদের কোন সমস্যা না হলেও হাজারো মানুষকে পানি সমস্যায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এদিকে ওয়াসার পানির বিল আদায়ের ব্যাপারে এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, ‘৪ মাস ধরে ওয়াসার পানি সংকটে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ওয়াসার পানির পাম্প বিকল হয়ে স্বাভাবিক সরবরাহ বন্ধ হলেও ওয়াসা অফিস পানির বিল আদায় করছে। প্রত্যেক মাসের পানির বিল আদায় করা হচ্ছে। তাহলে কি আমরা টাকা দিয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছি। জনগণকে দুর্ভোগ দেয়ার জন্য টাকা আদায় করছে ওয়াসা অফিস। আর যেটুকু পানি গাড়ি দিয়ে সরবরাহ করে তা পারিমাণে খুবই অল্প। তাই এলাকাবাসীকে এভাবে নাজেহাল করার কোন মানেই হয়না।’

নবীগঞ্জ অঞ্চলের দায়িত্বরত উপ সহকারী প্রকৌশলী ফজিলা খাতুন এ ব্যাপারে তাৎক্ষনিক কথা বলতে রাজী হয় না।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শহরের বাইরে -এর সর্বশেষ