১১ ফাল্গুন ১৪২৪, শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ , ৬:২৬ পূর্বাহ্ণ

primer_vocational_sm

বাড়িতে ঢুকে শিক্ষিকাকে নির্যাতন : জাপা নেতা মজিদ খন্দকার গ্রেফতার


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:০৯ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সোমবার | আপডেট: ১২:০৯ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সোমবার


বাড়িতে ঢুকে শিক্ষিকাকে নির্যাতন : জাপা নেতা মজিদ খন্দকার গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় একজন নারী শিক্ষিকার বাড়িতে ঢুকে মারধর ও জুতাপেটা সহ লাঞ্ছনার অভিযোগে জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব আবদুল মজিদ খন্দকার গ্রেফতার হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার শাহীনূর পারভীনের বাবা সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে ১২ ফেব্রুয়ারি সোমবার দুপুরে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়েরের পর সন্ধ্যায় মজিদ খন্দকারকে ফতুল্লার হাজীগঞ্জের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে রোববার রাতে শাহীনূর পারভীনকে শহরের খানপুরে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখান থেকে সোমবার সকালে তাকে সদর উপজেলার হাজীগঞ্জের ভাড়া বাড়িতে নেওয়া হয়। সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক সার্কেল) শরফুদ্দিন ওই শিক্ষিকার বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলেন।

নির্মম এ ঘটনার শিকার হাজীগঞ্জ এলাকার প্যাসিফিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষিকা শাহীনূর পারভীন শানু। এক যুগেরও বেশি সময় ধরে এই স্কুলে শিক্ষকতা করছেন। স্থানীয় আইনজীবি ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার মো: নুরুল হুদার বাড়িতে পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন তিনি। তার দুই ছেলে মেয়ে।

লাঞ্ছিত শিক্ষিকা শাহীনূর পারভীন শাহীনূর পারভীন শানু জানান, একই এলাকার স্থানীয় প্রভাবশালী জাতীয় পার্টি নেতা ও আইনজীবী আবদুল মজিদ খন্দকার রোববার রাত ১০টার দিকে স্ত্রীকে সাথে নিয়ে তার বাসায় এসে তাদের নাতনিকে বাসায় গিয়ে পড়ানোর প্রস্তাব দেন। দীর্ঘ ছয় মাস যাবত কিডনীজনিত রোগে অসুস্থতার কারনে তাদের এ প্রস্তাব তিনি ফিরিয়ে দেন শানু। আর এ অপরাধে ওই আইনজীবি ও তার স্ত্রী প্রথমে তাকে মৌখিকভাবে হুমকি দেন এবং এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে নাবালক ছেলে মেয়ে ও স্বজনদের সামনেই তাকে মারধর করতে থাকেন। গলায় চাপ দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। পায়ের জুতা খুলে তাকে জুতাপেটাও করেন। এছাড়া বিদ্যুতের শকট দিয়েও হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

লাঞ্ছিত শাহীনূরের মা রাবেয়া ইসলাম জানান, তার মেয়ে শাহীনূর পারভীন শানু দীর্ঘ ছয় মাস যাবত কিডনিজনিত রোগে ভুগছেন। এ কারনে প্রাভভেট পড়ানো ছেড়ে দিয়েছেন। স্থানীয় প্রভাবশালী আইনজীবি আবদুল মজিদ খন্দকার ও তার স্ত্রী সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে বাড়িতে ঢুকে ছেলে মেয়ের সামনে কিল ঘুষি মেরেছে এবং জুতাপেটা করেছে। একজন আইনজীবি হয়ে তিনি বেআইনী ও জঘন্য কাজ করেছেন।

বাড়ির মালিক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার অ্যাডভোকেট নূরুল হুদা এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, তিনি একজন আইনজীবি তেমনি আমিও একজন আইনজীবি। আমার অনুমতি ছাড়া আমার বাড়িতে ঢুকে আমার ভাড়াটের গায়ে হাত তোলা ও জুতাপেটা করা দন্ডনীয় সামাজিক অপরাধ করেছেন। তার উচিত ছিল আগে আমার সাথে কথা বলা। কিন্তু তিনি সেটা না করে চরম অপরাধ করেছেন। একজন আইনজীবির দ্বারা এ রকম বেআইনী কাজ কওে তিনি নিন্দিত হয়েছেন। আমরা স্থানীয় পঞ্চায়েত কমিটির পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি।

জাপা নেতা অ্যাডভোকেট আবদুল মজিদ খন্দকার বলেন, অমি আর আমার স্ত্রী আমাদের নাতনিকে বাসায় পড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছি। সে পড়াবে না ভালো কথা। কিন্তু আমাদের মুখের উপর না করে দিল। আমাদের অপমান করল। তাই অপমানের বদলে তাকে অপমান করা হয়েছে।

শিক্ষিকাকে মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করলেও শিক্ষিকা শাহীনূরকে জুতাপেটা করার হুমকি দেয়ার কথা স্বীকার করেন তিনি। এ ঘটনার পর পরিবারের স্বজনরা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় নারায়ণগঞ্জ শহরের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপতালে নিয়ে যান।

হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. তাহমিনা নাজনীন জানান, শাহীনূরের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্নসহ তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার আলামত পাওয়া গেছে। হাসপাতালে আনার পর তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, সোমবার দুপুরে শাহীনূর পারভীনের বাবা সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে আবদুল মজিদ খন্দকার ও তার স্ত্রী রোকেয়া খন্দকারকে আসামী করে মামলা করেছে। সন্ধ্যায় মজিদ খন্দকারকে হাজীগঞ্জের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামীকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শহরের বাইরে -এর সর্বশেষ