সেই মঈন আজিজ কখনো আইএস কখনো সেনাবাহিনীর পোশাকে অপপ্রচার

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩২ পিএম, ২৯ মার্চ ২০১৮ বৃহস্পতিবার



সেই মঈন আজিজ কখনো আইএস কখনো সেনাবাহিনীর পোশাকে অপপ্রচার

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা পরিচয়দানকারী ফেসবুকে সরকারী বিরোধী অপপ্রচারসহ রাষ্ট্র ও ব্যক্তির বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেয়া ইসলামী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) সদস্য রূপধারন গ্রেপ্তারকৃত সেই মঈন আজিজকে (৪৭) নিজেকে কখনো ইসলামী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক ষ্টেট (আইএস) সদস্য ও কখনো সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা এবং কখনো সরকারী অফিসার হিসাবে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে প্রতারনামূলক ভাবে মানুষকে হুমকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতো।

মঈন আজিজকে গ্রেপ্তারের সময় তার হেফাজতে থাকা একটি সচল ওয়াকিটকি হেন্ডসেট, বিভিন্ন কোম্পানীর ৮৫টি মোবাইল সিম, ৪৪টি মোবাইল সেট, ৬টি রাউটার, ৩টি কম্পিটারের হার্ডডিস্ক, ১৩টি মোমোরি কার্ডসহ একাধিক নামে ফেইসবুক আইডি জব্ধ করেছে ডিবি পুলিশ।

এদিকে মঈন আজিজ নিজেকে কখনো ইসলামী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক ষ্টেট (আইএস) সদস্য ও কখনো সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা এবং কখনো সরকারী অফিসার হিসাবে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে প্রতারনামূলক ভাবে মানুষকে হুমকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতো। এছাড়াও তিনি তার নিজ বাসায় ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য ব্যবহ্নত বিভিন্ন রাউটারে আপত্তিকর (প্রধানমন্ত্রীকে খারাপ ভাষা, ইসলামিক ষ্টেট অব বাংলাদেশ, পুলিশকে নিয়ে গালিসহ নিজের ফেইসবুকে উস্তানীমূলক স্ট্যাটাস দেয়। এছাড়াও আইএস রূপধারন করাসহ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তার পোষাক পড়ে নিজস্ব ছবি দিয়ে ফেইসবুকে পোষ্ট  করে। একাধিক সিম ব্যবহার সহ ওয়াটকি হেন্ডসেট ব্যবহার করে অবৈধ ভাবে বাংলাদেশ পুলিশের ভয়েচ হ্যাক করে দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্র ও ব্যক্তির মানহানিসহ ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন এবং বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে উস্কানীমূলক প্রচারনার বিষয়ে স্বীকার করেছে মঈন আজিজ। তিনি কখনো সেনাবাহিনী ও কখনো আইএস সদস্য রূপধারন করে ফেইসবুকে ছবি পোষ্ট করে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশ শাখা ডিবি’র পরিদর্শক রাশেদ মোবারক জানান, মঈন আজিজের বিরুদ্ধে নানা অপকর্মের অভিযোগে ১৬মার্চ গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তিনি নিজেকে মানসিক রোগী হিসাবে পরিচয় দেয়ার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তার পরিবার মঈন আজিজ মানসিক রোগী তার কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। এসময় তাকে ৫৪ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। পরে মঈন নানা অপরাধ কর্মকান্ডের কথা স্বীকার করায় তার বাড়ি হতে বিভিন্ন সরাঞ্জাম জব্ধ করা হয়। আর তথ্য প্রযুক্তি আইনে ফতুল্লা থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহজালাল জানান, নানা অপরাধ কর্মকান্ডের অভিযোগে ১৬ মার্চ বিকেলে ডিবি পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরের জামতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মঈন আজিজকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে তথ্য প্রমানি পাওয়ার ফলে ডিবি পুলিশ বাদী হয়ে তথ্য প্রযুক্তি আইনে ৫৭ ধারা মামলা দায়ের করা হয়। আর সেই মঈন আজিজকে ১০ রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মঈন আজিজ যেসকল কর্মকান্ডে লিপ্ত হয়েছে প্রাথমিক ভাবে তা প্রমাণ পাওয়া যায়। এর উদ্দেশ্য ও রহস্য খুঁজে বের করতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

প্রসঙ্গত গত ১৬ মার্চ বিকেলে শহরের জামতলা হতে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা পরিচয়দানকারী ফেইসবুকে সরকারী বিরোধী অপপ্রচারসহ রাষ্ট্র ও ব্যক্তির বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেয়া ইসলামী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক ষ্টেট (আইএস) সদস্য রূপধারনের অভিযোগে মঈন আজিজকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। ২৫ মার্চ ডিবি পুলিশের এসআই মনিরুজ্জামান-২ বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করেছে। ফেসবুকে একাধিক ফেক আইডি খুলে সরকার বিরোধী ও পুলিশ বিরোধী উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস দেয়। তাছাড়া ফেসবুকে সেনাবাহিনীর পোশাক পড়ে, মুখে ও মাথায় কাপড় বেধে হাতে ওয়াকিটকি নিয়ে ছবি তুলে পোস্ট করেছে মঈন আজিজ। এছাড়া মঈন আজিজ পাঞ্জাবী পড়ে মুখে কাপড় বেধে হাতে ধারালো ছুরি মুখের কাছে নিয়ে ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট করেছে।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও