৭ শ্রাবণ ১৪২৫, সোমবার ২৩ জুলাই ২০১৮ , ৬:২৯ পূর্বাহ্ণ

আড়াইহাজারে ঈদকে সামনে রেখে মাদক ঢুকছে অবাধে


আড়াইহাজার করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:০৯ পিএম, ১৪ জুন ২০১৮ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৭:৪৬ পিএম, ১৪ জুন ২০১৮ বৃহস্পতিবার


ছবি প্রতিকী

ছবি প্রতিকী

প্রতিবছরই ঈদের প্রাক্কালে এমনটা ঘটে। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে অবাধে মাদক দ্রব্য ঢোকে আড়াইহাজার উপজেলায়। এবারও ঢুকছে। বিশেষ অভিযান চললেও বড় ধরনের কোন মাদকের চালান বা বিক্রিতাদের গ্রেফতার না করায় আগের মতোই চলছে মাদক।

জানা গেছে, দেশের দ্বিতীয় মাদক পাচারের নিরাপদ রুট হচ্ছে এখন ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক। ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে প্রতিদিন এ রুটে মাদক আসছে উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে। আড়াইহাজার উপজেলা থেকে নদীপথে ও সড়ক পথে বিপুল পরিমান মাদক চলে যাচ্ছে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের আশপাশ এলাকায়। মাদক চোরাচালানীদের নানা কৌশলের সাথে পুলিশ পেরে উঠছেনা কোন ভাবেই। অভিনব ও নতুন নতুন কায়দায় মাদকপাচারকারীরা এখন বেপরোয়া। উদ্বেগজনক তথ্য হচ্ছে পুলিশের সোর্সরাই মূলত: মাদক পাচারকারীদের সোর্স। বাহক আলাদা। সোর্সরা প্রতিনিয়িত বিভিন্ন চেকপোস্টে ও টহল পুলিশের গতিবিধি লক্ষ্য রেখে মাদক চোরাকারবারিদের সতর্ক করে দেয়। অভিযোগ রয়েছে, কতিপয় পুলিশ সদস্যই মাদক বিক্রেতাদের অভিযানের খবর ফাসঁ  করে দেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ভারতের সীমান্ত পেরিয়ে ব্রাহ্মনবাড়িয়া ও কুমিলা জেলার বিভিন্ন এলাকা হয়ে সবচেয়ে বেশি মাদক ঢুকে। সেখান থেকে বিভিন্ন যানবাহন ছাড়াও নৌযান যোগে আড়াইহাজার উপজেলার বিশনন্দী ও গোপালদী বাজারে মাদকদ্রব্য আসে। পরবর্তীতে বাস কিংবা সিএনজি চালিত অটোরিক্সা যোগে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় মাদক নিয়ে থাকে। গোপালদী তদন্তের কেন্দ্রের পুলিশ বিশনন্দী ফেরিঘাটে চেকপোস্ট বসিয়েছে। ফলে ফেরিঘাটের পরিবর্তে মাদকপাচারকারীরা নদী তীরবর্তী অন্যগ্রাম দিয়ে মাদকের চালান পাচার করে। ফেরিওয়ালার ছদ্মবেশে তারা এই অপকর্মটি করে থাকে। গ্রামের ভেতর দিয়ে কখনও লেইছ ফিতা, কখনও সিলভারের হাড়িপাতিল, আবার কখনও পাস্টিক ও সিরামিক্স সামগ্রি নিয়ে ফেরিওয়ালার ছদ্মবেশ ধারণ করে। এক ঢিলে দুই পাখি স্বীকার করে তারা। গ্রামের ভিতর দিয়ে অনায়াসে ভিন্নপথ দিয়ে গন্তব্যে যাওয়া যায় এবং হকার বা ফেরিওয়ালা হয়ে কিছু জিনিস বিক্রি করে বাড়তি ইনকাম হয়। সম্প্রতি এক সোর্স মারফত এমন তথ্য মিলেছে।

সূত্রমতে, রাজধানী, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, ডেমরা ও এর আশপাশ এলাকায় প্রতিদিন এ রুটে চলে যাচ্ছে হেরোইন, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, কোকেন ও গাঁজা। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ভৈরব থেকে রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা-গাউছিয়া পর্যন্ত ২০টি স্পটে সীমান্ত থেকে পাচার হয়ে আসা মাদকের চালান পৌঁছে দেয়া হয়ে থাকে।

উল্লেখযোগ্য স্পটগুলো হলো ভৈরব ইটখোলা, মর্জাল, ভেলানগর, সাহেপ্রতাব, পাঁচদোনা, মাধবদী, বাঘবাড়ি, ছনপাড়া, পাঁচরুখী, ভূলতা-গাউছিয়া, তারাব, বরাব, মুরাপাড়া, পূর্বাচল ও ডেমরা। এ সকল স্পটগুলোতে নিয়মিত পুলিশ টহল দিলেও কিছুতেই থামছে না মাদক চোরাচালানী। এদিকে ঈদকে কেন্দ্র করে উপজেলার ২ শতাধিক স্পটে মাদক ব্যবসায়ীরা সক্রিয় হয়ে  উঠেছে।

আড়াইহাজার থানার ওসি এম এ হক জানান, মাদক যাতে না ঢুকতে পারে সেই ব্যাপারে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শহরের বাইরে -এর সর্বশেষ