সিসি ক্যামেরা ফুটেজ:এক ঘণ্টার ডাকাতি হত্যায় চলে পুলিশের টহল গাড়ি!

৫ ভাদ্র ১৪২৫, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮ , ৮:২৫ অপরাহ্ণ

সিসি ক্যামেরা ফুটেজ:এক ঘণ্টার ডাকাতি হত্যায় চলে পুলিশের টহল গাড়ি!


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১০:০১ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৮ রবিবার | আপডেট: ১২:১৪ পিএম, ২৩ জুলাই ২০১৮ সোমবার


সিসি ক্যামেরা ফুটেজ:এক ঘণ্টার ডাকাতি হত্যায় চলে পুলিশের টহল গাড়ি!

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার দক্ষিণ লক্ষণখোলা বাজারে দুই নৈশ প্রহরীকে খুন করে তিনটি দোকানে ডাকাতির ঘটনার ভিডিও ফুটেজ থেকে নতুন তথ্য মিলেছে। প্রায় এক ঘণ্টার এই ভিডিও ফুটেজটি ডাকাতির শিকার ব্যাটারী দোকানগুলোর মালিকরা ছাড়াও এলাকার অনেকেই দেখেছেন। তারা এ ঘটনার জন্য পুলিশের কর্তব্যে অবহেলাকেই দায়ী করছেন। কারো কারো অভিযোগ, পুলিশ ঘটনা প্রত্যক্ষ করেও বিষয়টি এড়িয়ে গেছে।

লক্ষণখোলা বাজার এলাকায় অবস্থিত চায়না ব্যাটারী প্রস্তুতকারক কোম্পানী ডংজিং লংগার বিটির মনিটরিং কন্ট্রোল রুমটি ঢাকা-মদনগঞ্জ সড়কের একটি গলিতে। ওই কন্ট্রোল রুম থেকে আশপাশের অনেকখানি জায়গা বাইরে বসানো বেশ কয়েকটি সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হয়। পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশসহ সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এরই মধ্যে এই ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে ঘটনার তদন্ত করছেন।

ওই কন্ট্রোল রুমের সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত সেই রাতের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, শনিবার রাত ১ টা ৪৫ মিনিটের সময় দুই নৈশ প্রহরী রায়হান উদ্দিন (৬৫) ও মোতালেব মিয়া (৫৫) দক্ষিণ লক্ষণখোলা বাসস্ট্যান্ডে রাস্তায় একজন বসে ও একজন দাঁড়িয়ে গল্প করছিলেন। রাত ২টা ৭ মিনিটে মোতালেব মিয়া সেখান থেকে চলে গেলে রায়হানউদ্দিন চেয়ারে একা বসেছিলেন। রাত ২টা ৭মিনিট ৪০ সেকেন্ডে ৫ থেকে ৬ জন যুবক এসে সেখানে অবস্থান নেয়। তারা মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে রায়হান উদ্দিনের কাছাকাছি গেলে রায়হানউদ্দিন চেয়ার থেকে দাঁড়িয়ে যান। মাত্র কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে ওই যুবকেরা আচমকা তার উপর হামলা চালায়। নৈশ প্রহরী রায়হানউদ্দিনকে মারধর করতে করতে রাস্তার আড়ালে নিয়ে যায়। এরপর যুবকদের কয়েকজনকে ওই স্থানে ঘুরাফেরা করতে দেখা যায়। ২ টা ১০ মিনিট ৫০ সেকেন্ডের সময় একটি ৩ টনের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন পিকআপ ভ্যান বাজারের ব্যাটারীর দোকানগুলোর সামনে যায়। ২ টা ৫৬ মিনিট ৪ সেকেন্ডের সময় ডাকাতি করা ব্যাটারী বোঝাই পিকআপ ভ্যানটি প্রথমে নবীগঞ্জের দিকে যায়। কয়েক মিনিট পর ফিরে এসে উল্টো দিকে মদনপুরের দিকে চলে যায়। প্রায় এক ঘন্টা ধরে এই ডাকাতির ঘটনার সময় অন্তত চার থেকে পাঁচ বার টহল পুলিশের গাড়ি যাওয়া আসা করতে দেখা যায়। পুলিশের গাড়ির সামনেই ডাকাত দলের যুবকেরা রাস্তায় ঘোরাফেরা করলেও পুলিশের নজরে আসেনি। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মনে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন এবং সন্দেহ সৃষ্টি হয়েছে।

তবে এলাকাবাসী এসব অভিযোগ অস্বীকার করে মামলার তদন্তকারী সংস্থা জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূরে আলম জানান, যেহেতু সড়কের আশেপাশে বেশ কয়েকটি শিল্প কারখানা আছে তাই মালামাল লোড আনলোডের বিষয়টি টহল পুলিশ হয়তো আমলে নেয়নি। ব্যস্ততম ওই সড়কটিতে গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন ভারী যানবাহন চলাচল করে থাকে। তাছাড়া কেউ পুলিশকে এ ব্যাপারে তথ্য দিলে পুলিশ হয়তো তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতো।

তিনি বলেন, এরপরেও তদন্তে যদি পুলিশ প্রশাসনের কেউ এ ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমান পাওয়া যায় তাহলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জের মহানগরের বন্দরের ২৫ নং ওয়ার্ডে লক্ষণখোলা মাদ্রাসা মার্কেটের দুই নৈশ প্রহরী রায়হান মিয়া ও মোতালেব হোসেনকে খুনের পর তিনটি দোকান থেকে প্রায় ২৭ লাখ টাকার মালামাল লুটের ঘটনায় শনিবার রাতেই জড়িত সন্দেহে ৩ জনকে আটক করেছে বন্দর থানা পুলিশ। এ ঘটনায় শনিবার সততা ব্যাটারী মেলার মালিক আমির হোসেন বাদি হয়ে হত্যা ও ডাকাতির অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেছেন। পরে রোববার মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশ সুপারের নির্দেশে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের কাছে মামলাটি হস্তান্তর করা হয়েছে। বন্দর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারুন অর রশিদ মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আটককৃতরা হলো বন্দরের দক্ষিণ লক্ষণখোলা এলাকার মৃত সেলিম সাউদের ছেলে অপু সাউদ (২৫), বন্দরের বঙ্গশাসন এলাকার মৃত আহাম্মদ আলীর ছেলে জাহের মিয়া (২৯) ও বন্দরের সোনাচোরা এলাকার মৃত আক্তার হোসেনের ছেলে আলতাফ (২৮)।

জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক গিয়াসউদ্দিন জানান, তারা ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছেন। হত্যা ও ডাকাতির সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য ২১ জুলাই ভোরে বন্দরের লক্ষণখোলা মাদ্রাসা মার্কেটে দুই নৈশপ্রহরীকে হত্যার পরে মার্কেটের তিনটি দোকান বিসমিল্লাহ ব্যাটারি স্টোর, সততা মেলা ব্যাটারি ও সততা ব্যাটারি সার্ভিসিং সেন্টার দোকান হতে লুট করা হয়েছিল প্রায় ২৭ লাখ টাকার মালামাল। নিহত নৈশপ্রহরী রায়হান মিয়া (৬৫) বন্দর উপজেলার উত্তর লক্ষনখোলার মৃত আব্দুস সামাদের ছেলে ও অপর নৈশপ্রহরী মোতালেব হোসেন (৫৫) একই উপজেলার চৌরাপাড়া এলাকার মৃত হাবিব মিয়া ছেলে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শহরের বাইরে -এর সর্বশেষ