ফতুল্লার আকবর নগরে ৮জন টেঁটাবিদ্ধ

৫ ভাদ্র ১৪২৫, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮ , ১২:৪১ অপরাহ্ণ

ফতুল্লার আকবর নগরে ৮জন টেঁটাবিদ্ধ


ফতুল্লা করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩৬ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৩:৩৬ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার


ফতুল্লার আকবর নগরে ৮জন টেঁটাবিদ্ধ

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় প্রভাবশালী দুই গ্রুপের নেতা সামেদ আলী হাজি ও রহিম হাজিকে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ লাস্ট চান্স দেয়ার ২৬ দিনের মাথায় আবারো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ব্যাপক সংঘর্ষে অন্তত ৮জন টেঁটাবিদ্ধ হয়েছে।

আহতরা হলো নবী হোসেন তার ছোট ভাই কবির হোসেন, রাজু মিয়া, ইসরাফিল হোসেন, জয়নাল আবেদীন, আসলাম মিয়া। আহতরা প্রত্যেকেই রহিম হাজীর আত্মীয়। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফতুল্লার আকবর নগর এলাকার মসজিদের সামনে এঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সামেদ আলী হাজি ও রহিম হাজির মধ্যে প্রভাব বিস্তার নিয়ে দীর্ঘ ৭ থেকে ৮ বছর যাবত সংঘর্ষের ঘটনা চলে আসছে। তাদের মধ্যে ইট ব্যবসা নিয়ে দেনা পাওনাও রয়েছে। ১৩ জুলাই রাতে ফতুল্লা মডেল থানায় ওসি শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের উভয় পক্ষকে নিয়ে আলোচনা করে এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় শেষ বারের মত সুযোগও দেয়। একই সময় হিসেব করে ব্যবসায়ীক পাওনা ২৩ লাখ টাকা রহিম হাজিকে পরিশোধ করার জন্য সামেদ আলীকে নির্দেশ দেয় ওসি। কয়েক কিস্তিতে সামেদ আলী সেই টাকা পরিশোধ করার কথা ছিল।

কিন্তু ওসির নির্দেশ অমান্য করে সামেদ আলী এখনো পর্যন্ত রহিম হাজিকে এক টাকাও দেয়নি। এনিয়ে কয়েকদিন ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে বাগবিতন্ডা চলে আসছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রহিম হাজির ভাতিজা নবী হোসেন মসজিদের সামনে বসে ছিল। এসময় সামেদ আলীর লোকজন টেটা, বল্লামসহ দেশীয় ধারালো অস্ত্র হাতে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে নবী হোসেনসহ আশপাশে থাকা অন্তত ৮জন টেটা বৃদ্ধ হয়। তাৎক্ষনিক তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার এসআই শাফিউল আলম জানান, প্রভাব বিস্তার ও দেনা পাওনা নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আহতের সংখ্যা জানা যায়নি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শহরের বাইরে -এর সর্বশেষ