কুতুবপুরে হত্যার হুমকি, আ.লীগ ও যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে জিডি

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২১ পিএম, ১০ জানুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার

কুতুবপুরে হত্যার হুমকি, আ.লীগ ও যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে জিডি

নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের একটি স্যাটেলাইট (ডিস) ব্যবসার অফিস দখলে নিতে ওই প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজারকে প্রাণনাশের হুমকী দেয়ার অভিযোগে এক আওয়ামীলীগ নেতা ও এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী (জিডি) দায়ের হয়েছে। ছেলের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বুধবার ৯ জানুয়ারী রাতে জিডিটি (নং ৪২৫) দায়ের করেছেন ওই ম্যানেজারের বাবা কুতুবপুর নয়ামাটি মুসলিমপাড়া এলাকার মোফাজ্জল হোসেন। অভিযুক্তরা হলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন হাওলাদার এবং কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক।

অভিযোগে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের নয়ামাটি মুসলিমপাড়া এলাকার শাকিল ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ক নামের একটি স্যাটেলাইট (ডিস) অফিসের ম্যানেজার পদে কর্মরত রয়েছে মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে জিয়াউল হক জিয়া। দীর্ঘদিন ধরে ওই ডিস অফিসে এসে বিভিন্ন প্রকার হুমকী ধমকী প্রদান করছে সন্ত্রাসী আলাউদ্দিন হাওলাদার এবং আব্দুল খালেক । বিভিন্ন সময়ে তাদের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা চাঁদাও দাবি করেন। আর চাঁদার টাকা না দেয়ায় ভয়ভীতিসহ প্রাণে মেরে ফেলার হুমকী ধমকীও প্রধান করেন সন্ত্রাসীরা। গত ৯ ডিসেম্বর বুধবার সকাল ১০টায় সন্ত্রাসীরা উক্ত ডিস অফিসে এসে সন্ত্রাসী আলাউদ্দিন হাওলাদার এবং আব্দুল খালেকসহ কয়েকজন সন্ত্রাসী তাদের ডিস অফিসে বন্ধ করে দেয়ার হুমকী দেয় এবং কোন ধরনের ডিস বিল উঠাতে পারবিনা বলে শাসিয়ে যায়। যদি ডিস অফিসের কোন লোক ডিসের বিল উঠাতে যায় তাহলে তাদেরকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকী প্রদান করে ওই সন্ত্রাসীরা। সেজন্য ছেলের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরী করেন এই অসহায় বাবা। তিনি ছেলের নিরাপত্তার জন্য নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার ও ফতুল্লা মডেল থানার ওসির সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। জিডিটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ফতুল্লা মডেল থানার এসআই ইলিয়াছ হোসেনকে।

উল্লেখ্য কুতুবপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার ডিস ব্যবসা দখলকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে চলা উত্তেজনাকর পরিস্থিতি অবশেষে ত্রিমুখী সংঘর্ষে রূপ নিয়েছিল। ৯ জানুয়ারী দুপুরে কুতুবপুর ইউনিয়ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন হাওলাদার এবং কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক ও তাদের অনুগামীরা চিতাশাল এলাকায় মনিরের ডিস অফিসের দখল নিতে আসলে খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হয় সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা পরিচয় দানকারী শীর্ষ সন্ত্রাসী মীর হোসেন মীরুর অনুগামী সন্ত্রাসীরা এবং কুতুবপুর ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি সেলিম রেজার অনুগামী সন্ত্রাসীরা। এসময় ত্রিমুখী সংঘর্ষ এবং ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফতুল্লা মডেল থানার এস আই দেবব্রত ও এস আই হানিফ সঙ্গীয় ফোর্সের মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করেন। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের পিপিএম। এসময় ওসি হুশিয়ারী দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। ওসি বলেন, কোন প্রকার সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজী করলে আমি ছাড় দিবোনা সে যেই হোক। এর আগে পাগলা চিতাশাল এলাকায় মনির, নূরবাগ এলাকায় শাহআলম, নয়ামাটি মুসলিমপাড়া এলাকায় জিয়াউল হক গেন্দুসহ কয়েকজন ডিস ব্যবসায়ীর অফিসে তালা লাগিয়ে দেয় সন্ত্রাসীরা।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও