এখনো বৃষ্টি হলে পানি জমে ডিএনডির অনেক এলাকাতে

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৭ পিএম, ২৫ মে ২০১৯ শনিবার

এখনো বৃষ্টি হলে পানি জমে ডিএনডির অনেক এলাকাতে

চলমান ডিএনডি সংস্কার প্রকল্পে বর্ষা মৌসুমে জলবদ্ধতা না থাকার দাবী করলেও বাস্তবে সেটি দেখা মিলছে না। বৃষ্টিতেই সড়কে পানি জমে থাকতে দেখা গেছে। নতুন নতুন ড্রেন নির্মাণ আর সড়ক উঁচু করলেও পানি সরে যাওয়ার পথ না থাকায় নতুন সড়কের উপরেই পানি জমে থাকছে।

সরজমিনে দেখা যায়, ফতুল্লার বিভিন্ন স্থানে ভারী বর্ষনে তলিয়ে গেছে বেশ কিছু সড়ক। নির্বাচনী বছরে সকল সড়কই নতুন করে সংস্কার করায় জলাবদ্ধ পানির নিচের সড়ক ভালোই রয়েছে। সড়কের পাশে নতুন ড্রেন থাকলেও পানি প্রবাহ খুবই ধীরগতি। আর এতে করে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে পথচারী সকল শ্রেনী পেশার মানুষকে। কেউ বা হাতে জুতা নিয়ে পার হচ্ছেন কেউবা জুতা ভিজিয়েই। নারী ও শিশুরা পার হতে গেলে ভিজে যাচ্ছে পরনের কাপড়।

২০১৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর ডিএনডি সংস্কার প্রকল্পের জুনিয়র কমিশন অফিসার মোছলেহ উদ্দিন সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন ১০০ ভাগের ভেতর ২৭ ভাগ কাজ তাদের সম্পন্ন। ২০২০ সালে কাজ সমাপ্ত করার কথা থাকলেও ২০১৯ সালের জুনের ভেতর জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ সম্পন্ন করবে বলে দাবী করেছিলেন তারা।

সূত্র মতে, ২০১৭ সালের ৮ ডিসেম্বর ডিএনডি প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন করা হয়। এর মেয়াদ আগামী ২০২০ সাল পর্যন্ত। ২০১৯ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পের মূল সমস্যা জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। গত ২৩ ডিসেম্বর কর্মকর্তারা লিখিত বক্তব্যে জানায়, বাংলাদেশ সরকারের নেয়া ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) সেচ প্রকল্প এলাকায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাপনার উন্নয়নের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। জলাবদ্ধতার সমস্যা স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে ডিএনডি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন (২য় পর্যায়) বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। ইতোমধ্যে প্রকল্পের ২৭ দশমিক ৫০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। প্রকল্প এলাকায় স্থানান্তর সহ বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ ও সমস্যা বিদ্যমান। তারপরেও আগামী বছর যাতে ডিএনডিবাসী জলাবদ্ধতায় না পরে সে লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

অবশ্য ফতুল্লাবাসীর কাছে জলাবদ্ধতা সহ জনদুর্ভোগ নিত্যদিনের সঙ্গী হিসেবেই পরিচিত দীর্ঘদিন ধরে। প্রকল্প পরিচালকদের আশারবানীতে কেউ কেউ ভরসা রাখলেও ১ মাসের ব্যাবধানে কতটা পরিবর্তন আনতে পারবে সেটি এখন প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে ফতুল্লার বাসিন্দাদের মাঝে। একের পর এক আশ্বাস দিলেও কাংখিত সুফল কবে নাগাদ ভোগ করবে এখানকার বাসিন্দারা সেটি এখন জানার ব্যাপার। বছরের পর বছর উন্নয়ন প্রকল্প আর কাজ চলে। স্থায়ী সমাধান আসে না কোন সমস্যার।

পবিত্র রমজান জুড়ে মাঝারি থেকে ভারী বর্ষনের ফলে পূর্বের মত পানি উঠার আশঙ্কা করছেন অনেকেই। স্থানীয়দের মতে ২ দিনের বৃষ্টিতেই যদি সড়কে পানি জমে যাওয়া শুরু করে তবে রমজানে ভারী বৃষ্টি হলে নিচু এলাকার ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশ করলে তা মরার উপর খড়ার ঘায়ে রূপান্তরিত হবে। স্থানীয়দের দীর্ঘদিনের আশার ডিএনডি সংস্কার প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়িত হয়ে কাঙ্ক্ষিত জলাবদ্ধতা সমস্যার নিরসন হোক সেটিই প্রত্যাশা সকলের।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও