বার বার গ্রেপ্তারের পরেও অদম্য বোমা লিপুর মৃত্যু গুলিতে

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৯ পিএম, ২০ জুন ২০১৯ বৃহস্পতিবার

বার বার গ্রেপ্তারের পরেও অদম্য বোমা লিপুর মৃত্যু গুলিতে

কয়েক বছর আগে বোমা সহ গ্রেপ্তারের কারণে লিপুর নামের আগে যুক্ত হয় বোমা লিপু। ফতুল্লার পিলকুনি এলাকার দুর্ধর্ষ এ যুবক মূলত মাদক ব্যবসার গডফাদার ছিলেন। ফতুল্লার বিভিন্ন এলাকাতে চলতো তার রমরমা মাদক ব্যবসা। কয়েকবার গ্রেপ্তার হলেও বন্ধ হয়নি ব্যবসা। বরং বার বার মুক্তি পেয়েই দোর্দান্ড দাপটেই চলতো মাদকের রমরমা ব্যবসা। আর এর পেছনে ছিল কতিপয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়া। তবে শেষতক তার প্রয়াণ ঘটলো গুলিতেই।

২০ জুন বৃহস্পতিবার ভোর ৩টায় ফতুল্লার দাপা বালুর মাঠ এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান ও শুটার গানের এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, লিপু একা নয় তার সহদর ডাকাত শাহীন ও রয়েছে মাদক ব্যবসায় জড়িত। দুই সহদর মিলে গড়ে তুলেছে বিশাল বড় মাদকের সেন্ডিকেট। ফতুল্লার রেল স্টেশন, জোড়া পুল, ব্যাংক কলোনী, বায়জিত বোস্তামি রোড, পিলকুনী সহ আশপাশের এলাকায় লিপু ও ডাকাত শাহীনের রয়েছে মাদকের বিস্তৃত।

উল্লেখিত এলাকাগুলোতে লিপু শাহীনের রয়েছে মাদক বিক্রি করার জন্য শতাধীক সেলস্ ম্যান। মরন নেশা ইয়াবা, হেরোইন, গাজা সহ বিভিন্ন ধরনের মাদক হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় লিপুদের স্পটে। দিন দুপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে চলে মাদক বেচা কেনা। অন্যান স্পট বন্ধ হলেও লিপুদের স্পট বন্ধ হয় না। একটি সূত্র বলছে বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করেই এই মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে লিপু ও তার ভাই ডাকাত শাহীন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা জানান লিপু ও ডাকাত শাহীন এলাকায় দীর্ঘ দিন যাবত মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে।

এর আগে দাপা ইদ্রাকপুর রেলস্টেশন এলাকায় মাদক বিক্রেতা হিসেবে পরিচিত পারভীন ওরফে নাইট পারভীনকে (৩৫) পিটিয়ে ডান পা ভেঙ্গে চাকু দিয়ে জিহ্বা কেটে ফেলে ডাকাত লিপু ওরফে বোমা লিপু ,ডাকাত শাহীন,শেফালী গংরা।

এ ঘটনায় পারভীন ফতুল্লা মডেল থানায় ৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের হয়েছিল।

এলাকাসূত্রে জানাযায়, লিপু ফতুল্লায় ডাকাত ও মাদক সম্রাট এবং সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত। তার স্ত্রী পারভিন ও ফতুল্লায় মাদক বিক্রেতা হিসেবে পরিচিত লিপুর নামে হত্যা, অস্ত্র, মাদকসহ ফতুল্লা মডেল থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। ১৫ বছর আগে ফতুল্লার পিলকুনি এলাকার মো.শহীদ জোমাদ্দারের মেয়ে পারভীনকে ভালাবাসার সম্পর্ক করে বিবাহ করে । বিয়ের পরেও তারা ও তাদের পরিবার মাদক বিক্রির সাথে জড়িত। প্রায় ২ বছর আছে দুই জনের মাদক বিক্রির টাকা দিয়ে পারভীন দেড় শতাংশ জায়গা কিনে নিজের নামে দলিল।

লিপু জেলা পুলিশের তালিকা ভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও আন্তঃ জেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য। তার অপকর্মের কারণে এলাকায় তাকে লিপু ওরফে বোমা লিপু নামে ডাকে। তার নামে বিভিন্ন থানায় ডাকাতি, মাদক ব্যবসা, অস্ত্র, বোমা ও নারী নির্যাতন সহ ১৬টির বেশি মামলা রয়েছে। এসব মামলায় সে সে দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিল। তাকে ধরিয়ে দিতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ৫ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও