সোনারগাঁয়ে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষাভ

সোনারগাঁও করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৭:০৪ পিএম, ১৩ জুলাই ২০২০ সোমবার

সোনারগাঁয়ে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষাভ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের বারদী ইউনিয়নের শান্তির বাজার এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ডাকাত সর্দার হাবিবুর রহমান হাবু ও তার ছেলে আশিকসহ একটি সন্ত্রাসী বাহিনী যুবলীগ নেতা ও ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে এলাকাবাসী।

১৩ জুলাই সোমবার বেলা ১১ টার দিকে বারদী ইউনিয়নের শান্তিরবাজার এলাকায় ৫ গ্রামের নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে হাবু ডাকাত ও তার বাহিনীর বিচার দাবী করে বিক্ষোভ মিছিল করে। এদিকে যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা ঘটনায় আমিনুল ইসলামের বড় ভাই বাদী হয়ে হাবু ডাকাতকে প্রধান আসামী করে ১৮ জনের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করেন।

সোনারগাঁ থানায় দায়ের করার মামলার এজহার থেকে জানা যায়, বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জহিরুল হকের মদদে উপজেলার শান্তিরবাজার এলাকায় একটি জমি নিয়ে ডাকাত সর্দার হাবিবুর রহমান হাবু, ফারুক মেম্বার, সানু মেম্বার, আমজাদ হোসেন ও সানাউল্লাহ সিন্ডিকেট আব্দুল মতিনের একটি জমি জোড়পূর্বক দখলে নিয়ে একটি বহুতল ভব নির্মাণ কাজ শুরু করে। এ নিয়ে গত শনিবার সকালে সোনারগাঁ থানায় একটি বিচার শালিস হয়। বিচার শালিসে সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন উপস্থিত হয়ে আব্দুল মতিনের জমির কাগজপত্র সঠিক পায়। ওই সালিসে চেয়ারম্যান মোশারফ জমি সরেজমিনে পরিদর্শন করে বিচারের রায় ঘোষনা করার কথা জানান। পরদিন রোববার সকালে মোশারফ হোসেন ঘটনাস্থলে গেলে যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম ভুক্তভোগী আব্দুল মতিনের পক্ষে কথা বলায় মোশারফ চেয়ারম্যান ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পর তাকে একা পেয়ে হাবু ডাকাতের নেতৃত্বে ১৮-২০ জনের একটি দল এলোপাথাড়িভাবে আমিনুল ইসলামকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, জহির চেয়ারম্যানের নির্দেশেই যুবলীগ নেতা আমিনুলকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। আমিনুল ইসলাম রাজধানীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে নিবীর পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (আইসিওতে) ভর্তি রয়েছেন। এখনও আমিনুল ইসলামে জ্ঞান ফেরেনি বলে জানিয়েছেন তার বড় ভাই লায়ন বাবুল।

এলাকাবাসীর আরো অভিযোগ, ডাকাত সর্দার হাবু ওই এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি ও মানুষের জমি দখল থেকে শুরু করে বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে। ডাকাত সর্দার হাবুর বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানাসহ বিভিন্ন থানায় ডাকাতি, চুরি, মাদক ও অস্ত্রসহ ২০টি মামলা রয়েছে।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় তার বড় ভাই বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। হাবুকে গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও