লালপুরে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা,ডাইংকে ১ লাখ টাকা জরিমানা

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৫৯ পিএম, ১৬ জুলাই ২০২০ বৃহস্পতিবার

লালপুরে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা,ডাইংকে ১ লাখ টাকা জরিমানা

জলাবদ্ধতার কারণে দীর্ঘদিন ধরেই ভয়াবহ দুর্ভোগে রয়েছেন সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন লালপুরের পৌষা পুকুরপাড় এলাকার বাসিন্দারা। সারা বছরই এলাকাটিতে জলাবদ্ধাতায় ডুবে থাকে। বর্ষা মৌসুমে সেই জলাবদ্ধতা আরো তীব্র আকার ধারণ করে প্রতিটি বাড়ি, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে যায়। সেই পানির সাথেই মিশে যাচ্ছে ডাইংয়ের কেমিক্যাল মিশ্রিত পানি। দীর্ঘদিন ধরে জমে থাকা এসব কেমিক্যাল মিশ্রিত বদ্ধ পানিতে এখন নাভিশ্বাস এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানা যায়, ওই এলাকাটি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের নির্বাচনী এলাকা সদর উপজেলার ফতুল্লা ইউনিয়নের আওতায়। আশপাশের অধিকাংশ জলাশয় ভরাট হয়ে গেছে। এছাড়া আশপাশের এলাকার তুলনায় ওই এলাকাটি নিচু হয়ে যাওয়ায় পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। যে কারণে এলাকাটিতে বছরজুরেই জলাবদ্ধতায় আটকে থাকে।

ওই জলাবদ্ধতার মধ্যে মরার উপর ঘারার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে স্থানীয় কিছু ডাইং। সেসব ডাইংয়ের পানি এখন সরাসরি এসে ছড়িয়ে পড়ছে ওই এলাকায়। ডাইংয়ের কেমিক্যাল মিশ্রিত পানির কারণে ভয়াবহ দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে দুর্ভোগ যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে পানিবাহিত নানা রোগের প্রাদুর্ভাব।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দা আনোয়ার নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘পৌষা পুকুরপাড় এলাকারবাসী দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে জলাবদ্ধতায় দিন জীবন যাপন করছ। প্রায় হাটু পর্যন্ত ময়লা পানি। পানি এখান থেকে কোন জায়গায় যাওয়ার সুযোগ বা ব্যবস্থা নাই। এর সাথে যুক্ত হয়েছে ডাইংয়ের পানি। ডাইংয়ের মালিকেরা সরাসরি এখানেই পানি ছেড়ে দিচ্ছে। যে কারণে দিনদিন পানি আরো বাড়ছে। আর ডাইংয়ের কেমিক্যালের জন্য দুর্গন্ধ আরো বেড়েছে। মানুষ কত কষ্টের মধ্যে জীবন যাপন করছে তা লালপুর পৌষার পুকুরপাড় আসলে বুঝা যায়।’

স্থানীয় বাসিন্দা ভুক্তভোগী হারুন মিয়া জানান, কয়েকশ বার অনুরোধ করেছি ডাইং মালিককে কথা শোনেননি। সে স্থানীয় এক যুবলীগ নেতার খালু। এছাড়া স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও কিছু অসাধু প্রশাসন মাসে মাসে এ ডাইং থেকে উৎকোচ নেয়। যার ফলে অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি। এছাড়া পরিবেশ অধিদপ্তরকে অভিযোগ দিলেও অভিযোগ গ্রহণ করেনি। তিনি আরো জানান, বিষয়টি আমরা ফেসবুকে এমপি পতœী লিপি ওসমানকে অবগত করি।

ফতুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান স্বপন বলেন, এটা আমার দুর্ভাগ্য। লোকটাকে যে কতবার বলেছি ডাইং এর পানি ফেলবেন না। কিন্তু উনি কারো কথা শোনেননি।

খবর পেয়ে পৌষার পুকুরপাড় এলাকার জলাবদ্ধতা সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক। এসময় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে স্থানীয় আজাদ ডাইংকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন। পাশাপাশি জলাবদ্ধতা নিরসেনে কাজ করার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক জানান, ডাইং এর পানি রাস্তায় ফেলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি ও মানুষকে কষ্ট দেয়ায় আজাদ ডাইং প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া ডাইং মালিককে সঙ্গে নিয়ে নোংরা পানি মাড়িয়ে আমি নিজেসহ এলাকাটি ঘুরেছি। যাতে ভোগান্তির শিকার মানুষরে কষ্ট ডাইং মালিক নিজে উপলব্দি করতে পারি। তিনি আরো জানান, এমপি পতœী লিপি ওসমানকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে এলাকার মানুষ। তার কাছে বিষয়টি যাওয়ার সাথে সাথে তিনি আমাকে কল করে কঠোর ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন। সেই লক্ষ্যে সেখানে ২ টি অতিরিক্ত পাম্প বসানো হচ্ছে আটকে যাওয়া জলাবদ্ধতার পানি নিষ্কাশনে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ফতুল্লা রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আজিজুর রহমান, সিদ্ধিরগঞ্জ সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুম রেজা, জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক মইনুল হক, সহকারী পরিচালক শরীফুল ইসলাম, ফতুল্লা ইউনিয়ন পরিদষদের চেয়ারম্যান খন্দকার লুৎফর রহমান স্বপন প্রমুখ।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও