৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০১৭ , ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ

খালেদা জিয়ার লন্ডন সফরে নারায়ণগঞ্জে নির্বাচনী টিকেট চূড়ান্ত


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:০৪ পিএম, ৭ জুলাই ২০১৭ শুক্রবার | আপডেট: ০৯:২৬ পিএম, ৯ জুলাই ২০১৭ রবিবার


খালেদা জিয়ার লন্ডন সফরে নারায়ণগঞ্জে নির্বাচনী টিকেট চূড়ান্ত

স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য খুব শিগগিরই লন্ডন যাবেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। চিকিৎসা শেষে সেখানে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সাংগঠনিক বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি এমনটাই আভাস পাওয়া যাচ্ছে। আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি এবং ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্ধারণের ব্যাপারে বিএনপির এই দুই হাইকমান্ড বেশকিছু নীতিগত সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। ফলে দলীয় প্রধানের লন্ডন সফরকে গুরুত্বের সঙ্গেই দেখছে দলটির নেতাকর্মীরা। কারণ এ সফরেই হয়তো খুলতে পারে নারায়ণগঞ্জের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কারো কারো ভাগ্য। যদিও দল থেকেই অনেকেই সিগন্যাল পেয়ে মাঠে নামতে শুরু করেছে।
 
বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, একাদশ নির্বাচনের আগে দলের দুই হাইকমান্ডের বৈঠক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ লন্ডন সফরে ‘খালেদা-তারেক’ বৈঠকের মাধ্যমে পরবর্তীতে সাংগঠনিক পদক্ষেপগুলো চূড়ান্ত হতে পারে। নির্বাচনেরও বেশি সময় বাকি নেই, ২০১৮ সালের শেষের দিকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে। এর আগে নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায় ও দলীয় প্রার্থী বাছাইসহ বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে বিএনপিকে।
 
এছাড়া দলের কিছু নেতাকে মনোনয়ন দেওয়া না-দেওয়ার ব্যাপারে তারেক রহমানের সঙ্গে আলোচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বিএনপি প্রধান। কারণ বিগত দিনে আন্দোলন সংগ্রামে তারেক রহমান সকলের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেছেন। তাই কারা রাজপথে ছিল এর তথ্যও তার কাছে আছে। ফলে লন্ডনে ‘খালেদা-তারেক’ এর বৈঠকে কিছু নেতার ‘ভাগ্য নির্ধারণ’ হবে। আবার কারো কারো ‘ভাগ্য খুলতে’ পারে এমনটা মনে করেন দলের কেউ কেউ। অবশ্য এতে করে নারায়ণগঞ্জের অনেক সিনিয়র নেতার ভাগ্যেই হয়তো থাকছেনা সেই কাংখিত টিকেট কারণ মনোনয়ন প্রত্যাশী অনেকেই ছিলেন না বিগত দিনে সক্রিয়।
 
খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর নিয়ে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে জল্পনা-কল্পনা থাকলেও সরফসূচি চূড়ান্ত হয়নি এখনও। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির দুই মামলার আগামী ৬ জুলাই খালেদা জিয়ার হাজিরার দিন ধার্য রয়েছে। ওইদিনের পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে কবে নাগাদ তিনি লন্ডনে যাবেন।
 
নারায়ণগঞ্জ বিএনপি নেতাদের মতে, দলের এ দুজন নেতা একসাথে আলোচনায় বসলে জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামানের মত বিগত আন্দোলন সংগ্রামে যারা মাঠে ছিলেন না তারা হয়তো মনোনয়ন নাও পেতে পারেন। কারণ রাজপথে এসব নেতাদের কোন কর্মীরা খুঁজে পায়নি কখনই, দলের জেলার দায়িত্ব পেয়েও এরা এখন পর্যন্ত ব্যর্থ এমনকি দলের সাধারণ সদস্য পদ নবায়ন ও সংগ্রহ অভিযান দেশব্যাপী শুরু হলেও নারায়ণগঞ্জে এরা শুরু করতে পারেনি।

একই অবস্থা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আরেক নেতা শাহ আলমেরও। তিনি বিগত আন্দোলন সংগ্রামে একদিনের জন্যও মিছিল মিটিং করেননি। তার নামে জেলার কোন থানায় আন্দোলন সংগ্রামের কোন মামলাও নেই। এমনকি দলের টানা আন্দোলনের সময় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও ছিল খোলা। জেলার সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও সে সময় খোলা ছিল। একইভাবে জেলার ৫টি আসনের ব্যাপারেই খসরা সিদ্ধান্ত নেয়া হলে লন্ডনে এমনটাই মনে করছেন জেলার নেতারা আর এতে করেই নিস্ক্রিয় নেতারা রয়েছেন আতংকে। কারণ তারেক রহমান মনোনয়ন দিলে অনেকেরই হয়তো কপাল পুড়তে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লি¬ষ্টরা।
 
২০০৬ সালে ক্ষমতা হারানোর পর লন্ডনে খালেদা জিয়ার এটি তৃতীয় সফর হবে। ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্র ঘুরে দেশে ফেরার পথে বড় ছেলে তারেক রহমানকে দেখতে যুক্তরাজ্যে গিয়েছিলেন তিনি। এর পর ২০১৫ সালে ১৬ সেপ্টেম্বর একবার তিনি লন্ডন যান। ওই সময় চোখ ও পায়ের চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান খালেদা জিয়া। সেখানে বড় ছেলে তারেক রহমানের বাসায় ওঠেন তিনি। দুই মাসের বেশি সময় লন্ডনে অবস্থান করে ২১ নভেম্বর দেশে ফেরেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ