৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭ , ১:৪৫ অপরাহ্ণ

দুই বিএনপি নেতার শামীম ওসমান ও আওয়ামী লীগ বন্দনায় তোলপাড়


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:০৩ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৭ শুক্রবার


দুই বিএনপি নেতার শামীম ওসমান ও আওয়ামী লীগ বন্দনায় তোলপাড়

নারায়ণগঞ্জের দুইজন বিএনপি নেতার আওয়ামী লীগ প্রীতি ও আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমানের বন্দনা করায় তোলপাড় চলছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে রীতিমত ঝড় উঠেছে। অনেকেই এ দুইজন নেতাকে দল থেকে একেবারে বহিস্কারের দাবী জানিয়েছে।

ওই দুইজন নেতা হলেন জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও ফতুল্লা থানা কমিটির সেক্রেটারী আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস ও কুতুবপুরের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু।

বৃহস্পতিবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার দেলপাড়া মাঠে ডিএনডির মেগা প্রকল্পের উদ্বোধনের প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে আয়োজিত সমাবেশে এ দুইজন রীতিমত আওয়ামী লীগের পক্ষে কথা বলতে বলতে মাইক ঝাঁজিয়ে ফেলে।

বিএনপির একাধিক নেতা জানান, যেভাবে এ দুইজন আওয়ামী লীগের বন্দনা করেছেন তাতে করে বিএনপিতে তাদের থাকার আর কোন অধিকার নেই। বরং তাদের দল থেকে বহিস্কার কিংবা কঠিন ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। যদিও সেটা খুব কষ্টকর হবে জেলা বিএনপির নেতাদের। কারণ আজাদ বিশ্বাস মূলত জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও নিয়ন্ত্রক শাহআলমের ঘনিষ্টজন ও অনুগামী। শাহআলমের কারণেই কোন নেতা এসব ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নিতে পারবে না।

সমাবেশে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা মনিরুল আলম সেন্টু বলেছেন, ডিএনডি জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে এখানকার মানুষ। এ মুক্তির কারিগর আমার বড় ভাই এমপি শামীম ওসমান। এমপি শামীম ওসমান যে ৫৫৮ কোটি টাকার প্রকল্প এনেছেন এতে তিনি ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। এ জন্য তিনি সকলের অন্তরে থাকবেন। উনি আমার বড় ভাই, এমপি কিন্ত উনার পক্ষে কথা বলতে গেলে আমাকে অনেক পত্রিকার শিরোনাম হতে হয়। বিগত তিন বছরে এখানে শতকোটি টাকার কাজ হয়েছে শামীম ওসমানের হাত ধরে। এটাই বাস্তবতা। দলমত নির্বিশেষে উনি সকলের জন্য কাজ করেছেন।

একই অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আজাদ বিশ্বাস বলেছেন, আমার নেতা শামীম ওসমানের হাত দিয়ে স্মরণকালের সেরা কাজ আমার উপজেলায় হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সকল রাস্তাঘাট শামীম ওসমানের হাত ধরে পরিবর্তন হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে আর্থিক সক্ষমতা কতটা আছে আমি জানিনা কিন্ত শামীম ওসমান বলেছেন সংসদে এই জলাবদ্ধতা নিরসন না হলে আমি পদত্যাগ করবো। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সন্তান তাই আমি বলেছি আমার উপজেলা পরিষদবাসীকে- যদি কেউ এই জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি দিতে পারে তাহলে তা একমাত্র শামীম ওসমান।

এর আগে ১৫ অক্টোবর বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জের নাভানা মাঠে ডিএনডির মেগা প্রকল্পের উদ্বোধনের প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে সমাবেশের আয়োজন করা হয় যাঁর উদ্যোক্তা ছিলেন শামীম ওসমান। সেখানে ছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জ বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মতিন প্রধান ও জেলা মহিলা দলের প্রথম যুগ্ম আহবায়ক আয়েশা আক্তার দিনা। তাদের মধ্যে মতিন প্রধান আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। যদিও পরদিন মতিন প্রধানকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পদ থেকে বহিষ্কার করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ