৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ

আমি ‘ব্যারিস্টার’ মনোনয়ন চাইবো : পারভেজ আহমেদ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৯ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০১৭ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৮:৫২ পিএম, ২৫ অক্টোবর ২০১৭ বুধবার


আমি ‘ব্যারিস্টার’ মনোনয়ন চাইবো : পারভেজ আহমেদ

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি পারভেজ আহমেদকে স্থায়ীভাবে আইন পেশা থেকে অপসারণের বিষয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি দাবি করেছেন আমি ‘ব্যারিস্টার’। যাবতীয় প্রমাণাদি সহ আমি উচ্চ আদালতে আপিল করব।

তিনি দাবি করেন, টিভি মিডিয়াতে টকশোতে দলের পক্ষে কথা বলা ও সত্যের পক্ষে ভূমিকা রাখার কারণেই এমনটা করা হয়েছে। আমার সাথে ব্যারিস্টার হয়েছেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, ব্যারিস্টার আফসান আহমেদ সিদ্দিকী সহ বেশকজন।

পারভেজ আহমেদ জানান, তিনি ১৯৯৬-৯৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি (অনার্স) ও এলএলএম (মাস্টার্স) করেন। ১৯৯৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ বার কাউন্সিল  থেকে আইনজীবী হিসেবে সনদ লাভ করেন। ওই বছর স্কলারশীপ নিয়ে ২৬ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়া যান। ২০০১ সালে ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনি থেকে গ্রেজুয়েট ডিপ্লোমা অব ‘ল’ সম্পন্ন করেন। ২০০৪ সালে কলেজ অব ‘ল’ অস্ট্রেলিয়া থেকে গ্রেজুয়েট ডিপ্লোমা অব লিগ্যাল প্র্যাকটিস ও ২০০৫ সালের ২৭ জুন বার এট ‘ল’ সম্পন্ন করেন।

পারভেজ আহমেদ দাবি করেন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলর শুনানীতে আমি যাবতীয় কাগজ পত্র দেখিয়েছি। প্রমাণাদি দিয়েছি। আমাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেননি। কিন্তু তারা কিসের ভিত্তিতে এমন সিদ্ধান্ত দিল সেটা আমার বোধগম্য না। আমি খুব দ্রুত উচ্চ আদালতে আপিল করব। আমার সকল কাগজপত্র প্রমাদি সহ আমি আপিল করব। এ ষড়যন্ত্র থেকে আমি মুক্ত হবো।

এক প্রশ্নে তিনি বলেন, আমি দলের জন্য ভূমিকা রাখতে পেরেছি। আমি অবশ্যই আগামীতে নির্বাচনে দলের মনোনয়ন চাইব। আমি আমার অবস্থান থেকে দলের জন্য কাজ করেছি। দল যদি যোগ্য মনে করে তাহলে আমাকে মনোনিত করবে।

প্রসঙ্গত ব্যারিস্টার বা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী পরিচয়দানকারী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য (আইনজীবী) পারভেজ আহমেদের পেশাগত অসদাচরণ প্রমাণিত হওয়ায় আইন পেশা থেকে তাকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করা হয়েছে।

২৩ অক্টোবর সোমবার পারভেজ আহমেদের বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার এম. সারোয়ার হোসেনের করা অভিযোগ বলা হয়, ‘পারভেজ আহমেদ নিজে ব্যারিস্টার বা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী না হওয়া সত্ত্বেও নিজেকে ব্যারিস্টার এবং সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে দেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে টক শোতে অংশ নিয়ে জনসাধরণকে প্রতারিত করেছেন।’

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, পারভেজ নিজে ব্যারিস্টার বা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী না হওয়ার পরও নিজের ওই পরিচয় ব্যবহার করছিলেন। মিথ্যা ওই পরিচয় দিয়ে দেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে টক শোতে অংশ নিয়ে জনসাধারণকে প্রতারিত করছেন। একাত্তর টিভি, ইটিভি, জিটিভি, আরটিভি ও দীপ্ত টিভির টক শোতে অংশ নেন তিনি। তিনি ভুয়া পরিচয়ে টক শোতে অংশ নিয়ে অসদাচরণ করেছেন। প্রতিপক্ষ সুপ্রিম কোর্টের অনুমতিপ্রাপ্ত নয় বা ব্যারিস্টার না হওয়ার পরও ওই পদ ব্যবহার করে ভিজিটিং কার্ড ছাপিয়েছিলেন পারভেজ। তিনি নিজের পরিচিতির জন্য ওই ভিজিটিং কার্ড ব্যবহার করে জনসাধারণকে প্রতারিত করে গণমানুষের কাছে আইনজীবীদের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন।

এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় অসদাচরণের দায়ে বার কাউন্সিলের ১ নম্বর ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান মো. ইয়াহিয়া, সদস্য মো. পারভেজ আলম খান ও শেখ আখতারুল ইসলাম ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য পারভেজ আহমেদকে ২১ অক্টোবর আইন পেশা থেকে স্থায়ীভাবে অপসারণের আদেশ দেন।

বার কাউন্সিল থেকে আরো জানানো হয়, এর আগেও অন্য এক মামলায় ৭ অক্টোবর পারভেজ আহমেদকে ১০ বছরের জন্য আইন পেশা থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় অসদাচরণের দায়ে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ট্রাইব্যুনাল ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য পারভেজ আহমেদকে আইন পেশা থেকে স্থায়ীভাবে অপসারণের আদেশ দেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ