৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

কেন্দ্রের ভরসা শামীম ওসমানের উপর


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:০৯ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৭ শুক্রবার


কেন্দ্রের ভরসা শামীম ওসমানের উপর

নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে এখনো শামীম ওসমানের উপরই ভরসা রাখছেন কেন্দ্র। রাজনৈতিক কর্মসূচীর চেয়ে বিএনপি জামায়াতের নাশকতা ঠেকানোর ক্ষেত্রে মাঠে ময়দানে থাকার জন্য শামীম ওসমানের বিশাল কর্মী বাহিনীতে আস্থা রাখছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। তাদের মতে, সহনশীল রাজনীতির ক্ষেত্রে অনেক নেতা হাইব্রিড হয়ে কাজ করলেও দলের প্রয়োজনে বার বার শামীম ওসমানকেই প্রয়োজন।

এর আগে গত বছরের ২২ ডিসেম্বর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হাসান শাহরিয়ার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছিলেন ‘দল যখন যেভাবে চেয়েছে শামীম ওসমান সেভাবেই হাজির হয়েছেন।’

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, ২০১৪ সালেল ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের পর জামায়াত ও বিএনপি নারায়ণগঞ্জে যেভাবে ত্রাস ও আগুন দিয়ে জ্বালাও পোড়াওয়ের রাজনীতি শুরু করে তখন বিভিন্ন এলাকাতে নিয়মিত সমাবেশ হতো। আওয়ামী লীগের এসব সমাবেশ থেকে ধংসাত্মক কর্মসূচী মোকাবেলাও করা হতো।

আগামীতেও নির্বাচনের আগে জামায়াত ও বিএনপি এ ধরনের কিছু ঘটাতে পারে আশংকাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ওই সময়ে এসব মোকাবেলায় শামীম ওসমানের উপর আস্থা রাখছেন দলটির কেন্দ্রীয় নীতি নির্ধারকেরা। তাঁদের মতে, দলের ভেতরে অনেক হাইব্রিড ও টাকাওয়ালা নেতা আছে। তারা সুসময়ে বেশ তোড়জোড় দেখালেও ক্রাইসিস সময়ে থাকে না।

১৯৯৮ সালের জুনে পার্বত্য চট্রগ্রাম অভিমুখী বিএনপির লংমার্চ যাত্রা তখন ঠেকিয়ে দেন শামীম ওসমান। মূলত তখন তিনি দলের হাই কমান্ডের নির্দেশেই সে কাজটি করেন। তাছাড়া শামীম ওসমানের দাবী ছিল তিনি লং মার্চ আটকে দেননি বরং বিলম্বিত করেছে। কারণ বিলম্বিত না করলে ফেনীতে বোমা হামলা আশংকা ছিল।

তাছাড়া ওই সময়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে নারায়ণগঞ্জে জনতার আদালত বসিয়ে জামায়াতের শীর্ষ নেতা গোলাম আজাম, নিজামী সহ অনেকের ফাঁসি দেওয়া হয়। নারায়ণগঞ্জে জামায়াতের নেতাদের প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এসব কারণে বিএনপি ও জামায়াত ক্ষুব্ধ ছিল। ফলে ২০০১ সালের নির্বাচনের পর দেশত্যাগ করতে হয়েছিল শামীম ওসমানকে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ