৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১২:৫৬ পূর্বাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জ বিএনপি নেতাদের সপ্তাহের অর্ধেক সময় কাটে আদালতে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩২ পিএম, ২৬ নভেম্বর ২০১৭ রবিবার | আপডেট: ০৪:০১ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার


নারায়ণগঞ্জ বিএনপি নেতাদের সপ্তাহের অর্ধেক সময় কাটে আদালতে

নারায়ণগঞ্জ আদালত এখন বিএনপির ‘সেকে- হোমে’ পরিণত এমন মন্তব্য দলের নেতাকর্মীদের। একের পর এক মামলা জর্জরিত নেতাকর্মীদের বক্তব্য, সপ্তাহে ৭দিনের মধ্যে ৫দিনই তাদের আদালতে আসতে হচ্ছে। কোন না কোন মামলার হাজির থাকছে। এছাড়াও থাকছে অনেক আইনী কার্য্যক্রম। সকালে আদালতে আসলে বাড়ি ফিরতে সেই বিকেল।

রোববার ২৬ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালতপাড়ায় দেখা গেছে নেতাকর্মীদের ভীড়। এদিন বিভিন্ন মামলায় অন্তত ৫শ নেতাকর্মীকে বিভিন্ন মামলায় হাজিরা দিতে হয়েছে।

শুধু রোববারের বিষয় না এটা পুরো মাসের চিত্রও বলা যেতে পারে। প্রতিদিন আদালতপাড়ায় হাজির হচ্ছেন বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। কোন না কোন মামলার হাজিরা থাকছেই। আর এসব নেতারাও প্রতিদিন হাজির হচ্ছেন ক্যামেরার সামনে। তুলছেন ছবি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার জানান, বিএনপিতে সক্রিয় রাজনীতি করে এমন কোন নেতাকর্মী নাই যাদের বিরুদ্ধে মামলা নাই। সপ্তাহে ৩ থেকে ৪দিন আদালতেই আসতে হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সদস্য ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ জানান, প্রতি সপ্তাহেই আমাকে আদালতে হাজিরা দিতে হচ্ছে। আড়াইহাজারের কয়েক শ নেতাকর্মী বিভিন্ন মামলায় আসামী। গত সপ্তাহে ৭৭জন আত্ম সমর্পন করে কারাভোগ করেছে। তাদেরকে প্রতিনিয়ত আদালতে আসতে হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সেক্রেটারী এটিএম কামাল বলেন, আমার বিরুদ্ধে ৫০টির বেশী মামলা রয়েছে। সুতরাং একেই বোঝা যায় কী পরিমাণ অত্যাচার নির্যাতন হয়েছে। আমার তো সপ্তাহে ৫দিনই আদালতে হাজির হতে হচ্ছে। সকাল ১০টায় আদালতে আসতে হয়। হাজিরা দিতে দিতে ক্লান্ত হয়ে পড়ি। বাড়ি ফিরতে ফিরতে বিকেল। সুতরাং আদালত পাড়াকে আমি বিকল্প বাসা কিংবা ‘সেকে- হোম’ বললে ভুল হবে না।

সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ জানান, দুই ডজন মামলা নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে। সপ্তাহে এক দুইবার হাজিরা দিতে হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মাসুকুল ইসলাম রাজীব জানান, সপ্তাহের পুরোটাই জুড়ে আদালতে থাকতে হয়। কখনো কখনো আমরা নিজেরাও সময় চেয়ে নেই। আবার কখনো অন্য বিবাদীরা না আসায় আমাদের মামলার কার্য্যক্রম বিলম্বিত হচ্ছে। আমাদের বিরুদ্ধে এত মামলা যে নিজেরাও খবর রাখতে পারি না কবে কোন মামলার তারিখ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, বিএনপির যেসব নেতাকর্মীরা মামলায় জর্জরিত তাদের আমি অন্তত বিনা টাকায় সহায়তা দিয়ে যাচ্ছি। প্রতিদিনই আমাকে ও আমার সহকর্মীদের বিএনপির বিভিন্নস্তরের নেতাকর্মীদের মামলায় গিয়ে আদালতে দাঁড়াতে হচ্ছে। এতে আমাদের অনেক মামলার সমস্যা হলেও দলের প্রতি ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতায় নিজেদের স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে দলের জন্য কাজ করছি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ