৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

শামীম ওসমানের আস্থার প্রতীক জুয়েল মহসিন


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:১০ পিএম, ৪ ডিসেম্বর ২০১৭ সোমবার | আপডেট: ০৮:১৩ পিএম, ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার


শামীম ওসমানের আস্থার প্রতীক জুয়েল মহসিন

নারায়ণগঞ্জের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন একটি স্থান নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালতপাড়া ও তাঁর রাজনীতি। এখানে শামীম ওসমানের একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে ঝান্ডা ধরে আছেন অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া। চলতি নির্বাচনে তাদেরকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করতে না পারলে এখানেও শামীম ওসমান তার কর্র্তৃত্ব নেতৃত্ব হারাবেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

জানা গেছে, কোন দিকপাল না ভেবেই নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় শামীম ওসমানের পক্ষে ঝান্ডা ধরে বসে আছেন হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও মোহসীন মিয়া। নারায়ণগঞ্জে আদালতপাড়ায় আওয়ামীলীগের রাজনীতি কয়েক যুগ ধরে নিয়ন্ত্রন ও নেতৃত্বে দিয়ে আসছিলেন অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু ও অ্যাডভোকেট খোকন সাহা। যদিও তারা আদালতপাড়ায় এক সময় শামীম ওসমানের বার্তাবাহক হিসেবেই প্রতিনিধিত্ব করে আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রন ও নেতৃত্বে দিয়ে আসছিলেন। সে সুযোগে নিজেরাও আদালতপাড়ায় একটি শক্ত অবস্থান তৈরি করেছেন তাঁরা। এমন অবস্থায় আদালতপাড়ায় শামীম ওসমানের পক্ষে বুক ফুলে দাঁড়িয়েছেন জুয়েল মোহসীন। জুয়েল মোহসীন চান এখানে শামীম ওসমানের নেতৃত্ব কর্তৃত্ব অটুট ছিল এবং থাকবে। তবে তারা দুজন আনিসুর রহমান দিপু ও খোকন সাহার সঙ্গে কতটুকু পেরে ওঠবেন তা নির্ভর করবে শামীম ওসমানের সিদ্ধান্তের উপর।

আইনজীবীরা জানিয়েছেন, হাসান ফেরদৌস জুয়েল সম্প্রতি জেলা তাঁতীলীগের সভাপতি হয়েছেন। নিয়মিত তিনি আদালতপাড়ার বাইরেও শামীম ওসমানের নানা অনুষ্ঠানগুলোতে সরব থাকছেন। দেখা যায় মোহসীন মিয়াকেও। যদিও মোহসীন মিয়াকে আদালতপাড়ার রাজনীতির বাইরের কোন সংগঠনের পদে রাখা হয়নি। হাসান ফেরদৌস জুয়েল এর আগে আইনজীবী সমিতিতে টানা দুবার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ও মোহসীন মিয়া টানা দুবার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন। চলতি নির্বাচনে তারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করবেন সেই লক্ষ্যেই আদালতপাড়ায় সকল আইনজীবীদের সঙ্গে যোগাযোগটা বাড়িয়েছেন। সিনিয়র আইনজীবীদের দোয়া ও সমর্থন আদায় করছেন।

আরো জানা গেছে, আইনজীবী সমিতির গত নির্বাচনে প্যানেল পরিচিত সভায় এমপি শামীম ওসমান ঘোষণা দিয়েছিলেন এ বছরের নির্বাচনে সভাপতি পদে হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও মোহসীন মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক পদে রেখে প্যানেল গঠন করা হবে। শামীম ওসমানের সেই ঘোষণাকেই বাস্তবায়নের পথে বিশ্বাস করে জুয়েল ও মোহসীন মিয়া আদালতপাড়ায় কাজ করছেন। তারাও আশাবাদি শামীম ওসমানের ঘোষণা নড়চড় হবে না। বছর খানিক সময় ধরে শামীম ওসমানের সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হয় আনিসুর রহমান দিপু ও খোকন সাহার। আদালতপাড়ায় যখন শামীম ওসমানের অবস্থান নড়বড়ে হওয়ার পথে তখন হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও মোহসীন মিয়া শামীম ওসমানের পক্ষে অবস্থান তৈরি করেছেন।

দেখা গেছে জেলা বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের ব্যানারে আনিসুর রহমান দিপু একটি কর্মসূচি পালণ করেছিলেন একদিকে অন্যদিকে জুয়েল মোহসীন কর্মসূচিও পালন করে জানানি দিয়েছিলেন এখানে শামীম ওসমানের ঝান্ডা ধরার মত আইনজীবী রয়েছেন। এখন পরিস্থিতি এমনটা হয়েছে যে আগামী নির্বাচনে যদি শামীম ওসমান তার ঘোষণা থেকে সরে যান তাহলে আদালতপাড়ায় আবারো কর্তৃত্ব নেতৃত্ব ফিরে পাবেন পুর্বের নেতারা। এক্ষেত্রে জুয়েল মোহসীন আবার পিছিয়ে যাবেন আদালতপাড়ায় শামীম ওসমানের রাজনীতি ধরে রাখতে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত করতে না পারলে বেশ বেকায়দায় পড়তে হবে আদালতপাড়ায় শামীম ওসমানের নিয়ন্ত্রন ও তার দুজন অন্ধ কর্মী জুয়েল মোহসীন মিয়াকে।

অন্যদিকে আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ প্যানেল থেকে সভাপতি পদে নির্বাচনের আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট খোকন সাহা। যদিও তিনি বর্তমানে একটু চুপসে রয়েছেন। এছাড়াও আবারো মনোনয়ন চাইবেন সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাবিব আল মুজাহিদ পলু। এখন দেখার বিষয় তসফিল ঘোষণার পর আওয়ামীলীগের এমপি শামীম ওসমান কি সিদ্ধান্ত নেন। আবার নির্বাচন ঘনিয়ে আসলে হয়তো আবারো শামীম ওসমানের সঙ্গে এক টেবিলে দেখা যেতে পারে দিপু ও খোকন সাহাকে। কারন তারা দীর্ঘদিনের বন্ধু। এক হয়ে হয়তো শামীম ওসমানের ঘোষণা বাস্তবায়নে দিপু ও খোকন সাহাই নির্বাচন করে জুয়েল ও মোহসীন মিয়াকে জয়ী করতে নেমে পড়তে পারেন। রাজনীতিতে শেষ বলতে কিছুই নেই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ