৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

তৈমূর ও জান্নাতুল ফেরদৌসের হেফাজত কাণ্ডের মামলা স্থগিত


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:১৮ পিএম, ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার | আপডেট: ০২:১৮ পিএম, ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার


তৈমূর ও জান্নাতুল ফেরদৌসের হেফাজত কাণ্ডের মামলা স্থগিত

নারায়ণগঞ্জে হেফাজত ইসলামের অবরোধের সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি তৈমূর আলম খন্দকারের বিরুদ্ধে করা মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

মামলা বাতিল চেয়ে করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার ৬ ডিসেম্বর বিচারপতি মো. মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ স্থগিতাদেশ দেন।

আদালতে তৈমূর আলম খন্দকার নিজেই আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন। তিনি বলেন, আদালত মামলা বাতিলে রুল জারি করে মামলার কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ দেন।

এর আগে নারায়ণগঞ্জের একটি আদালতে বিস্ফোরক ও নাশকতা মামলায় বিএনপির ৩৯ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করা হয়। ৩১ অক্টোবর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলাম আদালতে আসামীদের উপস্থিতিতে এ চার্জ গঠন করা হয়। মামলার পরবর্তী তারিখ আগামী বছরের ৪ জানুয়ারি নির্ধারণ করেছে আদালত।

অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ও সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল, সিটি করপোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল হাই রাজু সহ ৩৯ জন।

মামলায় অভিযুক্ত বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার নিজেই মামলার শুনানীতে অংশ নেন।

তিনি জানান, এ মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন হয়না। কারণ ২০১৩ সালের ৫ মে হেফাজতের ঢাকা অবস্থান ও পরদিন হরতালের সময় বিএনপির উল্লেখিত নেতারা হেফাজত নেতাকর্মীদের খাবার, পানি দিয়ে সহায়তা করেছি। পানি খাওয়ানো এবং খাবার দেয়া কোন মামলার মধ্যে আসেনা। একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে খাবার দিয়ে সহায়তা করতেই পারে। বিএনপি নেতাকর্মীদের হেয় করার জন্য এবং ছোট করতেই এ ধরনের মামলায় বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত ২০১৩ সালের ৫ মে রাতে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বর থেকে ফিরে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড়, মাদানী নগর, সাইনবোর্ড, শিমরাইলের মুক্তি স্মরণী এবং সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর এলাকায় আসা হেফাজত নেতাকর্মীদের সঙ্গে পরদিন ভোর ৬টা থেকে আইনশৃঙ্খলা রাক্ষাবাহিনী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এতে দু’জন বিজিবি সদস্য এবং দু’জন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০জনের প্রাণহানির ঘটে। ওই ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট সাখাওয়াত বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় তৈমূর আলম খন্দকার ও সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিনসহ ৩৮ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়। এতে অজ্ঞাত আসামী করা হয় অনেককে। পরে পুলিশ ৩৯জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দাখিল করেন। মামলায় পুলিশ বক্সের হামলা, পুলিশের ওপর হামলা, তাদের পিকাপ ভ্যানে অগ্নিসংযোগ ও সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ আনা হয়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ