৬ শ্রাবণ ১৪২৫, রবিবার ২২ জুলাই ২০১৮ , ১০:৪২ পূর্বাহ্ণ

ফতুল্লায় তাঁতীলীগ নেতা মোরশেদ বাহিনীর হামলায় ব্যবসায়ী রক্তাক্ত


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:১৩ পিএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার | আপডেট: ১০:৫২ পিএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার


ফতুল্লায় তাঁতীলীগ নেতা মোরশেদ বাহিনীর হামলায় ব্যবসায়ী রক্তাক্ত

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পঞ্চবটি এলাকায় প্রধান ফিলিং স্টেশনে মোরশেদ ওরফে টাকলু মোরশেদের সন্ত্রাসী হামলায় পাওনাদার রিপন ফকির নামে এক ব্যবসায়ী রক্তাক্ত জখম হয়েছে। স্থানীয়রা রিপন ফকিরকে উদ্ধার করে খানপুরে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

মোরশেদ হামলার পর আহত ব্যক্তিকে হুমকি দিয়ে বলছে ‘পারলে মামলা কর। ফতুল্লায় ওসি কামাল উদ্দিন যতদিন আছে ততদিন এথানায় আমার বিরুদ্ধে কেউ মামলা করতে পারবেনা।’

১২ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এঘটনার পর বুধবার সন্ধ্যায় ফতুল্লা মডেল থানায় মোরশেদ ও তার বাহিনীর সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মোরশেদ খান ওরফে টাকলু মোরশেদ ফতুল্লা থানা তাঁতীলীগ নেতা। একই সঙ্গে ফতুল্লা মডেল থানার চিহ্নিত দালাল। মামলা মোকদ্দমা ও আসামী ছাড়ানোর দালালী করে মোরশেদ। প্রায় সময় গভীর রাত পর্যন্ত সে থানায় অবস্থান করে। যাকে তাকে ওসি কামাল উদ্দিনের হুমকি দিয়ে ভয়ভীতি দেখান। ওসি কামালউদ্দিন নাকি কোন এক সম্পর্কে তার দুলাভাই হয়। এমন পরিচয় দিয়ে মোরশেদ এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে চলে।

রিপন ফকির জানান, আমি ইউরোপ ইউনিয়ন বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব ও ব্যবসায়ী। পূর্ব পরিচয়ে মোরশেদ প্রায় সময় আমার কাছ থেকে টাকা ধার নেয়। আবার দিয়েও দিত। সবশেষ ৭মাস পূর্বে আমার কাছ থেকে তিন দিনের কথা বলে ৩ লাখ টাকা ধার নেয় টাকলু মোরশেদ। এরপর তিনদিন গিয়ে ৭মাস চললো। টাকার প্রয়োজন হওয়ায় টাকলু মোরশেদকে কয়েকদিন ধরে তাগিদ দিচ্ছি। এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে হুমকি দিয়ে বলেন তার দুলা ভাই, ফুফা, খালু ও বন্ধুরা প্রশাসনের হর্তাকর্তা। টাকা চাইলে খুন করে ফেলবে। তার জন্য ফতুল্লা মডেল থানায় সাত খুন মাফ। একথায় আমি তাকে বলছি চাপাবাজি রেখে টাকা দেন। এতে টাকলু মোরশেদ দেওভোগের সন্ত্রাসী নাজির ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীকে নিয়ে আমাকে তার পাম্পের ভিতর অফিসে ডেকে নেয়। মোরশেদের অফিসে গিয়ে দেখি টেবিলের উপর একটি পিস্তল ও একটি চাপাতি রাখা। টাকলু মোরশেদ বলছে ভিতরে এসে টাকা নিয়ে যাও। আমি বললাম ভিতরে যাবো না। এতে সে হুংকার দিয়ে নাজিরকে বলে ধর মাইরা আবর্জনা ময়লায় ফেলেদে। এরপর মোরশেদ ও নাজিরসহ তাদের আরো কয়েকজন একত্রিত হয়ে এলোপাতারী মারধর করে রক্তাক্ত করে আমার পকেট থেকে টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণের চেইন এবং হাত ঘড়ি লুটে নিয়ে চলে যায়।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, ফতুল্লা তথা নারায়ণগঞ্জে আমার কোন শ্যালক নেই। চাপাবাজরা নাম বলে প্রতারণা করতে পারে। আইন সবার জন্য সমান। অপরাধ করলে অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এখনো রিপন ফকিরের অভিযোগ হাতে পাইনি। অভিযোগ করলে অবশ্যই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং টাকলু মোরশেদ যেখানেই থাকুক তাকে গ্রেফতার করা হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ