৩ মাঘ ১৪২৪, মঙ্গলবার ১৬ জানুয়ারি ২০১৮ , ১:৫৫ অপরাহ্ণ

সিদ্ধিরগঞ্জে কলেজ ছাত্রকে তুলে এনে পেটাল কাউন্সিলর বাদলের ক্যাডার


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:৪০ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৮:২৩ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার


সিদ্ধিরগঞ্জে কলেজ ছাত্রকে তুলে এনে পেটাল কাউন্সিলর বাদলের ক্যাডার

নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জে ইন্টারনেটের তার চুরির অভিযোগ এনে শিহাব হোসেন শোভন নামের একজন কলেজছাত্রকে বাড়ি থেকে তুলে এনে স্থানীয় কাউন্সিলর কার্যালয়ে আটকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। গত ১১ ডিসেম্বর সোমবার রাত ওই ঘটনার পর থেকে নিজ বাড়িতেই কার্যত অবরুদ্ধ রয়েছে সে ও পরিবারের লোকজন।

অভিযুক্ত ওই কাউন্সিলের নাম শাহজালাল বাদল। তিনি সিটি করপোরেশনের ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ৭ খুন মামলার ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নূর হোসনের ভাতিজা।

নির্যাতনের শিকার শোভন এবার রাজধানীর কবি নজরুল কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পাস করেছেন।

নির্যাতনের শিকার শোভন জানান, গত ১১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় উত্তর রসুলপুর এলাকাতে নিজ বাড়ির পাশে ইন্টারনেট সংযোগ লাইনের ব্যবসা করতো তার বড় ভাই সাখাওয়াত হোসেন সুজন।  কিছুদিন আগে একটি ট্রাক যাতায়াতের সময় সেই তার ছিড়ে যায়। বড় ভাইয়ের নির্দেশে ওই তারটি পরিবর্তন করতে মিন্ত্রীকে দিয়ে কাজ করছিলো। ওইদিন ৪ থেকে ৫টি মটরসাইকেল ও কয়েটি রিকশাযোগে ১৫ থেকে ১৬ জন লোক এসে আমাকে (শোভনকে) সহ মিন্ত্রী রিয়াজ ও অচিন্তকে দুটি রিকশায় তুলে নেয়। তখন হানা দেওয়া সন্ত্রাসীরা আমাকে হত্যার হুমকি দিয়ে তিনজনকে  কাউন্সিলর শাজজালাল বাদলের  রসুলবাগ বটতলার বাসার নিচ তলার কাউন্সিলর কার্যালয়ে আটকে রেখে। পরে ইন্টারনেট সংযোগের তার চুরির অপবাদ দিয়ে কাউন্সিলর বাদলের ক্যাডাররা লাঠি, লোহার পাইপ দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এলোপাথি পিটায় এবং চারদিক থেকে কিলঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। এক পর্যায়ে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তারা কিছুক্ষণ বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় দফায় পিটায়। এর কিছুক্ষন পর বাসা থেকে সিড়ি বেয়ে নিচে নেমে এসে কাউন্সিলর বাদল আমাকে তৃতীয়দফায় মারধরে করে।

শোভনে বাবা ইউসুফ হোসেন জানান, ছেলেকে ধরে নিয়ে গেছে খবর পেয়ে তিনি তার এক সহকর্মীকে নিয়ে সোমবার (১১ ডিসেম্বর) রাত নয়টার দিকে কাউন্সিলর বাদলের রসুলবাগ বটতলার কাউন্সিলর কার্যালয়ে যান। এসময় গিয়ে দেখি কলাপসিবল গেইটের সামনে দুই যুবক দাড়িয়ে আছে। সে ভেতরে ঢুকলে চাইলে বাধা দেয়। এভাবে কয়েকদফা ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এ সময় বাহির থেকে তার ছেলের ‘মাগো মাগো’ করে  কান্নার শব্দ পাচ্ছিলেন। এসময় তিনি হাউমাউ করে চিৎকার শুরু করলে আশেপাশের লোকজন জড়ে হয়ে যায়। পরে তাকে ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়। এসময় গিয়ে দেখি আমার ছেলেসহ তিনজনকে ঘিরে রেখেছে বাদলের লোকজন। আর বাদল তাদের নানা কথা জিজ্ঞেস করছে। তখন আমি তাকে (বাদলেকে) বলি আমার ছেলেকে কি দেখতে চোরের মতো দেখা যায় কিনা। তখন বাদল বলে আমার  ইন্টারনেট ও ডিসের ক্যাবল চুরি হয়েছে এই কারনে ছেলেরা তাকে ধরে এনেছে। এসময় সে বলে উঠে আমি না থাকলে আজ আপানার ছেলের কিছু একটা হয়ে যেতো। আমি ছিলাম বলে সে প্রাণে বেঁচে গেছে। বাদল তাকে জানায় যারা তাকে মেরেছে তাদের সে মারধর করেছে। এসময় তার ভাই সুজন বাদলের কাছে জানতে চান কেন তাকে মারধর করা হয়েছে। এসময় বাদল জানান বিষয়টি ভুলবোঝাবুঝি হয়েছে। এখন যারা তাকে মেরেছে তাদের পাল্টা মারদিয়ে যান। এই কথা বলে ছেলেকে ছেড়ে দেন।

শোভনের বড় ভাই সাখাওয়াত হোসেন সুজন জানান, তিনি ২০১৬ সালে উত্তর রসুলবাগ এলাকায় রয়েল বিডি নামে ইন্টারনেট সংযোগ লাইনের ব্যবসা শুরু করেন। প্রায় ৪ থেকে ৫ মাস আগে কাউন্সিলর বাদলের লোক হিসেবে পরিচিত আবুল হাসনাত ও নাঈম আহমেদ এসে আমাকে বলে ইন্টারনেট ব্যবসা এখন থেকে তারা করবে। সে ব্যবসা করতে পারবেনা। তার এক সপ্তাহ পরে হাসনাত ও নাঈমের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমার দোকানে এসে আমার ইন্টারনেট লাইন সংযোগ কেটে দেয় এবং এমসি খুলে ও সুইচ খুলে নেয়। পরে তারা আমার টানা লাইন দিয়ে তারা ব্যবসা শুরু করে।  এর পর থেকে ওই ব্যবসা তারাই নিয়ন্ত্রন করছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের  কাউন্সিলর শাহ জালাল বাদলের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সাখাওয়াত হোসেনের ইন্টারনেট সংযোগ দখলের অভিযোগ অস্বীকার করে এবং নিজেকে শাহজালাল বাদলের ডিসের কর্মচারী পরিচয়দানকারী নাঈম আহমেদ জানান, কাউন্সিলর বাদলের ডিস ও ইন্টারনেট ব্যবসা দেখাশোনা করেন সে ও আবুল হাসনাত। শোভনকে মারধরের ঘটনার দিন তারা দুইজনই ঢাকায় ছিলেন। শোভনকে এলাকার ভাল ছোট ভাই উল্লেখ করে বলেন, তারা এলাকায় থাকলে সেদিন এই ঘটনা ঘটতো না।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)আব্দুস সাত্তার জানান, লোকমুখে ঘটনাটি শুনেছি। কিন্তু কেউ এখন পর্যন্ত থানায় অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে যত প্রভাবশালীই হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মঈনুল হক জানান, এই ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ