৮ আষাঢ় ১৪২৫, শুক্রবার ২২ জুন ২০১৮ , ৯:২১ অপরাহ্ণ

‘আইভী কী শামীম ওসমান পুত্রের বিয়ের একাউনটেন্ট ছিলেন’


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৩ পিএম, ১০ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০২:৫৩ পিএম, ১০ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার


‘আইভী কী শামীম ওসমান পুত্রের বিয়ের একাউনটেন্ট ছিলেন’

সদ্য অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের ছেলে অয়ন ওসমানের বিয়ের খরচ নিয়ে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী যে বক্তব্য রেখেছিলেন একদিনের ব্যবধানে তার কড়া পাল্টা জবাবও এসেছে। শামীম ওসমানের ছেলের ওই বিয়ের খরচের ২৫ কোটি টাকার অংকের কথা জানিয়েছিলেন আইভী। জবাবে আওয়ামী লীগের একজন নেতা প্রশ্ন তুলেছেন, তাহলে কী আইভী একাউনটেন্ট ছিলেন কী না?

ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে ১০ জানুয়ারী বুধবার বিকেলে শহরের চাষাঢ়া শহীদ মিনারে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মহানগর আওয়ামলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম বলেন, শামীম ওসমানের ছেলে অয়ন ওসমানের বিয়েতে কত কোটি টাকা খরচ হয়েছে সেই হিসেব নিয়ে মেয়র ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। আমি বলতে চাই সেই বিয়ের একাউনটেন্ট কি মেয়র ছিল নাকি?

এর আগে ৯ জানুয়ারী মঙ্গলবার বিকেলে শহরের দেওভোগ এলাকাতে রাজধানীর হাতিরঝিল আদলে নির্মাণাধীন লেকে সিটি করপোরেশনের দ্বিতীয় নির্বাচনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে উন্মুক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠানে শামীম ওসমানের ছেলে অয়ন ওসমানের বিয়েকে ইঙ্গিত করে আইভী বলেন, ‘যে এমপি তার ছেলের বিয়েতে ২৫ কোটি টাকা খরচ করতে পারে সে এমপি তো পারে চাষাঢ়ায় রাজউকের নামে দখল করা জায়গা যেটা বিক্রির জন্য পায়তারা করা হচ্ছে সেই প্লটে ২ থেকে ৪টি মার্কেট করে হকারদের পুনর্বাসন করতে। দুবাইতে কোটি কোটি টাকা পাচার করবে আর হকারদের জন্য মায়াকান্না করবে সে ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জবাসী যে সিদ্ধান্ত নিবে আমি সেই সিদ্ধান্তের পক্ষে আছি।’

এর একদিন পরেই অনুষ্ঠিত হয় ছাত্রলীগের ওই অনুষ্ঠান যেখানে শাহ নিজাম বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ জেলাকে নিয়ে যখন কোন ভিন্ন জেলার  মানুষ নানা কথা বলে তখন আমরা প্রতিবাদ করি। স্বাধীনতা যুদ্ধে এ জেলার অবদানের কথা বলে শেষ করা যাবেনা। তবে এই জেলার উন্নয়নের মধ্যে সরকারি তোলারাম কলেজেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নিত করা হয়েছে। এছাড়া একই সময়ে অনার্স ও মাষ্টার্স কোর্স চালু করা হয়েছে যা এর আগে কোন অঞ্চলে হয়নি। তবে এসবের পেছনে এমপি শামীম ওসমানের অসামান্য অবদান রয়েছে। লিংকরোড থেকে শুরু করে শিক্ষাখাত, ডিজিটাল টেলিফোনের উন্নয়ন সহ জেলার দেড়শ বছরের কলঙ্ক পতিতাপল্লীকে উচ্ছেদ করে সোনার বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এ জেলাকে এগিয়ে নিয়েছে এমপি শামীম ওসমান। কিন্তু সেইসময় মেয়র আইভী জনতার মুখোমুখি অনুষ্ঠান করে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে চাইছে। এছাড়া মেয়র বলেছিলেন, সজল ভাইয়ের ১৬ নং ওয়ার্ডে ২১ কোটি টাকার কাজ হয়েছে। কিন্তু সজল ভাই বলছেন,  আমার ওয়ার্ডের কোথায়  ২১ কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে আমিতো জানিনা। এখানেই দুর্নীতির গন্ধ পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, ‘যানজট সমস্যা তো এমপি সেলিম ওসমান সমাধান কয়েছে নিতাইগঞ্জের ট্রাক স্ট্যান্ড সরিয়ে দিয়ে। এদিকে হকারদের পেটে লাথি মের তাদের কে উঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এটা কেন ? ফুটপাতে অবশ্যই হকার থাকবেনা। কিন্তু সেটা করতে হবে তাদেরকে সময় দেয়ার মধ্য দিয়ে। তাদেরও তো সংসার আছে। ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদের ৩ মাস আগে তাদেরকে নোটিশ দেয়া উচিত ছিল। এর পর তাদের জন্য পুনর্বাসন করে তাদেরকে উচ্ছেদ করা উচিত ছিল। মেয়র আইভী উদ্দেশ্যমূলক, ভ্রান্ত কথা বলে নিজের দোষ ঢাকার চেষ্টা করবেননা।

বিশেষ অতিথি ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ নাজমুল আলম সজল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসকে আমার নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা হবে ছাত্রলীগের নেতাদের কাজ। প্রকৃত ইতিহাস জানার মধ্য দিয়ে তার যেন সঠিক মানুষ হিসেবে গড়ে উঠে। আজকে নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগে পদ, পদবীধারী ও অনুসারী হয়ে আমাদের নেতা এমপি শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে কটুক্তি করছে। এসব নেতাদের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখার অনুরোধ রইল।’

মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন বলেন, ‘আজকে একটি পক্ষ স্বাধীনতার পক্ষের অবস্থান করছে। আরেকটি পক্ষ স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান করছে। তাই আমাদের মধ্যে আজকে এতো বিভেদ। নতুন প্রজন্মকে প্রকৃত শিক্ষার মধ্য দিয়ে এসব সমস্যা থেকে আমাদের দেশ ও দেশের মানুষদের রক্ষা করতে হবে।’

সভাপতির বক্তব্যে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফায়াত আলম সানি বলেন, ‘প্রকৃত মানুষ হওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত হয়ে মানুষর মত মানুষ হতে চাই। দেশ ও দশের কাজে না আসতে পারলে শিক্ষা অর্জনে কোন সার্থকতা থাকেনা। তাই প্রকৃত শিক্ষিত হয়ে বঙ্গবন্ধুর মত সবার সেবা করতে হবে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিল জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হক নিপু, মহানগর কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান লিটন, মহানগর আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক কবির হোসেন কবির, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান নান্নু প্রমুখ।

দিনব্যাপী শিশু কিশোর চিত্রাংকন মেলায় দুটি আর্ট স্কুলের প্রায় একশ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। ঘুড়ি আর্ট একাডেমি ও দেলপাড়া লিটন জিনিয়াস আর্ট একাডেমি দুটির শিক্ষার্থীরা এই চিত্রাংকন মেলাতে অংশগ্রহণ করেন। দিনব্যাপী চিত্রাংকন মেলাতে শিশু কিশোরদের আঁকা ছবিগুলো প্রদর্শন করা হয় এবং সকল শিক্ষার্থীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ