৫ আশ্বিন ১৪২৫, বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ১২:০৮ অপরাহ্ণ

বিএনপির পাশে নেই নেতারা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:০৬ পিএম, ১০ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার


বিএনপির পাশে নেই নেতারা

আগামী ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কয়েকদিন আগেও জেলা বিএনপির নেতারা এক মঞ্চে থাকলেও তাদের কর্মকান্ডে ধারাবাহিকতা দেখা যাচ্ছে না। আর এতে করে সমিতির নির্বাচনে বিএনপির প্যানেলভুক্ত অনেক আইনজীবী যখন তাদেরকে হুমকি প্রদানের অভিযোগ তুলছেন তখন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান ছাড়া আর কেউ প্রতিবাদী হচ্ছেন না।

এতে করে বিএনপির নেতাদের কঠোর সমালোচনাও করেছেন অনেক প্রার্থী। তারা বলেন, নিজেদের ওজন ভারী করতে সম্প্রতি জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সেক্রেটারী মামুন মাহমুদ, মহানগরের সভাপতি আবুল কালাম, সেক্রেটারী এটিএম কামাল সহ অনেক শীর্ষ নেতারাই আদালতপাড়ায় আসেন। কিন্তু নির্বাচনের পরিস্থিতিতে তারা তৈমূরকে একেবারে কোনটাসা করতে ব্যর্থ হন। সে কারণেই এখন প্রার্থীদের হুমকি প্রদান করা হলেও তাদের পাশে এসে কেউ দাঁড়াচ্ছে না।

আইনজীবীদের একটি অংশ জানান, আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের সভাপতি জহিরুল হক ও সেক্রেটারী আবদুল হামিদ খান ভাষানী সম্পর্কে তথ্য নিতে বুধবার সকালে তাদের বাড়িতে যান গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন। আর সে খবর আদালতপাড়া আসলে নানা গুঞ্জনে এটাকে বিকৃত করা হয়। প্রচার করা হয় এটা বিএনপির উপর একটি চাপ প্রয়োগ করতেই কাজটি করানো হয়েছে। এতে করে আদালতপাড়ায় রীতিমত লংকাকা- ঘটান বিএনপি। আর এতে প্রকৃতপক্ষে লাভ হয়েছে বিএনপির। তারা বুঝাতে সক্ষম হয়েছে যে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিএনপির উপর চাপ আসছে।

বিএনপি সমর্থিত অনেক আইনজীবী জানান, এর আগে সভাপতি ও সেক্রেটরী প্রার্থী নিয়ে রীতিমত যুদ্ধ চলতো। শীর্ষ নেতাদের মধ্যে অঘোষিত লড়াই থাকতো। সভাপতি পদে একাধিক প্রার্থী থাকলে সমঝোতা করে পরের বছরের জন্য একজনকে ম্যানেজ করা হতো। কিন্তু এবার সেটা হয়নি। আর সে কারণে অনেকে অভিযোগ করছেন তাদের নানাভাবে হুমকি দেওয়া হয়েছে। সে কারণেই অহেতুক ঝামেলা এড়াতে অনেক হেভিওয়েট প্রার্থী নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

আবদুল হামিদ খান ভাষানী বলেন, এই নির্বাচনে আমি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অপরাধে ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে ৫ হাজার টন চাপের মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করছি। এখনো বেঁেচ আছি আমার পরিবার পরিজনদের দোয়া ও আল্লাহর রহমতে। তারা আমাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য প্রতিনিয়তই হুমকি দিয়ে আসছে। যখন অনেক নেতাই তাদের হুমকির সম্মুখীন হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন নাই। তখন তারা আমার কথা মাথায় রাখেননি। এখন যখন প্রার্থী হয়েছি তখন হুমকিতে কাজ না হওয়ায় মোটা অংকের টাকাও অফার করছেন সরে দাঁড়ানোর জন্য। কিন্তু কোন লাভ হবে না যেহেতু আইনজীবী ও দলের জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছি মৃত্যু ছাড়া এই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবো না আল্লাহ চান তো।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, বিগত দিনেও চাপ এসেছিল। কিন্তু এবার চাপ আসছে যাতে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। আওয়ামী লীগ চাচ্ছে বিনা ভোটের ঐতিহ্য কায়েম করতে। তবে আমি সেটা হতে দিব না। আমি প্রার্থীদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছি। তাঁদেরকে সাহস দিচ্ছি।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, বিগত সময়ে আমি প্রত্যেক নির্বাচনে সকাল থেকে রাত অবধি ভোট গ্রহণের সময়ে আদালতপাড়ায় ছিলাম। ভোট শেষে প্রার্থীদের বাড়িও পৌছে দিয়েছি। তখনও অনেক প্রভাবশালী ও ক্ষমতাসীনরা রক্তচক্ষু দেখিয়েছে। তখন আমরা কেউ বায়াস্ট হই নাই। কিন্তু এবার ভোটের আগেই চাচ্ছে আমাদের প্রার্থীদের বসিয়ে দিয়ে বিনা ভোটের প্রহসনের নির্বাচন করতে। আমরা আওয়ামী লীগের বিনা ভোটের ঐতিহ্য কায়েম করতে দিব না।

আইনজীবী সমিতির নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ২০১৮-১৯ সালের কার্যকরী কমিটির বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ জানুয়ারি মঙ্গলবার। ৯ জানুয়ারি মঙ্গলবার থেকে ১১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টার মধ্যে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করতে পারবে। এছাড়াও আগামী ১২ জানুয়ারি শুক্রবার বিকেলে চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে বৈধ ঘোষণা করা হবে।

বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ প্যানেল থেকে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট জহিরুল হক ও সাধারণ সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ খান ভাষানী ভূইয়াকে চূড়ান্ত করা হয়েছে। এছাড়াও সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম খান রেজা, সহ-সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট আজিজ আল মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আব্দুস সামাদ মোল্লা, কোষাধ্যক্ষ পদে অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন মাসুম, আপ্যায়ন সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট সুমন মিয়া, লাইব্রেরী সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট একেএম ওমর ফারুন নয়ন, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম মাসুম, ক্রীড়া সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট সাইদুল ইসলাম সুমন, সমাজ সেবা সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট শারমীন আক্তার, আইন ও মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম মুক্তা, কার্যকরী সদস্য পদে অ্যাডভোকেট আমেনা আক্তার শিল্পী, অ্যাডভোকেট আহসান হাবিব গোলাপ, অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম আনু, অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান ফাহিম ও অ্যাডভোকেট আল আমিন সবুজ মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ