সোনারগাঁয়ে আইভীর সমর্থন কায়সারের টনিক

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৬ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সোমবার



সোনারগাঁয়ে আইভীর সমর্থন কায়সারের টনিক

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পেতে মেয়র আইভীর সমর্থন সাবেক এমপি কায়সারেরর জন্য টনিক হিসেবে কাজ করবে বলে মন্তব্য মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের। ইতিমধ্যে বেশকটি সমাবেশে সোনারগাঁয়ে এসে কায়সার হাসনাতের পক্ষেই অবস্থানের আভাস দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের আলোচিত মেয়র ডা.সেলিনা হায়াৎ আইভী। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচন থেকেই মেয়র আইভীর সঙ্গে হাসনাত পরিবারের সুসম্পর্ক রয়েছে।

এছাড়াও সোনারগাঁয়ে মেয়র আইভী বেশকটি অনুষ্ঠানে জোড়ালোভাবেই বলেছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সোনারগাঁয়ের মানুষ জাতীয়পার্টিকে দেখতে চায়না। সোনারগাঁও সহ জেলার ৫টি আসনেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জোড়ালো দাবি করি। একইভাবে এর কদিন পর মোগরাপাড়ায় কায়সারের একটি সমাবেশে জেলার ৫টি আসনেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দাবি করে ঘোষণা দিয়েছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল হাই ও সেক্রেটারি আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল। তবে আবদুল হাই ও শহীদ বাদল সোনারগাঁও কোন নেতার পাশে রয়েছে সেটা স্পষ্ট নয়। তাদের দাবি একটাই ৫টি আসনে নৌকা চাই। কিন্তু মেয়র আইভী আগামী জাতীয় নির্বাচনে কায়সারের প্রতি তার সমর্থন রয়েছে সেটাও বলে গিয়েছিলেন।

গত বছরের ২৮ অক্টোবর শনিবার সোনারগাঁয়ে একটি অনুষ্ঠানে সোনারগাঁয়ের রাজনীতি ও সন্ত্রাসীদের নিয়ে বক্তব্য দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। আইভীর ওই বক্তব্যে সোনারগাঁয়ে আওয়ামীলীগ ও জাতীয়পার্টির রাজনীতিতে তোলপাড় শুরু হয়। মেয়র আইভী কঠোর ভাষায় বলেছিলেন, সোনারগাঁয়ে নেতাকর্মীরা আর জাতীয়পার্টিকে এখানে দেখতে চায়না। একই সঙ্গে তিনি বলেছিলেন, নারায়ণগঞ্জের সন্ত্রাসীরা এখন সোনারগাঁয়ে। বালু সন্ত্রাসীদের থাবায় সোনারগাঁয়ের ঐতিহ্য বিলীনের পথে।’

তবে ওইদিন মেয়র আইভী নারায়ণগঞ্জের কাদেরকে সন্ত্রাসী বলেছেন যারা সোনারগাঁয়ে গিয়ে সন্ত্রাসী করছেন তা তিনি স্পষ্ট না করলেও রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের বুঝতে সমস্যা হয়নি। এছাড়াও তিনি ওই অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, আগামীতে এখানে জাতীয়পার্টিকে দেখতে চায়না নেতাকর্মীরা। এখানে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দিতে হবে। ওই মঞ্চে উপস্থিত সাবেক এমপি কায়সার হাসনাতের পক্ষে নেতাকর্মীদের কাছে সমর্থন চেয়েছিলেন মেয়র আইভী। এখানে এমপি রয়েছেন জাতীয়পার্টির মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা।

ওইদিন অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জের সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছিলেন, ‘বালু সন্ত্রাসের কড়াল থাবায় আজ বিলীন হয়ে যাচ্ছে সোনারগাঁয়ের ঐতিহ্য। সোনারগাঁয়ের এসব বালু সন্ত্রাসের সাথে যোগ হয়েছে নারায়ণগঞ্জের সন্ত্রাসীরাও। আপনারা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। সোনারগাঁয়ের নুনেরটেকে বালু সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে হবে। চারদিকে শুধু নেতা আর নেতা। আওয়ামীলীগের দুর্দিনে নেতা পাওয়া যায় না। এসব নেতারা বালু কেটে মানুষের ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন করে দিচ্ছে।’

গত বছরের ২৮ অক্টোবর বিকেলে সোনারগাঁয়ের পিরোজপুরে তাহেরপুর ঈদগাঁহ মাঠে শহীদ মিজানুর রহমানের ২৬তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ড. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এছাড়াও পরবর্তীতে সোনারগাঁয়ে কায়সার হাসনাতের আরো একটি সমাবেশে গিয়েছিলেন মেয়র। ওইদিন মেয়র আইভী আগামী জাতীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে কায়সার হাসনাতই যোগ্য বলে মত প্রকাশ করেছিলেন। তবে নারায়ণগঞ্জে এখন মেয়র আইভী আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী একজন। যে কারনে আইভীর এ সমর্থন কায়সার হাসনাতের মনোনয়ন পেতে টনিক হিসেবে কাজ করবে বলে মতামত নেতাকর্মীদের।

এদিকে যদিও এক সময় জেলার প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমানের বলয়ে রাজনীতি করেছিলেন সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান কালাম। পরবর্তীতে ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু এসে যোগ দেয় শামীম ওসমান বলয়ে। যে কারনে সোনারগাঁয়ে বিরুকে দীর্ঘদিন যাবত সহযোগীতা করে আসছেন জেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল। তবে উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামসুল ইসলাম ভুইয়াকে কখনও দেখা যায় বিরুর সঙ্গে আবার কখনও দেখা যায় কালামের সঙ্গে। তবে সোনারগাঁয়ে যে কজন মনোনয়ন প্রত্যাশি রয়েছেন তাদের মধ্যে যোগ্যতার দিকে এগিয়ে কায়সার হাসনাতই।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও