৩ আশ্বিন ১৪২৫, মঙ্গলবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ১০:২৬ অপরাহ্ণ

জামিন মিললেও শঙ্কা কাটছেনা বিএনপি নেতাকর্মীদের


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৪৩ পিএম, ১২ মার্চ ২০১৮ সোমবার


জামিন মিললেও শঙ্কা কাটছেনা বিএনপি নেতাকর্মীদের

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট মামলার রায়কে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে গত কয়েকদিন বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৭টি থানায় ১৩টি নাশকতার মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। যাতে ৬ শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে কয়েক হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। গ্রেফতার হয়েছে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের অন্তত ৮০ জন নেতাকর্মী। তবে ইতিমধ্যে ওই সকল নাশকতার মামলায় কয়েক শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জ আদালত থেকে জামিন পেয়ে কারামুক্ত হয়েছেন অনেক বিএনপি নেতাকর্মী। তবে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেলেও শঙ্কা কাটছেনা বিএনপি নেতাকর্মীদের। বিশেষ করে ২৮ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদ কারাগার থেকে মুক্তির পর ফের জেলগেট থেকে আটক করেছে পুলিশ। ১ মার্চ দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালতে মহানগর বিএনপির সহসভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের খোঁজে বার ভবনেও তল্লাশী চালিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও বেশ কিছু নেতার বাড়ি বাড়ি তল্লাশী চালিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এতে করে আবারো গ্রেপ্তারের শঙ্কা দেখা দিয়েছে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে।

জানা গেছে, ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদন্ড হয়েছে। ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ মো. আখতারুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন। খালেদার বড় ছেলে তারেক জিয়াসহ অন্য পাঁচ আসামিকে দেয়া হয়েছে ১০ বছরের কারাদন্ড। বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে তাঁকে ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়। একইসঙ্গে সাজাপ্রাপ্তদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

এদিকে ওই রায় ঘোষণার আগে থেকেই গত ৩ ফেব্রুয়ারী রাত থেকে নারায়ণগঞ্জে শুরু হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতার অভিযান। ৭টি থানার পুলিশ পৃথকভাবে ১৩টি মামলা করেছে যেখানে বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের ৬ শতাধিক নেতার নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো কয়েক হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।  গ্রেফতার করা হয় বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, জেলা বিএনপির সেক্রেটারী অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, মহানগর বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মাসুকুল ইসলাম রাজীব, মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক শাহেদ আহম্মেদ, জেলা সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট আনোয়ার প্রধান, নাসিকের ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইসরাফিল প্রধান, রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র ও বিএনপি নেতা আবুল বাশার বাদশা, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক মাসুদ রানা, যুবদল নেতা আরিফ মহসিন, সোনারগাঁও পৌর বিএনপির সহ সভাপতি সালাউদ্দিন, জামপুর ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক লুৎফর মেম্বার, পিরোজপুর ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সামছুল হক সরকার, পৌর বিএনপি নেতা আলমগীর, সোনারগাঁ থানা ছাত্রদল নেতা ওমর ফারুক, সোনারগাঁ থানা যুবদল নেতা সোহেল সহ প্রায় ৮০ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে।

এদিকে ওই সকল মামলা দায়েরের পর থেকে হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন লাভ করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির, সহসভাপতি শাহআলম, মহানগর বিএনপির সেক্রেটারী এটিএম কামাল, মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল, ফতুল্লা থানা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ও কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু, বিলুপ্ত শহর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, জেলা বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন সিকদার, বিএনপি নেতা সেলিম চৌধুরী, আজিজুল হক চৌধুরী, শফিকুল ইসলাম চৌধুরী, মনোয়ার হোসেন, মাসুদুর রহমান, আব্দুর খালেক টিপু, শরিফুল ইসলাম, সালাহউদ্দিন, নুরুল ইসলাম, মোস্তাফিজ, ইয়াসিন রহমান সুমন, এম ডি ইসমাইল খান, শহিদুল ইসলাম টিটুসহ শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী।

এছাড়া ১৫ ফেব্রুয়ারী বিকেলে সাখাওয়াত হোসেন খানসহ তিনজন নারায়ণগঞ্জ কারাগার থেকে মুক্তি পান। এর আগে সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আনিসুর রহমানের আদালতে জামিন পান নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এইচএম আনোয়ার প্রধান ও জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী পরিষদের সাবেক সদস্য অ্যাডভোকেট মাইনুদ্দীন রেজা।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি রবিবার হাইকোর্ট থেকে জামিন পান নজরুল ইসলাম আজাদ, সালাউদ্দীন মোল্লা, জুয়েল হোসেন, ছাত্রদল নেতা রাজীব মিয়া, এমডি মনির হোসেন, গাজী আহসান উল্লাহ, সুজন খান ও সুলতান উদ্দীন এই ৮ জন।

১৯ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট থেকে সদর, ফতুল্লা ও বন্দরের নাশকতার তিন মামলায় উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন পেয়েছেন মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। এছাড়া সদর ও ফতুল্লার মামলায় জামিন পেয়েছেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আকরাম প্রধান, ফতুল্লা থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক খন্দকার মনিরুল ইসলাম, সেক্রেটারী স ম নুরুল ইসলাম প্রমুখ। জামিনপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দ হলেন মো. ফারুক আহম্মেদ, আনোয়ার হোসেন আনু, মঈনুল হোসেন, মোঃ ইকবাল, মোঃ মনির হোসেন, মোঃ জনি, মাসুদুর রহমান আসলাম, সাদেকুর রহমান সাদেক, মজিবর রহমান দেওয়ান, এস এম নুরুল ইসলাম, মাজাহারুল ইসলাম ভূইয়া, নুর মোহাম্মদ পনেস, মাহবুবুর রহমান, শাহান শাহ আহম্মেদ, মনির হোসেন টিটু, আকতার হোসেন, মোঃ মোহসিন, ইকবাল হোসেন, সোহেল খান বাবু, মোঃ বিল্লাল হোসেন, সহিউদ্দিন সাউদ, কাজী বাদল, সাইফুল ইসলাম ভূইয়া, কামাল হোসেন মিন্টু, কাজী মাহাবুবুর রহমান সোহাগ, ইমাম উদ্দিন তোহা, হুমায়ুন কবির, মোঃ মহিউদ্দিন শিশির, কাউসার হামিদ খান।

২৫ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র ও পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আবুল বাশার বাদশা জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা জজ আদালত তাকে ১ বছরের অন্তবর্তীকালীন জামিন দেন। পরে বিকেল ৫ টারদিকে নারায়ণগঞ্জ কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন।

২৬ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানার নাশকতার মামলায় উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন পেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের দুজন কাউন্সিলর, সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিনের পুত্রসহ ১২ জন। আসামীদের পক্ষে আদালতে শুনানি করে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। জামিনপ্রাপ্তরা হলেন, নাসিকের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ ইকবাল হোসেন, সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিনের দুই পুত্র ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ সাদরিল ও গোলাম মোহাম্মদ সানভীর, মোঃ মোক্তার হোসেন, সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ রওশন আলী, মোঃ মনিরুজ্জামান মনির, মোঃ সোহেল, জুয়েল প্রধান, মোক্তার হোসেন, মোঃ সোহেল।

এছাড়া একইদিন বন্দর থানার নাশকতার মামলায় আলাদাভাবে জামিন পেয়েছেন নুরুদ্দিন হাজী ও নূর মোহাম্মদ পনেস। এদের মামলাও শুনানি করেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার।

২৬ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানায় নাশকতার মামলায় থানা বিএনপি ও ছাত্রদলের ৫৯ জন হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন পেয়েছেন। জামিন প্রাপ্তরা হলেন, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, পান্না মোল্লা, জেলা বিএনপি নেতা একরামুল কবির মামুন, অ্যাডভোকেট আলমগীর, আমজাদ শিকদার, হাবিবুর রশিদ রিপন, ফতুল্লা থানা ছাত্রদল নেতা জুয়েল আরমান, আবুল হোসেন পায়েল, ফয়সাল খান স্বপন, সাগর সিদ্দিকি, আরিফুল রহমান মানিক, সাইদ রেজা খান, আতিয়া রাব্বি, অনি, থানা যুবদলের আসলাম, গিয়াসউদ্দিন লাভলুসহ ৫৯ জন।

২৭ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুকুল ইসলাম রাজীব, বিএনপি নেতা সুরুজ্জামান, কাউন্সিলর ইসরাফিল ও যুবদল নেতা আনোয়ার হোসেন। এদের সকলের উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন।

২৭ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সোনারগাঁও উপজেলার বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফর ও জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুকুলসহ ১৩ জনকে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। মামলার অন্য আসামিরা হলেন- জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক হারুন-উর-রশিদ মিঠু, বিএনপি নেতা আতাউর রহমান, নিজাম উদ্দিন নিজাম, ফারুক আহমেদ তপন, হাবিবুর রহমান হাবু, আবেদ আলী মেম্বার,  খোরশেদ আলম, মনির মেম্বার, হুমায়ুন, বদরুল আলম ও শাহ আলমকে ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এদিকে উচ্চ আদালত ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালত থেকে বিএনপি নেতাকর্মীরা জামিন পেলেও শঙ্কা কাটছেনা বেশীরভাগ বিএনপি নেতাকর্মীদের। কারণ বিগত দিনে যেভাবে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে তাতে আগামী দিনে আবারো আন্দোলন করতে গিয়ে এ ধরনের মামলার আসামী হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না কেউই। এছাড়া বিগত দিনে দেখা গেছে নেতাকর্মীরা এক থানার মামলায় জামিন পেলেও অপর থানার মামলায় তাদেরকে শ্যোন এরেষ্ট দেখানো হয়েছে। ২৮ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদ কারাগার থেকে মুক্তির পর ফের জেলগেট থেকে আটক করেছে পুলিশ। ১ মার্চ দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালতে মহানগর বিএনপির সহসভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের খোঁজে বার ভবনেও তল্লাশী চালিয়েছে পুলিশ। এছাড়া ১ মার্চ থেকে মহানগর বিএনপির সেক্রেটারী এটিএম কামালসহ বিএনপি নেতাদের বাড়ি বাড়ি তল্লাশী চালাচ্ছে পুলিশ। তাই আগাম জামিন পেলেও বিএনপি নেতাকর্মীরা শঙ্কার মধ্যেই দিন কাটাচ্ছেন বলে জানা গেছে। জামিন পেলেও নিজ এলাকায় ফেরেননি অনেকেই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ