৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ১:৪২ পূর্বাহ্ণ

UMo

শামীম ওসমান কী একটু শুনবেন ‘বর্ষায় ভাসলেও সংকটে হাহাকার’


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩০ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৮ মঙ্গলবার


শামীম ওসমান কী একটু শুনবেন ‘বর্ষায় ভাসলেও সংকটে হাহাকার’

‘‘গত ২ মাস ধরে পানি আসছে না। মাঝেমধ্যে আসতো সেটা দিয়েও বাড়ির কাজ হতো না। আর ১৫ দিন ধরে তো একেবারেই আসছে না। বিভিন্ন জনের বাড়িতে গিয়ে ধর্না দিতে হচ্ছে এক বালতি পানির জন্য। আমাদের এমপি হলেন শামীম ওসমান। তিনি যদি বিষয়টা জানতেন ও শুনতেন তাহলে এতদিনে এ সমস্যার সমাধান হতো বলেই আমার বিশ্বাস।’’

কিছুটা আত্মবিশ্বাস নিয়েই এ প্রতিবেদকের কাছে কথাগুলো বলছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার চাঁদমারী এলাকার ভান্ডারী মিয়া। ষাটোর্ধ্ব এ বৃদ্ধ আরো বলেন, বর্ষার সময়ে আগে আমাদের এলাকা পানিতে ভাসতো। এবার শুনছি সেনাবাহিনী কাজ করতাছে। এবার কী হবে আল্লাহ জানে। কিন্তু এখন যেভাবে পানির কষ্ট করছি সেটা অকল্পনীয়। এক কথায় বর্ষার সময়ে আমাদের পানিতে ভাসতে হয় আর বর্ষা শেষে অন্য সময়ে পানির সংকটে থাকতে হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডিএনডি বাধের ভেতরে চাঁদমারী, পশ্চিম তল্লা, সবুজবাগ, আজমেরীবাগ, তল্লা চেয়ারম্যানপাড়া, সুপারীবাগ এলাকার লোকজন তীব্র পানি সংকটে ভুগছে। এসব এলাকাতে ওয়াসার লাইন থাকলেও সেখানে থাকে না পানি। গত ২ মাস ধরে পানির সংকট প্রতিদিন তীব্রতর হচ্ছে। মাঝেমধ্যে ওয়াসার পানি পাওয়া গেলেও গত ১৫ দিন ধরে ওয়াসার লাইনে পানি আসছে না। যাদের টাকা আছে তারা গভীর নলকূপ বসাতে পারলেও নি¤œবিত্তদের মাথায় হাত। তাছাড়া অনেক ভবন মালিক যারা ওয়াসার উপর নির্ভর ছিলেন তারা পড়েছেন আরো বেকায়দায়। এসব ভবনের ভাড়াটিয়ারা পানির সংকটের কারণে অন্যত্র চলে যাচ্ছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, ওয়াসা প্রতি মাসে বিল নিচ্ছে ঠিকই কিন্তু পানি দিতে পারছে না। এতে করে লোকজন মারাত্মক ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

পশ্চিম তল্লা এলাকার পুনম সরকারের স্ত্রী মাধবী সরকার জানান, পানি সংকটের কারণে নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। এমনকি সাংসারিক কাজ করার চরম ব্যাঘাত ঘটছে।

তল্লা আজমেরীবাগ এলাকার স্থানীয় মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ওয়াসার পানি সংকট নিয়ে প্রতিবছর ভোগান্তির শিকার হতে হয়। বিশেষ করে ওয়াসার পানি সংকটের কারণে প্রতিটি পরিবারকে নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। বিকল্প হিসেবে সাংসারিক কাজের জন্য শীতলক্ষ্যার পানি ব্যবহার করার জন্য অনেকেই মরিয়া হয়ে উঠলেও বর্তমানে শীতলক্ষ্যার পানি বিভিন্ন মিল-ফ্যাক্টরীর ক্যামিকেলের কারণে দূষিত হওয়ায় ব্যবহার করার অনুপযোগী হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ভুক্তভোগীদের মতে, এমপি শামীম ওসমান একটু সচেষ্ট হলেই আমাদের এ পানি সংকটের সমাধান সম্ভব। কারণ তিনি বর্ষার পানি ভাসার সমাধান করতে পেরেছেন। এবার তিনিই পারেন পানির সংকটের হাহাকার দূর করতে।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ