১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, সোমবার ২৮ মে ২০১৮ , ৪:০৬ অপরাহ্ণ

আওয়ামী লীগের কেউ দখলে বাধা দিলে শাস্তি দ্বিগুণ : শামীম ওসমান


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৪২ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০৯:১০ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৮ বুধবার


আওয়ামী লীগের কেউ দখলে বাধা দিলে শাস্তি দ্বিগুণ : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, জলাশয় আইন মোতাবেক এগিয়ে গেলে অনেকের বাড়ি ঘর থাকবে না। বড় বড় বিল্ডিং ভাঙা পড়বে। জলাশয় নিরসনে যে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। যেকোন উপায়ে রাস্তা ও উঠান থেকে পানি সরাতে হবে। আমি এত কিছু বুঝি না। আমার এলাকার মানুষের কষ্ট করতে দিব না। কে কার লোক আমার দেখার সময় নাই। খাল দখল করেছো ড্রেন বন্ধ করে বালু দিয়ে জমি ভরাট করেছো তা হতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, এখনো বর্ষা শুরু হয় নাই। এখনই এলাকার কি অবস্থা। রাস্তায় পানি জমে অনেক এলাকায় কৃত্রিম বন্যায় রূপান্তরিত হয়ে গেছে। আগামীতে বৃষ্টির মৌসুম আসছে। এখন থেকে আমাদের সচেতন ও সচেষ্ট হতে হবে। কোন অবস্থাতেই খাল দখল করতে দেওয়া হবে না। পানি নিস্কাশনের খালগুলো দখলমুক্ত করতে হবে। যেখানে খাল দখল সেখানেই উচ্ছেদ।

শামীম ওসমান আরও বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন করতে চাই। সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই। উন্নয়নের ক্ষেত্রে কে কোন দল করে তা দেখার প্রয়োজন নাই। আওয়ামী লীগের কোন লোক বাধা দিলে তার শাস্তি হবে দ্বিগুণ। জলাবদ্ধতা দূর করতে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে এবং পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে হবে।

বুধবার (২৫ এপ্রিল) দুপুরে ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরী এলাকাসহ আশে পাশের জলাবদ্ধতা এলাকা পরিদর্শন করে শামীম ওসমান এসব কথা বলেন। ওই সময়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমানও উপস্থিত ছিলেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিকেএমইএ সাবেক সহ সভাপতি মুহাম্মদ হাতেম, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হোসেনে আরা বীনা, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান, মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শাহ নিজাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফতুল্লা থানা যুবলীগের সভাপতি মীর সোহেল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু মো: শরীফুল হকসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জে কল্যাণী খালসহ শাখা খালগুলো দখল করে গড়ে উঠেছে অবৈধ অর্ধ-শতাধিক স্থাপনা। এতে খাল সরু হয়ে ময়লা-আবর্জনা জমে সদর উপজেলা ও ফতুল্লার শিল্পাঞ্চলের পানি নিষ্কাশন বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় নাকাল নগরবাসী। স্থানীয়ভাবে যেটি কাইল্যানী খাল নামে পরিচিত। ফতুল্লার মাসদাইর পুলিশ লাইন থেকে শুরু হওয়া এই খাল শাসনগাঁও হয়ে কাশিপুর বুড়িগঙ্গা নদীতে মিশেছে। এক সময় বড় বড় নৌকা চলাচল করত এই খালে। কিন্তু কালের বিবর্তনে, খালটি বেদখল হয়ে যাওয়ায় এখন জরাজীর্ণ। অবৈধভাবে দোকানপাট, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান আর দ্বি-তল ভবন গড়ে তোলায় খালটিতে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা প্রায় বন্ধ। ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই মাসদাইর, শাসনগাঁও, ফাজিলপুরসহ কয়েকটি শিল্পনগরীর রাস্তায় দেখা দেয় জলাবদ্ধতা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকার কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি ও শিল্প মালিকরা অবৈধভাবে খাল দখল করায় পানি বুড়িগঙ্গায় পৌঁছাতে পারে না। ফলে জলাবদ্ধতার শিকার হয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হয় এলাকাবাসীসহ কয়েক লাখ শ্রমিককে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ