৫ কার্তিক ১৪২৫, রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ , ৮:৫২ পূর্বাহ্ণ

UMo

‘গডফাদারে নাখোশ পলাশ, চাঁদাবাজে খোশ’


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:২১ পিএম, ৭ মে ২০১৮ সোমবার


‘গডফাদারে নাখোশ পলাশ, চাঁদাবাজে খোশ’

দুইটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার একটিতে গডফাদার লেখায় নাখোশ হয়ে মামলা দায়ের করেছিলেন কাউসার আহমেদ পলাশ কিন্তু আরেকটি পত্রিকায় চাঁদাবাজ লিখলেও তাতে নাখোশ হননি তিনি।

সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের হানিফ খান মিলনায়তনে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পলাশ ওই কথা বলেন যিনি জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যান বিষয়ক সম্পাদক।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করেন, সম্প্রতি যুগান্তর সহ বেশ কিছু পত্রিকার বিরুদ্ধে আপনি (কাউসার আহমেদ পলাশ) মামলা করেছেন তবে কেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিরুদ্ধে মামলা না করে সংবাদ সম্মেলন করতে এসেছেন।

এর প্রেক্ষিতে কাউসার আহমেদ পলাশ সাংবাদিকদের বলেন, ‘যুগান্তর পত্রিকা আমাকে গডফাদার লিখেছে তবে বাংলাদেশ প্রতিদিন গডফাদার লেখে নাই। তাই আমি মামলা করিনি বরং সংবাদ সম্মেলন করতে এসেছি।’

এখানে উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সংবাদে একাংশে নূর হোসেনের সঙ্গে পলাশকে তুলনা করা হয়।

এর আগে গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে আরেক ‘নূর হোসেন’ ফতুল্লার ‘গডফাদার পলাশ’ ও তার ‘চার খলিফা’ শিরোনামে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। এছাড়া পলাশের কোন নাম না থাকালেও একটি সংবাদের রেশ ধরে সময়ের নারায়ণগঞ্জ, ডান্ডিবার্তা ও অনলাইন নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকমের ৫ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ২০ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেন ও দুইটি তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা করেন। এর মধ্যে দৈনিক যুগান্তরের ফতুল্লা প্রতিনিধি আলামিন প্রধানের বিরুদ্ধে ১০ কোটি, ইত্তেফাকের নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা ও স্থানীয় দৈনিক ডান্ডিবার্তা পত্রিকার সম্পাদক হাবিবুর রহমান বাদলের বিরুদ্ধে ৫ কোটি এবং দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক জাবেদ আহমেদ জুয়েলের বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেন। একই সঙ্গে আলামিন প্রধান ও নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক তানভীর হোসেনের বিরুদ্ধে দুইটি ৫৭ ধারায় মামলা করেন। শুধু মামলা নয় তার বাহিনীর সদস্যরা ফতুল্লায় মিছিল করে সাংবাদিকদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি দেয়।

কিন্তু গত ৫  মে ‘এক পলাশেই সর্বনাশ’ শিরোনামে ও  নারায়ণগঞ্জে শ্রমিকলীগের নাম তা-ব, চাঁদার জন্য ৩৬ শিল্প-কারখানা বন্ধ, এলাকা ছাড়ছেন ব্যবসায়ীরা’ বিশেষণে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। এ সংবাদ প্রকাশের দুইদিন পর (৭ মে) নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে এসে সংবাদ সম্মেলন করলে সাংবাদিকেরা ওইসব প্রশ্ন করে।

এছাড়াও কেন হঠাৎ তার বিরুদ্ধে এমন সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে? সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, ‘৪ আসন থেকে মনোনয়ন চাইবো আর দলীয় সিনিয়র নেতা (আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী ওবায়দুল কাদের) যাত্রা বিরতিতে আমরা বাসায় আসার পর থেকেই এ ধরনের সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। এছাড়াও জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন চাইবো তাই ওই আসনে প্রার্থীরা এ ধরনের সংবাদ কারতে ইন্ধন উস্কে দিচ্ছে।’

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা কারা প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘নিজ দলীয় ও বিএনপির দলীয় মনোনয়ন প্রার্থীরাই হতে পারে। আমি নির্দিষ্ট কারো নাম বলতে পারছি না। তবে শামীম ওসমান এক সময় আমরা দলীয় নেতা ও বড় ভাই আমি ছোট ভাই এমন সম্পর্ক ছিল।

তবে বর্তমানে কেমন সম্পর্ক সেই প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান। শুধু এই প্রশ্ন নয় এমন অনেক প্রশ্নের গোজা মিল দিয়ে উত্তর দেন কাউসার আহমেদ পলাশ। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর না দিতে পেরে হঠাৎ করে নিজ থেকেই সমাপ্ত ঘোষণা করে চলে যান তিনি।

এছাড়াও লিখিত বক্তব্য পাঠ করে কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, ‘আমি কোন ধরনের অপরাধী কর্মকান্ড কোন ধরনের চাঁদবাজির সাথে জড়িত না। আমি শ্রমিক রাজনীতি করি। এছাড়াও বাংলাদেশ প্রতিদিনের সংবাদে চাঁদার জন্য ৩৬ শিল্প-কারখানা বন্ধ লেখার বিষয়ে কোন প্রকার ডকুমেন্ট ছাড়াই বলেন পাইওনিয়ার ছাড়া আর সব গার্মেন্ট চালু আছে। এ বিষয়ে প্রথম আলো পত্রিকায় ওই সংবাদ প্রকাশ হয়েছিল কিন্তু তখন তিনি এ বিষয়ে কোন প্রতিবাদও করেননি।

বুড়িগঙ্গার তীরে ওয়াকওয়ে দখল ও ধ্বংস করার অভিযোগ এনে বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তার ফতুল্লা থানার জিডির বিষয়ে কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, পাগলার মেরি এন্ডারসন থেকে আলীগঞ্জ ফিশারিজ ঘাট পর্যন্ত বুড়িগঙ্গা তীরে ওয়াকওয়ে বানানোই হয়নি। যেটি বানানো হয়নি সেটি ভাংবো কিভাবে?

এসময় উপস্থিত ছিলেন কাউসার আহমেদ পলাশের খালাতো ভাই ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত, পলাশের সহযোগী শাহাদৎ হোসেন সেন্টু ও আবুল হোসেন প্রমুখ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ