৬ কার্তিক ১৪২৫, রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ , ৫:১৯ অপরাহ্ণ

UMo

বার কাউন্সিলর নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জেও বিএনপির ভরাডুবি


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৪৭ পিএম, ১৫ মে ২০১৮ মঙ্গলবার


বার কাউন্সিলর নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জেও বিএনপির ভরাডুবি

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীদের ভরাডুবির মতই নারায়ণগঞ্জে বিএনপির আইনজীবীদের ভরাডুবি ঘটেছে। কারণ এখানে ৭টি পদের মধ্যে ৫টি পদের প্রার্থী নির্বাচিত হন আওয়ামীলীগের সমর্থিত প্যানেলের প্রার্থীরা। এদের মধ্যে তৈমূর আলম খন্দকারের ‘মাদারবার’ হিসেবে এখানে প্রথম হলেও তিনি নির্বাচিত হতে পারেননি।

জানা গেছে, এ নির্বাচনে সাধারণ আসনে বিএনপির সমর্থিত প্যানেল থেকে প্রার্থী ছিলেন অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতিতে সর্বোচ্চ ভোট পেলেও জয়ী হতে পারেননি। নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জের আইনজীবী সমিতিতে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন। কিন্তু তিনি সারাদেশের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হতে পারেননি।

সোমবার সকাল থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট  গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নারায়ণগঞ্জের ১ হাজার ১ ভোটের মধ্যে ৭শ ৭৬ জন আইনজীবী তাদের ভোট প্রয়োগ করেন। যার মধ্যে তৈমূর আলম খন্দকার ৫’শ ৮৩ ভোট পেয়ে এখানে প্রথম স্থান অধিকার করেন। এছাড়াও আওয়ামীলীগ প্যানেল থেকে অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার ৪’শ ৪৭ পেয়ে দ্বিতীয়, বিএনপি প্যানেলের অ্যাডভোকেট সৈয়দা আশিফা আশরাফী পাপিয়া ৩’শ ৭০ ভোট পেয়ে তৃতীয়, অ্যাডভোকেট এ.জে.মোহাম্মদ আলী ৩’শ ৫১ ভোট পেয়ে ৪র্থ, আওয়ামী প্যানেলের অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ন ৩’শ ৪৯ ভোট পেয়ে ৫ম, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান ৩’শ ৪৮ ভোট পেয়ে ৬ষ্ঠ, অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না ৩’শ ৪০ ভোট পেয়ে ৭ম ও বিএনপি প্যানেল থেকে অ্যাডভোকেট বোরহান উদ্দিন ৩’শ ৩৩ ভোট পেয়ে ৮ম হন। এছাড়াও গ্রুপ আসনে আওয়ামীলীগ প্যানেলের অ্যাডভোকেট কাজী নজিবুল্লাহ হিরু ৪’শ ৫৬ ভোট এবং বিএনপি প্যানেলের প্রার্থী মোঃ মহসিন মিয়া ৩’শ ১৪ ভোট পান।

সোমবার আইনজীবীদের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনের ভোট নারায়ণগঞ্জে শান্তিপূর্ণভাবে গ্রহণ হয়েছে। সোমবার সকাল থেকে বিরতিহীনভাবে অন্তত্য আনন্দঘন পরিবেশে এ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নারায়ণগঞ্জ আদালতের জজ কোর্টে দুটি বুথে এ ভোট গ্রহণ করা হয়। ১ হাজার ১ ভোটের মধ্যে ভোট প্রদান করেছেন ৭শ ৭৬জন আইনজীবী।

এ নির্বাচনে বিএনপি প্যানেলের পক্ষে কাজ করতে দেখা গেলে বিএনপির সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল বারী ভুইয়া, সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট নবী হোসেন, আইনজীবী ফোরামের নেতা অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন, অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবির, অ্যাডভোকেট খোরশেদ আলম মোল্লা, অ্যাডভোকেট আজিজুর রহমান মোল্লা, সমিতির ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট আজিজ আল মামুন, কোষাধ্যক্ষ অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন মাসুম, অ্যাডভোকেট আশরাফুল আলম সিরাজি রাসেল, আইনজীবী ফোরামের নেতা অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলুর মত আইনজীবী নেতারা। কিন্তু তারা আশানুরূপ ফল এখান থেকে আদায় করতে পারেননি।

অন্যদিকে আওয়ামীলীগ প্যানেলের পক্ষে প্রতিদিনই কাজ করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, মহানগর আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদ উর রউফ, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ, আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট এসএম ওয়াজেদ আলী খোকন, আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ মোহসীন মিয়ার মত আইনজীবীরা। বলা যায় তাদের সকলকে জয়ী করতে না পারলেও এবার তারা সফলই হয়েছে বিএনপির তুলনায়।

জানা গেছে, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনে নির্বাচনের জন্য বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলে সাধারণ আসনে মনোনীতরা হলেন-বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট এজে মোহাম্মদ আলী, অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, অ্যাডভোকেট আবু আব্বাস চৌধুরী, অ্যাডভোকেট বোরহান উদ্দীন, অ্যাডভোকেট হেলাল উদ্দীন মোল্লা ও অ্যাডভোকেট সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া এবং ঢাকা বিভাগের এ গ্রুপে অ্যাডভোকেট মো. মহসিন মিয়া অংশগ্রহণ করেছেন।

অন্যদিকে এ বছরে বার কাউন্সিল নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ থেকে সাধারণ আসনে অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, অ্যাডভোকেট শ.ম রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট জেড. আই. খান পান্না, অ্যাডভোকেট পরিমল চন্দ্র গুহ, অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমান বাদল এবং ঢাকা বিভাগের এ গ্রুপ থেকে অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরু অংশগ্রহণ করেছেন।

নির্বাচনের পর বার কাউন্সিলের সূত্র অনুসারে, সারাদেশের ৭৮টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ শেষে রাতেই আলাদা করে কেন্দ্রগুলোতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সেই তথ্য অনুসারে নির্বাচিত ১৪টি পদের মধ্যে ১২টি পদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে, বিএনপি মাত্র দুটি পদে জয়লাভ করেছে। যার মধ্যে একটি সাধারণ আসনে অপরটি গ্রুপ  আসনে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ