৬ আষাঢ় ১৪২৫, বুধবার ২০ জুন ২০১৮ , ৫:২০ অপরাহ্ণ

বিএনপি নেতাদের পরিবারে দুবির্ষহ ঈদ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:২৩ পিএম, ১৩ জুন ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০৫:৩৬ পিএম, ১৭ জুন ২০১৮ রবিবার


বিএনপি নেতাদের পরিবারে দুবির্ষহ ঈদ

ঈদ মানে আনন্দ ঈদ মানে খুশি। তবে সেই আনন্দ ও খুশির রেশ এবার নারায়ণগঞ্জে বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত দুটি পরিবারে নেমে এসেছে অমানিশা। যে ঈদে আনন্দ করার কথা সেই ঈদ এবার তাদের জন্য হয়ে এসেছে হাজারগুণ কষ্টের বেদনার। বিএনপির দুটি পরিবারের মধ্যে তৈমূর আলম খন্দকার পবিবার ও অপরটি সাবেক এমপি আবুল কালামের পরিবার। যদিও এরকম নারায়ণগঞ্জে বিএনপির আরও অনেক নেতাকর্মীদের পরিবারে একই অবস্থা বিরাজ করছে। এছাড়াও কারাগারে আছে যুবদল নেতা জুলহাস।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ রয়েছেন কারাগারে। গত ১৯ মার্চ থেকে মাসদাইর আদর্শ স্কুলে ওয়ার্ডবাসীর মাঝে স্মার্টকার্ড বিতরণের সময় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন তিনি। সেই থেকে ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ ও সদর থানার বেশকটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরবর্তীতে গত ২৩ মে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়ে নারায়ণগঞ্জ কারাগার থেকে বের হলেও কারাগারের সামনে থেকে আবারো সদর মডেল থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে খোরশেদকে। ওই মামলায় দুদিন রিমান্ডেও নেয় পুলিশ। সবশেষ ১৩ জুন জামিন পেলেও সিদ্ধিরগঞ্জের একটি নাশকতা মামলায় তাকে আবারও শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয়।

এদিকে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউসার আশাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গত শনিবার ৯ জুন নারায়ণগঞ্জ শহরে মিছিল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরদিন নাশকতার মামলা দায়ের করে আশাকে আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। ওইদিন আদালতের সামনে গাড়ি থেকে নামতে পারছিলেন না আশা। দুটি পা নাড়াতেই পারেননি তিনি। নেতাকর্মীদের অভিযোগ ওইদিন রাতে থানায় নিয়ে তাকে তিন দফা নির্যাতন করা হয়েছে। টেবিলের নিচে মাথা ঠেকিয়ে আশাকে মারধর করে পুলিশ। ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠালে পরদিন রিমান্ড শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার কারাগারে পাঠানো হয় আশাকে।

এদিকে ঈদের আগে কারাগার থেকে বের হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন না নেতাকর্মীরা। কারণ উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিলেও নারায়ণগঞ্জ কারাগার থেকে বের হলেই আবারো নতুন মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। যে কারনে ঈদের আগে তার মুক্তি হওয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে। উচ্চ আদালত থেকে জামিন পাওয়া গেলেও

অন্যদিকে শনিবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া আশা ঈদের আগে জামিন হচ্ছে সেটা প্রায় নিশ্চিত। কারন ঈদের আগে মাত্র দুদিন বাকি। এ দুদিনের মধ্যে জামিন শুনানি হওয়ার সম্ভাবনা কম। আর জামিন চাইলেও জামিন মঞ্জুর না হলে কারাগারেই ঈদ করতে হবে। আর জামিন হওয়ার পরেও কারাগারে ঈদ করতে হবে পারে যদি আবারো খোরশেদের মত তাকেও কারাগারেরর সামনে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ