৭ শ্রাবণ ১৪২৫, সোমবার ২৩ জুলাই ২০১৮ , ১১:৫৭ পূর্বাহ্ণ

ফটোসেশনের প্রচারণা শেষে কামাল মৃধার নিরবতা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৫:৪৭ পিএম, ১৯ জুন ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৭:৪২ পিএম, ২১ জুন ২০১৮ বৃহস্পতিবার


ফটোসেশনের প্রচারণা শেষে কামাল মৃধার নিরবতা

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রার্থী হিসেবে আবিভূত হওয়া কামাল মৃধা একেবারে নিশ্চুপ অবস্থানে রয়েছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে এই নেতাকে রমজান মাসে ঈদ সামগ্রী ও ইফতার সমাগ্রী বিতরণ করার কোন বালাই দেখা যায়নি। হঠাৎ করে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য পদ বাগিয়ে নেওয়া এই নেতা সুসময়ের মাছির মত উদয় হলেও এই সিয়াম সাধনার মাসে জনস্বার্থে ত্যাগ করার সময়ে নিজেকে ফের চুপসে নিয়েছে।

এতে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘এই নেতা সুসময়ের মাছির মত কখনো বিএনপি কখনো আওয়ামীলীগে যোগদান করে পদ বাগিয়ে নিচ্ছে। আবার মনোনয়ন প্রত্যাশা করে নতুন কোন মতলব আটছে। অথচ এমপি হওয়ার স্বপ্ন দেখা এই নেতা জনস্বার্থে কোন দায়িত্বই পালন করছেনা।’

প্রত্যেক বছর রমজান মাসে ও ঈদের আগে ইফতার সামগ্রী ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ করে আসছে। তবে এ বছরের শেষান্তে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। একারণে এই রমজান মাসে ইফতার সামগ্রী ও ঈদ বস্ত্র বিতরণ করার ঢল দেখা যায়। অন্য সব বছরের  তুলনায় এ বছর আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বচনকে ঘিরে নেতাদের একটু বেশি তৎপর দেখা গেছে। বিশেষ করে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের এসব তৎপরতা সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। এতে করে নির্বাচনের অদৃশ্যমান প্রভাব অনুমান করা গেলেও গরীর মানুষদের অনেক উপকারে আসছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। কিন্তু এই পুরো রমজান মাসে কামাল মৃধাকে ঈদ সামগ্রী কিংবা ইফতার সামগ্রী বিতরণের কোন দৃশ্যই দেখা যায়নি। এতে করে জনমনে নানা প্রশ্নের উদয় হচ্ছে।

জানাগেছে, ‘এর আগে নৌকা প্রতিকে নির্বাচন করার প্রত্যয় নিয়ে ফেসবুক প্রচারণা চালানো নেতা কামাল মৃধা ২৮ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলন করে আসন্ন নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিতে গিয়ে নিজে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন। কারণ ওই সম্মেলনে তার রাজনৈতিক পিতা ও গুরু মহানগর আপওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের কাধে বন্দুক রেখে ঘোলা পানিতে মংস্য শিকার করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। কারণ পল্টিবাজ হিসেবে পরিচিত এই নেতার সেই মিথ্যাচার উল্টো তার মুখোশ খুলে দিয়েছে। ওই দিনের সম্মেলনে কামাল মৃধা বলেন, ‘তার রাজনৈতিক গুরু আনোয়ার হোসেনের কথায় তিনি আওয়ামীলীগ ছেড়ে বিএনপিতে যোগদান করেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু তার কথিত গুরু আনোয়ার হোসেন সেই কথা অস্বীকার করেন। এতে করে তার মিথ্যাচারের বিষয়টিতে রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার ঝড় উঠে। এরপরে তিনি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে কর্মীবিহীন প্রচারণায় নামলে তাও ব্যর্থতায় পরিণত হয়।

তবে দলের নেতাকর্মীরা বলছেন, ‘এই নেতাকে কখনো রাজপথে দেখিনি। হঠৎ করে উদয় হওয়া এই নেতা দলের জন্য কিছু না করেই মনোনয়ন প্রত্যাশা করে কি করে। কামাল মৃধার মত নেতারা যদি পদ-পদবী ও মনোনয়ন পেয়ে যায় তাহলে দলের ত্যাগী নেতাদের অবমূল্যায়ন করা হবে। আর এসব পল্টিবাজ নেতাদের দিয়ে কোন ভরস নেই। ইতোমধ্যে এই নেতা সুসময়ের মাছির মত কখনো এই দল কখনো ওই দলে তরী ভিড়াচ্ছে। কিন্তু দুঃসময়ে যারা দলকে আগলে রেখেছে সেসব নেতাদের মূল্যায়ন করা উচিত। এসব হাইব্রিড নেতাদের নয়। তাছাড়া এই নেতা ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন মিশন বাস্তবায়নে নামে। আর তিনি যদি জনস্বার্থে কাজ করতো তাহলে অন্তত পক্ষে এই মাসে দলের গরীব নেতাদের পাশে এগিয়ে আসতে পারতো। দলের গরীব নেতাকর্মীতো দূরের কথা তিনি এই মাসে কাউকে ঈদ বস্ত্র ও ইফতার সামগ্রী দিয়ে সাহায্য করেননি। এতেই বুঝা যায়, এসব নেতারা নিজেদের স্বার্থ রক্ষার্থে একেক সময় উদয় হয়। আর কাজ ফুরিয়ে গেলে চুপসে যায়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, ‘আসন্ন নির্বাচনের আগে পরিচিতি অর্জন এবং স্বার্থ হাসিলের লক্ষ্যে অনেক নেতারা মনোনয়ন প্রত্যাশা করে মাঠ গরম করে রাখে। এসব নেতাদের স্বার্থ হাসিল হয়ে গেলে চুপসে যায়। এছাড়া স্বার্থ হাসিলে লাভের চেয়ে লোকসান বেশি গুণতে হয় তাহলে এসব নেতারা নতুন কৌশল অবলম্বন করে থাকে। আর ত্যাগ স্বীকারের সময় পিছু হাটে এটা তাদের বৈশিষ্ট। আর এসব নেতারা প্রচন্ড পরিমানে ম্যানেজ পটু টাইপের হয়ে থাকে। তাই এসব হাইব্রিড নেতারা একবার সূচ হয়ে প্রবেশ করতে পারলে ফাল হয়ে বের হয়। আর গুছানো সবকিছুকে ধীরে ধীরে তছনছ করে দেয়।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘মনোনয়ন প্রত্যাশী করে বেশ তৎপর হয়ে ওঠা এই নেতা রমজান মাসে গরীব দুস্থদের জন্য কিছুই করেনি। এতে করে তার উদ্দেশ্য বুঝার আর কিছু বাকি থাকেনা। তাছাড়া কেন্দ্র থেকে দলের হাইব্রড নেতাদের অপসারণের এতো তোড়জোড় থাকলেও এসব নেতারা নতুন নতুন মিশন নিয়ে হাজির হচ্ছে। এতে করে দলের প্রতি নেতাকর্মীদের আস্থা হারাচ্ছে। আর ত্যাগী নেতারা মনক্ষুন্ন হয়ে সরে যাচ্ছে। এতে করে সাংগঠনিকভাবে দল ও দলের নেতাকর্মীরা পিছিয়ে পড়বে। আর এতে করে বিরোধীরা সুযোগ নিতে চেষ্টা করবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ