৬ কার্তিক ১৪২৫, সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ , ৬:২২ পূর্বাহ্ণ

UMo

নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে ক্ষমতাহীন চেয়ারের সভাপতি সেক্রেটারি


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:১৬ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৮ রবিবার


নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে ক্ষমতাহীন চেয়ারের সভাপতি সেক্রেটারি

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির ও সেক্রেটারি অধ্যাপক মামুন মাহামুদ কার্যত ক্ষমতাহীন চেয়ারের সভাপতি ও সেক্রেটারি। আড়াইহাজার উপজেলার দুটি পৌর নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির কোন কর্তৃত্বই দেখা গেল না। এখানে দুটি পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী দিতেই পারলেন না কাজী মনিরুজ্জামান ও মামুন মাহামুদ। আড়াইহাজার উপজেলা বিএনপির রাজনীতি এখন চলে গেছে কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতাদের হাতে। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় বিএনপির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এএম বদরুজ্জামান খান খসরুর মৃত্যুর পর আড়াইহাজার থেকে জেলা বিএনপি পুরোপুরি কর্তৃত্ব হারিয়েছে।

নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, এর আগে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার যখন জেলা বিএনপির সভাপতি ছিলেন তখন জেলার ইউনিয়ন পরিষদ পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও তিনি সার্বক্ষনিক নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক করে প্রার্থী বাছাই করেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র। আড়াইহাজার ও গোপালদি পৌরসভা নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনির ও সেক্রেটারি অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে কোন দায়িত্ব পালন করতেই দেখা যায়নি প্রার্থী বাছাইয়ে।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদের একক মতে পারভীন আক্তারকে আড়াইহাজার পৌরসভায় ও গোপালদি পৌরসভায় মুশফিকুর রহমান মিলনকে প্রার্থী করা হয়। এ দুটি প্রার্থী বাছাইয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের কোন মতামত গ্রহণ করা হয়নি। এককভাবে আজাদ প্রভাব খাটিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের অবমুল্যায়ন করে পারভীন আক্তার ও মিলনকে প্রার্থী করেন।

এ দুজন প্রার্থী বাছাইয়ের বিরোধীতা করেছিলেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবু। এমনকি সদ্য প্রয়াত খসরু ও সাবেক এমপি আতাউর রহমান আঙ্গুর এবং তাদের নেতাকর্মীদের মতামতকেও প্রাধান্য দেয়া হয়নি।

এদিকে গত সপ্তাহে নারায়ণগঞ্জ শহরে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক জুয়েল হোসেনের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার এখনো কোন কুলকিনারা করতে পারেনি বিএনপি। জুয়েল হোসেন হলেন আজাদের অনুসারি। এ বিষয় নিয়ে আজাদের সঙ্গে হাবিবুর রহমান হাবুর বিরোধ সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে থানায় জিডিও করেছেন হাবিবুর রহমান হাবু। ফলে আগামী দুটি পৌর নির্বাচনে বিএনপির কি ফলাফল করবে সেটা এখনই অনুমেয়।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার উপজেলার দুটি পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির একক প্রার্থী দেয়া হয়। এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী কোন প্রার্থী না থাকলেও এ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন একজন। দুটি পৌর নির্বাচনী লড়াইয়ে নেমে পড়েছেন ৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশি।

আড়াইহাজারে সদর পৌরসভার আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুন্দর আলী ভূইয়া এবং বিএনপি থেকে মনোনীত প্রার্থী উপজেলা মহিলা দলের সভাপতি পারভীন আক্তার।

গোপালদী পৌরসভায় আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র হালিম শিকদার ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মুশফিকুর রহমান মিলন।

বড় দুই দলেই বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন নেতাকর্মীরা। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেয়র পদে মনোনয়ন পত্র জমা দেন মঞ্জুর হোসেন। কিন্তু বিরোধ রয়েই গেছে।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ