বিএনপিতে গিয়াসের ছায়া, জাফর আউট

৫ ভাদ্র ১৪২৫, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮ , ১২:৩৯ অপরাহ্ণ

বিএনপিতে গিয়াসের ছায়া, জাফর আউট


সোনারগাঁ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৪২ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৯:২৭ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার


বিএনপিতে গিয়াসের ছায়া, জাফর আউট

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলা বিএনপিতে এখনও সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দীনের ছায়া রয়েছে। এ এলাকায় বিএনপির দুএকজন এখনও গিয়াসের নাম জপেন নিয়মিত। তাদের একজন আমির হোসেনকে বিএনপি থেকে অব্যাহতি দিয়েছে উপজেলা বিএনপি। সঙ্গে সোনারগাঁও বিএনপির রাজনীতি থেকে আউট হয়ে গেছেন খন্দকার আবু জাফর। কারন দীর্ঘদিন যাবত তিনি বিএনপির রাজনীতি থেকে সরে আছেন। বেশির ভাগ সময় তিনি প্রবাসেই কাটাচ্ছেন।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, সোনারগাঁও উপজেলা বিএনপির সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সেক্রেটারি পদে ছিলেন আমির হোসেন। যিনি সোনারগাঁয়ে ঘুরে ঘরে গিয়াসের গুণকীর্তনে ব্যস্ত ছিলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুুয়ারির নির্বাচনের আগে সোনারগাঁয়ে শোডাউন করেছিলেন গিয়াসউদ্দীন। মূলত উপজেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফরের মাধ্যমে সোনারগাঁয়ে প্রবেশ করেছিলেন গিয়াসউদ্দীন। ওই সময় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকাটি সোনারগাঁও নিয়ে ছিল নারায়ণগঞ্জ-৩ সংসদীয় আসন। ওই সময় খন্দকার আবু জাফর সোনারগাঁয়ে গিয়াসউদ্দীনের পক্ষে নির্বাচিত শোডাউন করেছিলেন। গিয়াসের সঙ্গে কিছুদিন দেখা গিয়েছিল জেলা যুবদলের সেক্রেটারি শাহআলম মুকুলকেও।

ওই সময় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য আজহারুল ইসলাম মান্নান। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকাটি যখন ফতুল্লার সঙ্গে যুক্ত করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন গঠিত হয়। তারপর সোনারগাঁও থেকে মুখ ঘুরিয়ে নেয় গিয়াসউদ্দীন। কিন্তু রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে গিয়াসউদ্দীন না থাকলেও সোনারগাঁয়ে বেশকটি শোডাউন করে কিছু অনুগামী বানিয়েছিলেন তিনি। যাদের মধ্যে অন্যতম সাদিপুুর ইউনিয়ন বিএনপির সেক্রেটারি আমির হোসেন। যদিও খন্দকার আবু জাফর অনেক আগেই গিয়াসের সঙ্গ ত্যাগ করেছেন।

৮ আগস্ট বুধবার সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সেক্রেটারি আমির হোসেনকে অব্যাহতি দেন উপজেলা বিএনপি। যেখানে উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে রিয়াজুল ইসলাম ও সেক্রেটারি আজহারুল ইসলাম মান্নান এই অব্যাহতি দেন। খন্দকার আবু জাফর এখনও এ সিদ্ধান্তের কোন বিরোধীতা করেননি। যে কারনে সোনারগাঁয়ের বিএনপির নেতাকর্মীরা মনে করছেন সোনারগাঁও বিএনপির রাজনীতি থেকে আউট হয়ে গেছেন আবু জাফর।

আমির হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ সাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন আমির হোসেন। যেখানে আমির হোসেন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয় বলেও দাবি করা হয়। আমির হোসেন নিজেও বিএনপির রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সক্রিয় নয়। স্থানীয়ভাবেও তার ইমেজ নিয়েও রয়েছে নানা ধরনের মন্তব্য। এসব কারনে তাকে সেক্রেটারি পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। যেখানে ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয় সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সিনিযর সহ-সভাপতি সেলিম সরকারকে।

তবে নেতাকর্মীরা বলছেন সেলিম সরকার ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি করার স্থলে প্রচার করা হয়েছে তাকে সেক্রেটারি নির্বাচিত করা হয়েছে। সংগঠনের কোন নিয়মে কমিটি থাকাবস্থায় একটি পদে কেউ নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ নেই। নির্বাচিত করতে হলে পুনরায় কমিটি গঠনের মাধ্যমে নির্বাচিত হতে হবে। যেহেতু একটি পদে তাকে বসানো হয়েছে সেটা ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি পদটি। কিন্তু দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সিনিয়র সহ-সভাপতি কখনও ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি হতে পারে না। ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি পদে আসতে পারে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে থাকা নেতা। যদিও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদের কোন নেতা সক্রিয় না থাকেন তাহলে সাংগঠনিক সম্পাদক এ পদে অধিষ্ট হবেন। সেক্ষেত্রে সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপির এই পদটি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে দলের নিয়ম ভঙ্গ করা হয়েছে। আর খন্দকার আবু জাফরের স্থলে ভারপ্র্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে রিয়াজুল ইসলামকে কবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তা নেতাকর্মীরা জানেন না। সংগঠন বিরোধী এই কার্যক্রমটি মুলত আজহারুল ইসলাম মান্নানের কারণে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ