৬ আশ্বিন ১৪২৫, শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ

শামীম ওসমানের চার রেকর্ড


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৭:৪২ পিএম, ২৪ আগস্ট ২০১৮ শুক্রবার


শামীম ওসমানের চার রেকর্ড

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত একজন শামীম ওসমান। ইতোমধ্যে তিনি চারটি ক্ষেত্রে রীতিমত রেকর্ড করে ফেলেছেন। সবশেষ নারায়ণগঞ্জে সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত আয়োজন করে রীতিমত প্রতিপক্ষের শিবিরের অনেকেরেই প্রশংসা পেতে শুরু করেছেন। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, শামীম ওসমানের ওই চারটি রেকর্ডের মধ্যে তিনটি বেশ আলোচিত। একটি নারায়ণগঞ্জের কলংক হিসেবে পরিচিতি পাওয়া টানবাজার পতিতাপল্লী উচ্ছেদ, নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রথম যুদ্ধাপরাধীদের দাবী উঠানো ও সবশেষ বৃহৎ ঈদের জামাতের আয়োজন।

শামীম ওসমান হলেন খান সাহেব ওসমান আলীর নাতি ও একেএম সামসুজ্জোহার ছেলে। একই সঙ্গে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতাও।

সম্প্রতি ঈদুল আজহায় নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বৃহৎ ঈদ জামাতের আয়োজন করে সফল হয়েছেন এমপি শামীম ওসমান। নারায়ণগঞ্জ ঈদগাহ ও একেএম সামছুজ্জোহা স্টেডিয়ামে আয়োজন হলেও দুই মাঠ ভরে যাওয়ায় জায়গা না পেয়ে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কে ও একটি মাদ্রাসার ছাদের উপরও ঈদের নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। এতে করে মুসল্লিরা সবাই শামীম ওসমানের প্রশংসা করেন। তবে ওই জামাতে শামীম ওসমান ঘোষণা দেন এবার ভুল ত্রুটি শুধরে আগামী ঈদের জামাত হবে বাংলাদেশের মধ্যে সব থেকে বড় জামাত। এর জন্য এবছর থেকে তিনি উদ্যোগ নিয়েছেন।

ঈদের জামাতের আগেই শামীম ওসমান আলোচিত হয়েছেন চলতি মেয়াদে উন্নয়ন কাজের জন্য। ইতোমধ্যে তিনি ঘোষণা দিয়েছে ২০১৪ সালে এমপি হওয়ার পর এখনও পর্যন্ত ৭ হাজার ১০০ কোটি টাকার কাজ করে ফেলেছেন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ৫৫৮ কোটি টাকার ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা তথ্যা ডিএনডি বাঁধের জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্পের কাজ রয়েছে। এছাড়াও ফতুল্লা এলাকায় বিভিন্ন রাস্তা, ড্রেন ও লিংক রোডের কাজ সহ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাজতো রয়েছেই।

এসব কাজের আগে থেকেই শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জের পাশাপাশি দেশজুড়ে আলোচিত হয়েছিলেন ১৯৯৬ সালে প্রথম সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে। সেবার নির্বাচিত হওয়ার পর ১৯৯৯ সালের ২৪ জুলাই তৎকালীন সময়ে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান নগরীর টানবাজার এলাকার প্রায় ১১০ বছরের পতিতা পল্লী উচ্ছেদ করে জেলার দীর্ঘ দিনের কলংক মুক্ত করেছিলেন। এতে করে দেশজুড়ে আলোচিত হন তিনি। শুধু পতিতা পল্লী উচ্ছেদ করে কলংক মুক্ত করেননি এর পাশাপাশি উন্নয়নের ধারাবাহিকতাও চালিয়ে যান তিনি। নারায়ণগঞ্জকে আধুনিকায়ন করার জন্য ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের জন্য ২৬০০ কোটি টাকার কাজ করেন।

২০০০ সালের ১৬ এপ্রিল সরকারী তোলারাম কলেজে শহীদ জননী জাহানারা ইমাম নামের একটি ভবন নির্মাণের উদ্ধোধন করা হয়। সেদিন বরেণ্য বুদ্ধিজীবি হাসান ইমাম, সামছুর রহমান, শাহরিয়ার কবির, মুনতাসির মামুন, কবির চৌধুরী, ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিনী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে কলেজ প্রাঙ্গনে মুক্তমঞ্চের সমাবেশ থেকে রাজাকার, স্বাধীনতা ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবী করা হয়।

সেদিন সমাবেশ শেষে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে নারায়ণগঞ্জে গোলাম আজম, দেলোয়ার হোসেন সাইদী ও আলী আহসান মুজাহিদকে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়। ওই সমাবেশের ৩দিন পর মুন্সীগঞ্জে একটি কর্মসূচী ছিল নিজামী। কিন্তু তারা সেই অনুষ্ঠানে যেতে পারেনি নিজামী।

এছাড়া ওই বছরেই নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকায় প্রতীকি বিচার করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য সাঈদী,  গোলাম আজম, নিজামীর ফাঁসি দেওয়া হয় প্রতীকি ভাবেই।

এখানে উল্লেখ্য ১৯৮৫ সালে এরশাদ আমলে নারায়ণগঞ্জ ‘ সরকারী তোলারাম কলেজের ভি পি ও ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতা থাকা অবস্থায় নারায়ণগঞ্জে প্রতিষ্ঠিত আদর্শ স্কুলে প্রধান শিক্ষক ছিলেন ‘ যুদ্ধাপরাধে মৃত্যুদন্ড কার্যকর হওয়া আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ। মুজাহিদ স্কুলের ভিতরে শহীদ মিনার নির্মাণ করতে ইচ্ছাকৃত ভাবে শহীদ মিনার অবমাননা করছিল। তাছাড়া স্কুলে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শিক্ষা দেয়া হত। পড়াশোনা হত গোলাম আযমের লেখা বই - ‘ কিশোর মনে ভাবনা জাগে। ’ আর এই অপরাধে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মাথা ফাঁটিয়ে দিয়েছিলেন শামীম ওসমান।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ