আসেনি মহানগর বিএনপি, এসে ধস্তাধস্তিতে সাখাওয়াত

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০২ পিএম, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার



আসেনি মহানগর বিএনপি, এসে ধস্তাধস্তিতে সাখাওয়াত

নারারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই একত্রিত হতে পারছেন না পদে থাকা নেতৃবৃন্দরা। প্রত্যেক কর্মসূচিতেই তারা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পৃথক পৃথকভাবে দলীয় এজেন্ডা বাস্তবায়ন করে আসছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবারের মাবববন্ধন কর্মসূচিতে আলাদাভাবে এসেছিলেন অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। তবে কর্মসূচিতে আসেননি মহানগর বিএনপির অন্যান্য নেতাকর্মীরা।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে অ্যাডভোকেট আবুল কালামকে সভাপতি ও এটিএম কামালকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। এই কমিটিতে সিনিয়র সহ সভাপতি হিসেবে পদ পান নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট হোসেন খান।

মহানগর কমিটিতে পদ পাওয়ার পর থেকেই সভাপতি পদে থাকা অ্যাডভোকেট আবুল কালামের সাথে পাল্লা দিয়ে সাখাওয়াত হোসেন তার কর্তৃত্বের বলে আলাদা একটি বলয় গড়ে তুলেন যে বলয়ের মাধ্যমে তিনি মহানগর কমিটির বাইরে গিয়ে মহানগরের ব্যানারে প্রায় সকল কর্মসূচি পালন করে আসছেন। তার এই তৎপরতার সাথে কুলিয়ে উঠতে পারছিলেন না আবুল কালাম। বরাবরই তিনি সাখাওয়াতের পিছনে পড়ে থাকতেন।

এবার ৮ সেপ্টেম্বর শনিবারের কর্মসূচিতেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির অন্যান্য নেতাকর্মীদের নিয়ে সিনিয়র সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে আসেন। যদিও পুলিশ তাকে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে দেয়নি। এসময় তার চার কর্মীকে আটকও করা হয়েছে যাদেরকে ছাড়িয়ে নিতে সাখাওয়াত অনেক প্রচেষ্টা চালিয়েছেন।

তার সাথে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবির, নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার প্রধানসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা।

জানা গেছে, কেন্দ্রীয়ভাবে মহানগর ও জেলায় বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। তারই অংশ হিসেবে সকাল সাড়ে ১০টায় মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান তার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হচ্ছিলেন। কিন্তু জড়ো হওয়ার সময়ই পুলিশ ধাওয়া দিয়ে সাখাওয়াতের চারজন কর্মীকে আটক করে। তারা হলো, মাহিউদ্দিন মাহি, রতন, আবদুর রহমান ও শহীদ। ওই সময়ে চারজনকে ছাড়াতে পুলিশের সঙ্গে সাখাওয়াতের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে।

অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, আমরা সবসময় শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করে আসছি। তারই অংশ হিসেবে আজকে আমরা শান্তিপূর্ণ পালন করতে এসেছিলাম। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন আমাদের দাঁড়াতে দেয়নি। আমাদেরকে রাজনৈতিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এভাবে আমাদেরকে দাঁড়াতে না দিলে আমরা কোথায় যাবো।

অন্যদিকে সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল কালামের নেতৃত্বে থাকা নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির অন্যান্য নেতাকর্মীদেরকে মানববন্ধন কর্মসূচি উপলক্ষে কোথাও দেখা যায়নি। যদিও নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আবুল কালাম অসুস্থ হয়ে ঢাকার তেজগাঁও শমরিতা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও