আমার হাত পা বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে : ছাত্রদল সভাপতি রনি (ভিডিও)

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৩০ পিএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার



আমার হাত পা বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে : ছাত্রদল সভাপতি রনি (ভিডিও)

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদল সভাপতি মশিউর রহমান রনি অভিযোগ করেছেন সোমবার না বরং শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর রাতেই তাকে রাজধানী থেকে তুলে নিয়ে যায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তখন থেকেই তার হাত পা ও চোখ বাঁধা ছিল। ওই দুইদিন নির্যাতন করে সোমবার সকালে পুলিশ তাকে গ্রেফতার দেখায়।

সোমবার ১৭ সেপ্টেম্বর দুপুরে রনিকে নারায়ণগঞ্জের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে তিনি ওইসব কথা জানান আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন খানের কাছে। সাখাওয়াত বর্তমানে মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি ও আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি। এর আগেরদিন নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে রনির সন্ধান চেয়ে সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন সাখাওয়াত।

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে সাখাওয়াত বলেন, ‘রনিকে আদালতে আনার পর আমার সঙ্গে কথা হয়েছে। সে দুইদিনের ঘটনা আমাকে বর্ণনা করেছেন। রনি জানিয়েছেন গত ১৫ তারিখ ঢাকার আরামবাগ থেকে ৭ থেকে ৮জন ডিবি সদস্য পরিচয়ে তাকে আটক করা হয়। তাদের পাশে থাকা একটি মাইক্রোবাসে উঠেই তার হাত, পা এবং চোখ বেঁধে ফেলে ডিবির পরিচয় দানকারী সদস্যরা। আটকের পর ২দিন ধরে তাকে সীমিত পরিমাণ খাবার সরবরাহ করা হত। এছাড়া ছাত্রদলের সাথে জড়িত থাকা এবং সরকার ও তার নেতাদের বিরুদ্ধে কথা বলার অপরাধে ব্যাপক নির্যাতন করা হয় বলেও জানান।

তবে পুলিশ বলছে ১৭ সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে তাকে পিস্তল ও গুলি সহ গ্রেফতার করা হয়েছে। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের জানান, সোমবার সকাল ৬টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রনিকে ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ওই সময়ে রনির কাছ থেকে একটি বিদেশী তৈরি পিস্তল ও ৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, আমাদের ডিবি পুলিশের কোন সম্পৃক্ততা ছিল না। আর পিস্তল সহ গ্রেফতার হওয়ার পর ধারণা করা হচ্ছে সে নিজেই আত্মগোপনে থেকে এ পরিস্থিতি তৈরি করেছে। তবে এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

এদিকে টানা দুইদিন নিখোঁজ থাকার পর রনির খোঁজ পাওয়ায় উচ্ছ্বাসিত দেখা গেছে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের। রনির পরিবারের সদস্যরা ও সংগঠনের নেতাদের মহান আল্লাহ ও প্রশাসনের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে দেখা যায়।

দুপুরে আদালতে উভয় পক্ষের শুনানী শেষে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল মোহসিন ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ছাত্রদল সভাপতির জামিন আবেদন না মঞ্জুর এবং ৩ দিনের রিমান্ডে নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তার আইনজীবীরা জানান, জেলা ছাত্রদল সভাপতি রনির পক্ষের আইনজীবীদের আইনি সুবিধা দেয়নি পুলিশ। মক্কেলের সাথে কথা বলার ও সুযোগ ছিল না। রনি প্রচন্ড অসুস্থ, তার চিকিৎসা সেবা প্রয়োজন। আদালতে উঠেই সে কাঁদছিল এবং সে প্রচন্ড রকম ভীত ছিল। একটি ষড়যন্ত্র মূলক মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৩ দিনের রিমান্ডে নেয়ায় আমরা তার সুস্থতা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছি।

রনির ছোট ভাই মহিবুর রহমান রানা জানান, রনি গত ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় পারিবারিক কাজে ঢাকা যায়। আর রাত পর্যন্ত ফিরে আসেনি। তবে রাত সাড়ে ১০টায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ঢাকা থেকে টেলিফোনে জানায় যে একটি কালো মাইক্রোবাসে করে কয়েকজন সাদা পোষাকধারী নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয়ে রনিকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। এর পর থেকে নিখোঁজ ছিল রনি। তবে প্রশাসন যেসব অভিযোগ করছে সেগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট। কারণ আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় একটিও ব্যক্তিগত কোন অভিযোগ নেই। যেসব অভিযোগে মামলা হয়েছে সবই রাজনৈতিক কর্মকান্ড করতে গিয়ে হয়েছে। শনিবার রাতে আটক করার পর নাটক সাজাতে একদিন পর গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও